লোকসভা নির্বাচন-২০১৯

বিজেপির এ জনপ্রিয়তার রহস্য কী?

  মেহেদী হাসান ২৪ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাতায়ন

আবারও নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে দিল্লির মসনদে বসতে যাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি। কিছুদিন আগেও সব জল্পনা-কল্পনা, পূর্বানুমান, সমীক্ষা মোদির বিপক্ষে থাকলেও দিল্লির মসনদ মোদিরই থাকছে।

তার গুজরাট মডেলকে সামনে রেখে ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিজেপির আইকন হিসেবে জাতির সামনে এসে দাঁড়ান তিনি। সেবার ‘মেইক ইন ইন্ডিয়া’ স্লোগানে একটি নতুন ভারত গড়ার কৌশলী প্রচার মোদিকে দিয়েছিল উন্নয়নের অগ্রদূতের ভাবমূর্তি, বিপুল জনসমর্থন?

মোদি অর্জন করেছিলেন তরুণদের আস্থা। মোদির এই প্রচারণা তৈরি করে জোয়ার, বহুল আলোচিত মোদি ম্যাজিক। এর সঙ্গে ইউপিএ জমানার কমনওয়েলথ দুর্নীতি, কয়লা, টু-জি কেলেঙ্কারির ঘটনা, স্বজনপ্রীতি, সিদ্ধান্তহীনতা, বেকারত্বের মতো বিষয়গুলো মোদিকে ভারতীয়দের প্রথম পছন্দ হিসেবে বেছে নিতে সাহায্য করে।

মোদির আগমন কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী পর্যন্ত ভারতজুড়ে ম্যাজিক বা ভেলকির মতো কাজ করে, নতুন ভোটাররা রীতিমতো মোদির হয়ে প্রচারণা শুরু করে দেয়।

মোদি ঝড়ে বিরোধী শিবির তছনছ হওয়ার পাশাপাশি বিজেপির মসনদের ভিত এত মজবুত হয় যে দলটি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে।

মেইক ইন ইন্ডিয়া স্লোগান সামনে রেখে ভারতকে বিশ্ব অর্থনীতির মহাসড়কে তুলতে শুরু হয় মোদির দিনান্ত পরিশ্রম। তার ‘আচ্ছে দিনে’র স্বপ্ন ভারতীয়দের বিমোহিত করে রেখেছিল। কিন্তু শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, কর্মসংস্থান, দুর্নীতি দমন, নাগরিকের আয় বৃদ্ধিসহ নানা ক্ষেত্রে প্রতিশ্রুতি রাখতে পারেননি মোদি। বস্তুত মোদি জমানায় ভারত অভিজাতদের অর্থনীতিতে পরিণত হয়, যেখানে সম্পদের মালিক হয়ে পড়ে মোদি-শাহ জুটির গুডবুকের বন্ধুরা। শহরকেন্দ্রিক অর্থনীতি কিছুটা চাঙ্গা হলেও গ্রামীণ অর্থনীতি ভেঙে পড়ে।

এর প্রভাব পড়ে অর্থনীতিতে। বিশেষ করে কৃষি ও কৃষক হয়ে পড়ে নাজেহাল। ২১ কোটি মুসলিমের দেশ ভারত মোদি জমানায় যেন তীব্র মুসলিমবিদ্বেষী হয়ে ওঠে। বিভাজন আর মেরুকরণের একটি উদাহরণ হল, ষোলোতম লোকসভায় ক্ষমতাসীন বিজেপির একজনও মুসলিম এমপি ছিল না।

ভারতীয় যে কোনো সরকারের কাছে অন্যতম স্পর্শকাতর রাজ্য জম্মু ও কাশ্মীর। মোদি জমানায় কাশ্মীর ছিল সবচেয়ে বেশি উত্তাল। উরি, পুলওয়ামা-কাণ্ডের জের ধরে কাশ্মীরে অনেক মানবাধিকার হরণের ঘটনা ঘটে। বিজেপির ইশতেহারে কাশ্মীরিদের বিশেষ মর্যাদা দিতে প্রণীত সংবিধানের ৩৭০ ধারা এবং ৩৫-এ ধারা বাতিলের ঘোষণা মুসলমানদের ক্ষুব্ধ করে। যদিও বিজেপির ইশতেহারে এবার ভোটে নারীদের জন্য অনেক কিছু করার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল, তবুও বাস্তবতা হল বিগত কয়েক বছর ধরে নারীর নিরাপত্তা হুমকির মুখে।

প্রশ্ন হল, এত কিছুর পরও ভারতীয় জনগণ কেন বিজেপিকে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা দিল? বিজেপির এ জনপ্রিয়তার রহস্য কী? এবারও কি নির্বাচনে নতুন কোনো ‘মোদি-ম্যাজিক’ কাজ করেছে? কোন সে ম্যাজিক?

মেহেদী হাসান: শিক্ষক, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

[email protected]

ঘটনাপ্রবাহ : ভারতের জাতীয় নির্বাচন-২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×