চালকদের সড়ক আইন ও মানবিক মূল্যবোধের প্রশিক্ষণ দিতে হবে

  ড. শফিক আলম ২৩ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চালকদের সড়ক আইন ও মানবিক মূল্যবোধের প্রশিক্ষণ দিতে হবে
চালকদের সড়ক আইন ও মানবিক মূল্যবোধের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। ছবি: সংগৃহীত

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরীর অনাকাক্সিক্ষত ও মর্মান্তিক মৃত্যু রাজধানীর সড়ক ব্যবস্থাপনার দুর্বলতাগুলো আবার আমাদের সামনে তুলে ধরেছে। ইতিমধ্যে দুই সিটি কর্পোরেশন রাজধানীর সড়ক ও ফুটপাতগুলোর অনেকটাই উন্নয়ন করেছে। পুলিশের ট্রাফিক বিভাগও বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নিয়েছে; যেমন- পৃথক বাস লেন ও যাত্রী ওঠা-নামার জায়গা নির্ধারণ, মোটরসাইকেল আরোহীদের হেলমেট পরিধান, ছাত্রদের নিয়ে ট্রাফিক স্কাউট গঠন ইত্যাদি। প্রশ্ন হচ্ছে, এরপরও কেন ঘন ঘন দুর্ঘটনা ঘটছে?

দেশে-বিদেশে কর্ম অভিজ্ঞতা থেকে আমি মনে করি, এ সমস্যা উত্তরণে আমাদের প্রথমে একটি ব্যাপকভিত্তিক সামাজিক আন্দোলনের কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে। সেটা হচ্ছে, সড়কে নীতি-নৈতিকতা এবং আইন ও নিয়মকানুন মানার সংস্কৃতি চালক-যাত্রী নির্বিশেষে সবার মধ্যে জাগিয়ে তোলা।

লক্ষ করেছি, লাইন মার্জিং থাকা সত্ত্বেও গাড়িগুলো এলোমেলোভাবে চলাচল করছে; বাসগুলো তাদের নির্ধারিত লেনে চলছে না, যানজটে থাকা অবস্থায়ও গাড়িগুলো ক্রমাগত হর্ন দিচ্ছে, হকাররা ফুটপাতে দোকান পসরা সাজিয়ে পথচারীদের রাস্তায় চলাচলে বাধ্য করছে, ময়লা-আর্বজনা দিয়ে সড়কের ড্রেন বন্ধ থাকায় দ্রুত সড়ক নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ইত্যাদি। কাজেই অবিলম্বে প্রকৌশল কার্যক্রম ও আইনের প্রয়োগ জোরদারের পাশাপাশি ব্যাপকভাবে সড়ক ব্যবহার ও চলাচল বিষয়ে শিক্ষামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে। সরকারের পাশাপাশি মিডিয়াকেও এগিয়ে আসতে হবে।

নাটক-চলচ্চিত্রে, স্কুলের পাঠ্যবইয়ে এ বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। একটি ক্রাশ প্রোগ্রামের আওতায় নবীন-প্রবীণ সব চালককে বাধ্যতামূলকভাবে সড়ক আইন ও মানবিক মূল্যবোধ বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিতে হবে। সরকারি উদ্যোগে এনজিওদের সহায়তায় এক বা দুই দিনের প্রশিক্ষণ কর্মসূচি অনেক ভুলভ্রান্তি থেকে তাদের মুক্ত করতে পারে।

দ্বিতীয়ত, পরিবহন মালিকদের বুঝিয়ে হোক কিংবা আইনের মাধ্যমেই হোক, বিশ্বের অন্যান্য নগরীর মতো সব বাস কোম্পানিকে একটি সুশৃঙ্খল সংস্থার অধীনে নিয়ে আসতে হবে; তা না হলে বাসের বিদ্যমান অসুস্থ প্রতিযোগিতা কখনোই বন্ধ হবে না।

উপরোক্ত দুটো বিষয়ে গুরুত্ব দিলে ঢাকায় সড়ক ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে বর্তমান সমস্যাগুলো অনেকটাই কমে আসবে বলে মনে করি।

ড. শফিক আলম : অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী সড়ক প্রকৌশলী

[email protected]

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×