ভেনিজুয়েলায় মাদুরোর পক্ষ ছাড়ছে সেনারা

  যুগান্তর ডেস্ক ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ভেনিজুয়েলায় মাদুরোর পক্ষ ছাড়ছে সেনারা
ছবি: সংগৃহীত

ভেনিজুয়েলার সেনাবাহিনীতে ভাঙন দেখা দিয়েছে। শেষ পর্যন্ত স্বঘোষিত প্রেসিডেন্ট হুয়ান গুইদোর প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেছে শতাধিক সেনা। এদের বেশিরভাগই শনিবার মাদুরো সরকার ত্রাণবাহী ট্রাকে প্রতিবন্ধকতা তৈরির পর নিজেদের অবস্থান পরিবর্তনের ঘোষণা দেন।

সরকারের ওপর থেকে সমর্থন তুলে নিয়ে প্রতিবেশী দেশ কলম্বিয়া আশ্রয় নিয়েছেন তারা। তবে তাদের পরিবার-পরিজন এখনও ভেনিজুয়েলাতেই রয়েছে। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন এসব সেনাসদস্য।

এদিকে নিকোলাস মাদুরোর সরকারকে উৎখাত করতে বিদেশি শক্তিগুলোর সঙ্গে হাত মেলাচ্ছেন গুইদো। সোমবার কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোটায় মধ্য-আমেরিকার ১৩টি দেশ নিয়ে গঠিত লিমা গ্রুপের একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসেন তিনি।

ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স। সংকট সমাধানে পেন্স ‘শক্ত কোনো পদক্ষেপ’ বা ‘স্পষ্ট কোনো নির্দেশনা’ দিতে পারেন বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষকরা।

মাদুরো সরকারের বিরুদ্ধে এ অপতৎপরতার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রকে ফের সতর্কতা হুশিয়ারি দিয়েছে চীন। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গ্যাং শোয়াং বলেছেন, ভেনিজুয়েলার সরকার ধৈর্যের সঙ্গে সে দেশের চলমান সংকট নিরসনের চেষ্টা করছে।

এমন অবস্থায় মার্কিন সামরিক হস্তক্ষেপ পরিস্থিতি আরও সংঘাতময় ও উত্তেজনাপূর্ণ করে তুলবে। খবর এএফপি ও আলজাজিরার।

ক্ষুধার্ত মানুষের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের পাঠানো বেশ কয়েকটি ত্রাণের ট্রাক প্রতিবেশী ব্রাজিল ও কলম্বিয়া সীমান্তে অপেক্ষায় ছিল। ২৩ ফেব্রুয়ারি সেগুলো ভেনিজুয়েলায় প্রবেশ করতে চাইলে সড়ক ও ব্রিজগুলো বন্ধ করে দিতে সেনা পাঠায় মাদুরো সরকার।

সেনা পাঠানোর পর থেকে দেশটিতে বিদ্যমান উত্তেজনা ভিন্ন রূপ নেয়। এসব ত্রাণের মধ্যে খাবার ছাড়াও ওষুধসামগ্রী রয়েছে। ত্রাণবাহী ট্রাক ভেনিজুয়েলায় ঢুকতে দেয়ার দাবিতে সম্প্রতি নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে ব্যাপক সংঘর্ষে লিপ্ত হয় সরকারবিরোধীরা।

তারা সীমান্ত এলাকার রাস্তায় রাস্তায় ব্যারিকেড বসায়। মোড়ে মোড়ে টায়ার জ্বালিয়ে নিজেদের অবস্থানের জানান দেয়। আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে সরকারি বাহিনী।

নিরাপত্তা বাহিনীর দিকে পাথর নিক্ষেপ করে তারাও পাল্টা জবাব দেয়ার চেষ্টা করে। ত্রাণ প্রবেশ নিয়ে সহিংসতায় অন্তত চারজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ। কলম্বিয়া সরকারের দাবি অনুযায়ী, শুধু ভেনিজুয়েলা-কলম্বিয়া সীমান্তেই ত্রাণ প্রবেশকে কেন্দ্র করে উত্তেজনায় আহত হয়েছে ২৮৫ জন। শনিবারের এ ঘটনার পরই পক্ষত্যাগের ঘোষণা দেয় শতাধিক সেনাসদস্য।

কলম্বিয়ায় আশ্রয় নেয়া পক্ষত্যাগী সেনারা জানিয়েছেন, আরও অনেক সেনাসদস্য তাদের সঙ্গে যোগ দিতে চান। তারা মাদুরো সরকারের ওপর থেকে সমর্থন তুলে নিতে চান। সশস্ত্র বাহিনীর ওপর এর একটা তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাব পড়বে।

২৯ বছরের পক্ষত্যাগী এক সেনাসদস্য বলেন, বিপুলসংখ্যক দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার কারণে সশস্ত্র বাহিনী ভেঙে গেছে। পেশাদার সেনাসদস্যরা এখন ক্লান্ত। আমরা আর ক্রীতদাস হয়ে থাকতে পারি না। আমরা নিজেদের মুক্ত করেছি।

পক্ষত্যাগী এক নারী সেনাসদস্য শনিবার ত্রাণবহর প্রবেশে মাদুরো বাহিনীর প্রতিবন্ধতা তৈরির বিষয়ে বলেন, ‘ভাবছিলাম, আমি নিজ দেশের মানুষের ক্ষতি করতে পারি না।’ এ নারী বলেন, ‘আমার মেয়ে এখনও ভেনিজুয়েলায় রয়েছে। এ মুহূর্তে এটাই আমাকে সবচেয়ে বেশি আঘাত দিচ্ছে। কিন্তু আমি তার জন্যই এ কাজ করেছি। এটি একটি কঠিন পরিস্থিতি, কেননা আমি জানি না তারা (সরকারি বাহিনী) তার কী করতে পারে।’

ঘটনাপ্রবাহ : ভেনিজুয়েলায় অচলাবস্থা

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×