শিক্ষার্থীরা নিজেই সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা অর্জন করবে
jugantor
শিক্ষার্থীরা নিজেই সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা অর্জন করবে

  শুভ্রত নাথ  

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শিক্ষার্থীরা নিজেই সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা অর্জন করবে

নতুন শিক্ষাক্রমের রূপরেখায় দশম শ্রেণি পর্যন্ত মানবিক, বিজ্ঞান, বাণিজ্যের বিভাজন তুলে দেওয়া হয়েছে-এটা ইতিবাচক। প্রত্যেক মানুষকে বৈজ্ঞানিকভাবে সাক্ষর করতে হবে। দৈনন্দিন জীবনে সিদ্ধান্ত গ্রহণে যাতে তারা বিজ্ঞান শিক্ষার জ্ঞানটাকে ব্যবহার করতে পারে-এটা একটা নির্দিষ্ট স্তর পর্যন্ত সবার থাকতে হবে।

আমাদের দেশে এ বয়সি শিক্ষার্থীরা নবম-দশম শ্রেণিতে পড়ে। একজন শিক্ষার্থী কোন্ বিভাগে পড়বে সেটার সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতাটা তার অর্জন করতে হবে। শিক্ষার্থীর পরিবার তার ছেলেমেয়েদের ওপর চাপিয়ে দেয় কে বিজ্ঞান পড়বে আর কে মানবিক পড়বে। নতুন শিক্ষাক্রমে তা থাকছে না; তাই এটি একটি ইতিবাচক দিক।

পৃথিবীতে জ্ঞান-বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে আমরা যাতে নেতৃত্ব প্রদান করতে পারি, সেই লক্ষ্য অর্জনের মনমানসিকতা নিয়ে সবাইকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশে গুণগত শিক্ষার বিস্তারে বহু গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়েছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন সময়ে গুরুত্বের সঙ্গে বলেছেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জ্ঞানের ক্ষেত্রে বিশ্ব যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তখন আমরা কোনোভাবেই পিছিয়ে থাকতে পারি না। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যকে যথার্থ বলেই মনে করি। আমরা যাতে দ্রুত এগিয়ে যেতে পারি, সে জন্য সর্বাÍক চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে।

শুভ্রত নাথ : প্রধান শিক্ষক, ফেনী সরকারি বালিকা বিদ্যালয়

শিক্ষার্থীরা নিজেই সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা অর্জন করবে

 শুভ্রত নাথ 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
শিক্ষার্থীরা নিজেই সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা অর্জন করবে
ফাইল ছবি

নতুন শিক্ষাক্রমের রূপরেখায় দশম শ্রেণি পর্যন্ত মানবিক, বিজ্ঞান, বাণিজ্যের বিভাজন তুলে দেওয়া হয়েছে-এটা ইতিবাচক। প্রত্যেক মানুষকে বৈজ্ঞানিকভাবে সাক্ষর করতে হবে। দৈনন্দিন জীবনে সিদ্ধান্ত গ্রহণে যাতে তারা বিজ্ঞান শিক্ষার জ্ঞানটাকে ব্যবহার করতে পারে-এটা একটা নির্দিষ্ট স্তর পর্যন্ত সবার থাকতে হবে।

আমাদের দেশে এ বয়সি শিক্ষার্থীরা নবম-দশম শ্রেণিতে পড়ে। একজন শিক্ষার্থী কোন্ বিভাগে পড়বে সেটার সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতাটা তার অর্জন করতে হবে। শিক্ষার্থীর পরিবার তার ছেলেমেয়েদের ওপর চাপিয়ে দেয় কে বিজ্ঞান পড়বে আর কে মানবিক পড়বে। নতুন শিক্ষাক্রমে তা থাকছে না; তাই এটি একটি ইতিবাচক দিক।

পৃথিবীতে জ্ঞান-বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে আমরা যাতে নেতৃত্ব প্রদান করতে পারি, সেই লক্ষ্য অর্জনের মনমানসিকতা নিয়ে সবাইকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশে গুণগত শিক্ষার বিস্তারে বহু গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়েছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন সময়ে গুরুত্বের সঙ্গে বলেছেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জ্ঞানের ক্ষেত্রে বিশ্ব যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তখন আমরা কোনোভাবেই পিছিয়ে থাকতে পারি না। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যকে যথার্থ বলেই মনে করি। আমরা যাতে দ্রুত এগিয়ে যেতে পারি, সে জন্য সর্বাÍক চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে।

শুভ্রত নাথ : প্রধান শিক্ষক, ফেনী সরকারি বালিকা বিদ্যালয়

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন