ইয়েমেনে হাজার হাজার শিশুযোদ্ধা সৌদি আরবের

  যুগান্তর ডেস্ক ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ইয়েমেনে হাজার হাজার শিশুযোদ্ধা সৌদি আরবের
ছবি: সংগৃহীত

ইয়েমেন আগ্রাসনে হাজার হাজার শিশুযোদ্ধা ব্যবহার করছে সৌদি আরব। মোটা অঙ্কের অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে আরেক যুদ্ধবিধ্বস্ত ও দারিদ্র্যপীড়িত দেশ সুদান থেকে তাদের ভাড়া করে আনা হয়েছে।

সম্মুখ সমরে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে তাদের। ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীদের বিমান হামলার পাশাপাশি স্থলবাহিনীও নামিয়েছে। এর মধ্যে বেশিরভাগই সুদানি শিশুযোদ্ধা।

শুক্রবার নিউইয়র্ক টাইমসের এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। তবে এক বিবৃতিতে ইয়েমেন যুদ্ধে সুদানি শিশুযোদ্ধা নিয়োগের কথা অস্বীকার করেছে সৌদি জোট।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সুদানের দারিদ্র্য পরিবারগুলো থেকে শিশু যোদ্ধাদের নিয়োগ দিতে ১০ হাজার ডলার পর্যন্ত প্রণোদনা ঘোষণা করেছে সৌদি আরব। যুদ্ধক্ষেত্রেও এসব শিশুকে সম্মুখ সারিতে রাখা হয়।

আর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তাদের দূর থেকে নির্দেশনা দেন। গত প্রায় চার বছর ধরে ১৪ হাজার সুদানি সেনা ইয়েমেনে নিয়োজিত রয়েছে। সুদানি যোদ্ধাদের প্রায় সবাই দরিদ্র এলাকা দারফুরের বাসিন্দা।

সম্প্রতি ইয়েমেন থেকে ফিরে আসা পাঁচ সুদানি যোদ্ধার সাক্ষাৎকার নিয়েছে নিউইয়র্ক টাইমস। সাক্ষাৎকারে তারা জানিয়েছে, ইয়েমেনে নিয়োজিত সুদানি সেনা ইউনিটের ২০-৪০ শতাংশই শিশু-কিশোর। তাদের বেশিরভাগের বয়স ১৪ থেকে ১৭-এর মধ্যে।

বেশিরভাগের ক্ষেত্রে দেখা গেছে, বাবা-মা তাদের যুদ্ধে পাঠিয়েছে। এক্ষেত্রে দরিদ্র সুদানি পরিবারগুলোকে অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে ছিল সৌদি আরব। অর্থাভাবে থাকা অনেক সুদানি পরিবার একে সুযোগ হিসেবে দেখেছিল। তাই নিজেদের শিশু সন্তানদের ইয়েমেন যুদ্ধে পাঠায় তারা।

সন্তানরা যেন ইয়েমেন যুদ্ধে যেতে পারে তা নিশ্চিত করতে সুদানি সেনা ইউনিটের কর্মকর্তাদের ঘুষও দিয়েছে পরিবারগুলো। হাজের শোমো আহমেদ নামের এক সুদানি যোদ্ধা বলেন, ‘পরিবারগুলো জানত, তাদের ছেলেরা যদি যুদ্ধে যায় এবং টাকা নিয়ে আসে তবে তাদের জীবন পাল্টে যাবে।’

শোমো ২০১৬ সালে ইয়েমেন যুদ্ধে যোগ দেন। তখন তার বয়স ছিল মাত্র ১৪ বছর। সুদানি যোদ্ধারা নিউইয়র্ক টাইমসকে জানান, ইয়েমেনে সৌদি ও আমিরাতি কমান্ডাররা তাদের ইউনিটগুলো তত্ত্বাবধান করত। কমান্ডাররা নিজেদের যুদ্ধক্ষেত্র থেকে নিরাপদ রেখে দূর থেকে নির্দেশনা দিতেন।

মোহাম্মদ সুলেইমান আল ফাদিল নামের আরেক যোদ্ধা বলেন, ‘তারা কখনও আমাদের সঙ্গে যুদ্ধ করেনি।’ নিউইয়র্ক টাইমসে একটি বিবৃতি পাঠিয়ে অভিযোগ অস্বীকার করেছে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট।

ইয়েমেন যুদ্ধে সুদানি শিশু যোদ্ধা নিয়োগের অভিযোগকে ‘বানোয়াট ও ভিত্তিহীন’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে বিবৃতিতে। ইয়েমেনের প্রেসিডেন্ট মনসুর হাদিকে উচ্ছেদ করে রাজধানী দখলে নেয় হুথি বিদ্রোহীরা। সৌদি রাজধানী রিয়াদে নির্বাসনে যেতে বাধ্য হন হাদি।

হুথিদের ক্ষমতা দখলের পর থেকেই হাদির অনুগত সেনাবাহিনীর একাংশ হুথিদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করে।

ঘটনাপ্রবাহ : ইয়ামেনে সংঘাত

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×