আরপিও এবং বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাদেশ পরস্পরবিরোধী

  ড. শে খ আ ব দু স সা লা ম ২০ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নির্বাচন কমিশন

বাংলাদেশে দৃশ্যমান রাজনীতির সূচনা সেই ব্রিটিশ আমল থেকে। ১৮৮৫ সালের ভারতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার আগে এ অঞ্চলের মানুষ সভা-সভাবেশ, সমিতি, সংগঠন ইত্যাদির সঙ্গে যুক্ত হয়ে বিচ্ছিন্নভাবে আবার কখনও বিশেষ উদ্দেশ্যে গঠিত নির্দিষ্ট কোনো প্লাটফর্ম যেমন- হিন্দু মহাসভা, রক্ষিণী সভা ইত্যাদিকে কেন্দ্র করে এসব প্লাটফর্মের মাধ্যমে নিজেদের মধ্যে মতবিনিময় করত অথবা কর্তৃপক্ষের কাছে তাদের দাবি-দাওয়া, আশা-প্রত্যাশার কথা জানাত। এসব প্লাটফর্ম বা সম্মিলনীর কোনো রাজনৈতিক পরিচিতি ছিল না। তবে এখান থেকে জনগণের পক্ষে এবং ইংরেজ শাসনের ভালো-মন্দ দিক সম্পর্কে তারা তাদের মতামত ব্যক্ত করত। তাতে কখনও কখনও রাজনৈতিক কথাবার্তার প্রতিফলনও থাকত। রাজনৈতিক গ্রুপ বা রাজনৈতিক দল এ রকম পরিচিতি বা স্বীকৃতি এগুলোর ছিল না। এগুলো পরিচালিত হতো স্রেফ একটি গোষ্ঠীস্বার্থ বা সেসব গোষ্ঠীর ভালো-মন্দ প্রচার-প্রকাশের একটি মঞ্চ হিসেবে।

মানুষের মধ্যে আস্তে আস্তে যখন সচেতনতা তৈরি হতে লাগল, ব্রিটিশ রাজের বিরুদ্ধে আন্দোলন-সংগ্রামে অধিক হারে মানুষ যখন সোচ্চার হতে লাগল, তখন তাদের জন্য ভারতবর্ষব্যাপী প্রয়োজন হয়ে পড়ল একটি রাজনৈতিক প্লাটফর্মের। এর ফলে ১৮৮৫ সালে গঠিত হল ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস। কংগ্রেস এ উপমহাদেশের প্রথম জনস্বীকৃত রাজনৈতিক দল। জন্মের সঙ্গে সঙ্গে কংগ্রেসের মুখ্য কাজ হয়ে উঠল ভারতীয়দের রাজনৈতিকভাবে সংগঠিত করা এবং ইংরেজ শাসন থেকে ভারতবর্ষকে মুক্ত করা।

ক্রমান্বয়ে ভারতীয়দের স্বদেশী জাগরণ, কংগ্রেসের জন্ম ইত্যাদি ইংরেজ শাসনের ভিত্তিকে নাড়া দিতে লাগল। এরূপ পরিস্থিতিতে ‘ডিভাইড অ্যান্ড রুল’ নীতির ভিত্তিতে বিশেষ করে হিন্দু-মুসলমান সম্পর্কের মধ্যে ফাটল ধরাতে ১৯০৫ সালে ব্রিটিশ রাজ বঙ্গভঙ্গ ঘোষণা করে। এর ফলে পূর্ববঙ্গের মুসলমানদের মধ্যে ভবিষ্যতে সুযোগ-সুবিধা লাভের ব্যাপারে এক ধরনের আশাবাদ তৈরি হয়। ভারতীয় কংগ্রেসে থাকা মুসলমান নেতৃত্বের মধ্যে মুসলমানদের জন্য একটি আলাদা রাষ্ট্র গঠনের স্বপ্নও তৈরি হয়। তারা নিজেদের পৃথক রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে আবির্ভাব ঘটাতে ১৯০৬ সালে মুসলমানদের স্বার্থ সংরক্ষণ ও বিকাশের লক্ষ্যে মুসলিম লীগ নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করে মুসলমানদের জন্য আলাদা পাকিস্তান রাষ্ট্র গঠনের জন্য রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড শুরু করে। অতঃপর বিভিন্ন রকম সামাজিক ও রাজনৈতিক ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ শাসনের অবসানের পর এ উপমহাদেশে ভারত ও পাকিস্তান নামক দুটি ভিন্ন রাষ্ট্রের জন্ম হয়।

পাকিস্তান রাষ্ট্র জন্মের পর ১৯৪৯ সালে টাঙ্গাইলের উপনির্বাচন অতঃপর যুক্তফ্রন্ট গঠন করে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের রাজনৈতিক দলগুলো রাষ্ট্রীয় শাসনব্যবস্থায় অংশ নেয়ার লক্ষ্যে রাজনৈতিকভাবে সংঘবদ্ধ হয়ে ১৯৫৪ সালের জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে এবং তাতে তারা জয়লাভ করে।

বিভিন্ন কারণে যুক্তফ্রন্ট সরকারের পতনের পর ১৯৫৮ সালে দেশটিতে মার্শাল ল’ জারি করা হয়। তখন থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত পাকিস্তানে রাষ্ট্রক্ষমতা পরিবর্তনের জন্য কোনো জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। সামরিক আইনের মধ্যে অনুষ্ঠিত ১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচনে কেন্দ্র এবং প্রদেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া সত্ত্বেও পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী নির্বাচিত নেতৃত্বের হাতে রাষ্ট্রক্ষমতা হস্তান্তর করতে অস্বীকৃতি জানানোর ফলে শুরু হয়ে যায় আমাদের মুক্তিযুদ্ধ। আর এর মধ্য দিয়ে অভ্যুদয় ঘটে স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রের।

স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর মাত্র দেড় বছরের মধ্যেই প্রণীত হয় বাংলাদেশের শাসনতন্ত্র। বঙ্গবন্ধুর সাড়ে তিন বছরের শাসনামলে অন্যতম শ্রেষ্ঠ অবদান হচ্ছে- অত্যন্ত স্বল্প সময়ে দেশের জন্য একটি শাসনতন্ত্র প্রণয়ন। জনমতের ভিত্তিতে একটি রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য বাংলাদেশের শাসনতন্ত্র তখন এবং আজও তৎকালীন বঙ্গবন্ধু সরকারের একটি অন্যতম শ্রেষ্ঠ উপহার; এটি বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ভিত্তি দলিল।

রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য এ অমূল্য দলিলটির পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু জাতিকে আরও একটি শ্রেষ্ঠ দলিল উপহার দিয়েছিলেন সেই ১৯৭৩ সালে। তিনি বিশ্বাস করতেন উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিশেষ করে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো কোনোরকম হস্তক্ষেপ ছাড়া শিক্ষিত কমিউনিটি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ও পরিচালিত হওয়া উচিত। তার বিশ্বাস ছিল বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে যারা কাজ করবেন, যারা সেখানে পাঠদান করবেন, তারা হবেন উচ্চমূল্যবোধসম্পন্ন মানুষ। তাদের চিন্তা-চেতনা, দর্শন-রাজনীতি কোনো কিছুতেই কোনো ধরনের বাধা সৃষ্টি করা যাবে না। তারা হবেন স্বচিন্তক, স্বনিয়ন্ত্রক। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা স্বাধীনভাবে চিন্তা করবেন এবং তাদের চিন্তা-ভাবনা শিক্ষার্থী এবং দেশের মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দেবেন। সে কারণে তিনি সে সময়ের ৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালনার জন্য (ঢাকা, রাজশাহী, চট্টগ্রাম ও জাহাঙ্গীরনগর) বিশ্ববিদ্যালয় অর্ডার প্রণয়ন করে তার অনুমোদন প্রদান করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য তখনই রাষ্ট্রপতির আদেশ-১১ বলে The Dhaka University Order-1973 প্রণীত হয়। এ অর্ডারের বলে ঢাকাসহ ওই চারটি বিশ্ববিদ্যালয় স্বাধীনভাবে পরিচালিত হওয়ার সুযোগ পায়। এর ফলে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রশাসনিক শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনায় সরকারি হস্তক্ষেপ নীতিগতভাবে এবং দৃশ্যতও প্রায় শূন্যতে নেমে আসে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আইনগতভাবে মূলত তখন থেকেই স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা ভোগ করে আসছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্ডার বলে শিক্ষকরা শুধু শ্রেণীকক্ষে নয়, শ্রেণীকক্ষের বাইরে পাবলিক প্লাটফর্মে দাঁড়িয়েও তাদের স্বাধীন চিন্তা, স্বাধীন মত ব্যক্ত করতে পারেন। এ অর্ডারের প্রদত্ত সুযোগের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং কর্মকর্তারা যে কোনো রাজনৈতিক ইস্যু নিয়েও স্বাধীনভাবে কথা বলতে পারেন, তারা বৈধ যে কোনো রাজনৈতিক দলের সদস্য হয়ে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডেও অংশ নিতে পারেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অর্ডারের ৩৮ পৃষ্ঠায় ৫৬ অনুচ্ছেদে শিক্ষক ও কর্মকর্তা নিয়োগের সার্ভিস কন্ডিশনে (২ উপ-অনুচ্ছেদ) বলা আছে- The service conditions shall be determined without any prejudice to the freedom of the teacher or officer to hold any political views and to keep association with any lawful organization outside the University and shall be clearly stated in the contract. Provided that if a teacher or other salaried employee of the University seeks election as a Member of Parliament, he shall before the date for filing of nominations, resign from the service of the University.

এখানে স্পষ্টত দেখা যাচ্ছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তারা চাইলে চাকরিতে থাকা অবস্থাতেই যে কোনো রাজনৈতিক দলের সদস্য হতে পারেন, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে পারেন। এ অর্ডারবলে তারা চাইলে চাকরি অবস্থায় থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য হওয়ার জন্য ছাড়া যে কোনো নির্বাচনে অংশগ্রহণও করতে পারেন। জাতীয় সংসদ সদস্য হওয়ার জন্য নির্বাচনে অংশ নিতে চাইলে তাকে চাকরি থেকে ইস্তফা দিতে হয়। শোনা যায়, বঙ্গবন্ধু সেসময় চাকরি রেখেই শিক্ষকরা কেউ চাইলে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন এমন মতের পক্ষে ছিলেন। কিন্তু তখন প্রভাবশালীদের কেউ কেউ ভেবেছিলেন এমনটি হলে তাদের অনেকের এমপি হওয়ার সুযোগ কমে যাবে। সে কারণে তাদের চাপ ও পরামর্শে শুধু এমপি নির্বাচনের জন্য শিক্ষক-কর্মকর্তাদের চাকরি ত্যাগের বিষয়টি অর্ডারে অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন। অতীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরি থেকে ইস্তফা দিয়ে দু-একজন (যেমন- অধ্যাপক মোশররফ হোসেন) জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। তাছাড়া সরাসরি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত থেকে সুনামের সঙ্গে শিক্ষকতা চালিয়ে গেছেন, এমন শিক্ষক রয়েছে প্রচুর। তাদের মধ্যে প্রায়ত অধ্যাপক ম. আখতারুজ্জামান, প্রয়াত অধ্যাপক রঙ্গলাল সেন, অধ্যাপক একে আজাদ চৌধুরী, অধ্যাপক দুর্গাদাস ভট্টাচার্য প্রমুখের নাম উল্লেখ্যযোগ্য।

বর্তমান সময়ে এসে রাজনীতির চিত্র অনেকটা পাল্টে গেছে। সংসদে প্রতিনিধিত্বকারীদের পেশার চিত্র নিলে বোঝা যাবে কারা এখন রাজনীতি করছেন, কারা সংসদে প্রতিনিধিত্ব করছেন। সেখানে উকিল, ডাক্তার, শিক্ষক তাদের অংশগ্রহণ খুবই কম। দুঃখজনকভাবে এসব পেশার মানুষ সংসদে গিয়ে আজকাল কন্ট্রিবিউট করার সুযোগ পাচ্ছেন না বিধায় তারা রাজনীতিতে অবদান রাখার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। তারা অনেকে রাজনৈতিক দলের সদস্য, কর্মী, সমর্থক ইত্যাদি হয়ে রাজনীতিবাজির কাজে যুক্ত হয়ে পড়ছেন ঠিকই; কিন্তু আইনি বাধার কারণে সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে পারছেন না। গত মাসে আমি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়েছিলাম। সেখানে শুনেছি সাংবাদিকতা বিভাগের একজন অধ্যাপক গত বেশ কয়েক বছর তিনি ছুটি নিয়ে বিধান সভার সদস্য নির্বাচিত হয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছেন। তিনি এখন আবার বিভাগে শিক্ষকতায় ফিরে এসেছেন। ভারতবর্ষে এমন অনেক উদাহরণ রয়েছে।

কিন্তু বাংলাদেশের চিত্র অন্যরকম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অর্ডার অনুযায়ী শিক্ষক ও কর্মকর্তারা চাকরিতে থাকা অবস্থায় রাজনীতিতে যুক্ত থাকতে পারবেন; কিন্তু চাকরি ত্যাগ করে হলেও কেউ সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে চাইলে তা পারবেন বলে মনে করার কোনো কারণ নেই। রাষ্ট্রপতির অর্ডার ১৫৫ অব ১৯৭২ অনুযায়ী The Representation of the people order 1972 (as amended upto 2013)এর ১২ ধারার সি এবং এফ অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে- a person shall be disqualified for election as or for being, a member, if he is holding any office of profit in the service of the Republic or of a statutory public authority has resigned or retired from the service of the Republic or of any statutory public authority or of the defense service unless a period of three years has elapsed since the date of his resignation or retirement.

সংশ্লিষ্টজনরা মনে করেন, বর্তমানে বলবৎ RPO-এর এ ধারাটি করা হয়েছিল মূলত সরকারি চাকরিজীবী যারা পদে থাকার সময় যথেষ্ট ক্ষমতাবান থাকেন এবং পদ থেকে অবসরে যাওয়া বা চাকরি ত্যাগের পরও ক্ষমতার জোরে ভোটারদের প্রভাবিত করার যোগ্যতা রাখেন তাদের কথা মাথায় রেখে। এমন অবস্থা থেকে মুক্ত থাকতে তাদের ওপর এ ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়ে থাকতে পারে। উল্লেখ্য, সরকারি চাকুরেগণ চাকরিরত অবস্থায় কোনো রাজনৈতিক দলের সদস্য হওয়া বা কোনো রকম পলিটিক্যাল কার্যক্রমে যুক্ত হতে পারেন না। কিন্তু ১৯৭৩-এর আদেশ বলে পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তারা চাকরিতে থাকা অবস্থাতেই যে কোনো বৈধ রাজনৈতিক দলের সদস্য হতে পারেন, রাজনীতিক কার্যক্রমে অংশ নিতে পারেন।

সেক্ষেত্রে আরপিও-র ১২ ধারাটি তাদের জন্য আদৌ প্রয়োগযোগ্য কিনা অথবা প্রয়োগযোগ্য হয়ে থাকলে তা কতটুকু যুক্তিযুক্ত সে বিষয়টি ভাবা দরকার। তারা চাকরিতে থাকা অবস্থায় রাজনীতি করতে পারবেন (অথবা তাদের দিয়ে রাজনীতিবাজিতে অংশ নেয়ার সুযোগ দেয়া হবে); কিন্তু সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে যেখানে তারা রাজনীতিতে অবদান রাখার সুযোগ পাবেন সেই কাজটিতে আইন দ্বারা প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে রাখা হবে, এটি কোনোভাবে যৌক্তিক সিদ্ধান্ত নয়। কাউকে রাজনীতি করার সুযোগ দিলে তাকে নির্বাচন করার সুযোগও দেয়া যেতে পারে। নইলে সরকারি কর্মকর্তাদের মতো দুটোই বন্ধ করে দিয়ে সমতা প্রতিষ্ঠা করার বিষয়টি ভেবে দেখা দরকার।

ড. শেখ আবদুস সালাম : অধ্যাপক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

[email protected]

pran
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

mans-world

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.