অচলাবস্থা নিরসনে সিনেটে ভোটাভুটি আজ

হোয়াইট হাউসের প্রেস ব্রিফিং নিয়ে ‘মাথা না ঘামাতে’ নির্দেশ ট্রাম্পের

প্রকাশ : ২৪ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: এএফপি

যুক্তরাষ্ট্রে সরকারের অচলাবস্থা নিরসনে ফের উদ্যোগী হয়েছেন ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানরা। এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার সিনেটে দুটি বিল নিয়ে ভোটাভুটি হবে। মঙ্গলবার সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ নেতা মিচ ম্যাককনেলের সঙ্গে শীর্ষ ডেমোক্র্যাট নেতা চাক শুমারের মধ্যে এ বিষয়ে সমঝোতা হয়।

এ দুই সিনেটর জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার দুই দল থেকে আলাদা করে দুটি বিল উত্থাপিত ও ভোটাভুটি হবে।

১০০ সদস্যবিশিষ্ট সিনেটে বিল পাস করাতে হলে প্রত্যেকটিকে ৬০টি করে ভোট পেতে হবে। এদিকে বুধবার মার্কিন ইতিহাসের দীর্ঘতম শাটডাউন ৩২তম দিনে গড়িয়েছে। এর আগের দিনই দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, এতে তার কোনো ‘কিছু যায় আসে না’। টুইটারে ফের ডেমোক্র্যাটদের জন্য বার্তা দিয়ে বলেছেন, দেয়াল নির্মাণের বরাদ্দ না পেলে ‘রাজনৈতিক মল্লযুদ্ধে ক্ষান্তি’ দেবেন না তিনি।

সরকার তো অচল হয়ে আছে। এবার হোয়াইট হাউসের প্রধান প্রেস সেক্রেটারি সারাহ স্যান্ডার্স হুকাবিকে ট্রাম্প নির্দেশ দিয়েছেন- ‘শুধু শুধু নিয়মিত প্রেস ব্রিফিং করার কোনো দরকার নেই।’ বুধবার এএফপির প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

খবরে বলা হয়, সম্প্রতি হোয়াইট হাউসে নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে আসছেন না সারাহ। এ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে মার্কিন গণমাধ্যমে। মঙ্গলবার এক টুইটার বার্তায় এর জবাব দিয়ে ট্রাম্প বলেন, ‘সারাহ ব্রিফিংয়ে যান না, কারণ সাংবাদিকরা তাকে উল্টাপাল্টা প্রশ্ন করে বিপদে ফেলার চেষ্টা করছেন। এ কারণেই তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে নিয়মিত ব্রিফিং নিয়ে মাথা না ঘামাতে।’

মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণে বরাদ্দ অনুমোদনের প্রশ্নে ট্রাম্পের সঙ্গে ডেমোক্র্যাটদের সমঝোতা না হওয়ায় এক মাসেরও বেশি সময় ধরে যুক্তরাষ্ট্র সরকারে চলছে শাটডাউন। এতে দেশটির প্রায় ৮ লাখ সরকারি কর্মীকে ঘরে থাকতে কিংবা বেতন ছাড়া কাজ করতে বলা হয়েছে। তারপরও দেয়াল নির্মাণের প্রশ্নে অনড় অবস্থানে রয়েছেন ট্রাম্প।

এ অবস্থায় পারস্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার সিনেটে দুটি বিল উত্থাপন করতে সম্মত হয়েছে ডেমোক্র্যাট ও রিপালিকানরা।

এএফপি জানায়, রিপাবলিকানদের উত্থাপিত বিলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সব শাখায় অর্থ বরাদ্দ দেয়ার প্রস্তাব করা হবে। সীমান্ত দেয়াল নির্মাণ ও অভিবাসন নীতি সংক্রান্ত ট্রাম্পের প্রস্তাব বাস্তবায়নে অর্থ বরাদ্দের কথাও বলা হয়েছে ওই প্রস্তাবে।

আর ডেমোক্র্যাটদের বিলে সরকারকে ৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অস্থায়ী বরাদ্দের প্রস্তাব দেয়া হবে। সীমান্ত নিরাপত্তা ও অভিবাসন নিয়ে পার্লামেন্টে বিতর্কের সুযোগ তৈরি করতে এ অস্থায়ী বরাদ্দ দেয়া হবে।