হিউম্যান রাইটসের প্রতিবেদন

মিয়ানমার থেকে ‘বউ’ পাচার চীনে

  যুগান্তর ডেস্ক ২২ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মিয়ানমারের সংঘাতকবলিত কাচিন অঞ্চল থেকে নারীরা পাচারকারীর খপ্পরে পড়ছেন। চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে তাদের চীনা নাগরিকদের কাছে বউ হিসেবে বিক্রি করে দিচ্ছে পাচারকারীরা। পরে তাদের ঘরে আটকে রেখে দিনের পর দিন ধর্ষণ করছে সংশ্লিষ্ট ওই চীনা ব্যক্তি। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে ভয়াবহ এ তথ্য তুলে ধরেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)। নিউইয়র্কভিত্তিক এ সংস্থাটি জানায়, চীন ও মিয়ানমার সরকার নারী পাচার প্রতিরোধে ব্যর্থ হয়েছে।

এইচআরডব্লিউ বলছে, চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে, অপহরণ অথবা জোর করে চীনে পাচার করা হয় কাচিন নারীদের। পরে তাদের চীনা পুরুষদের কাছে বউ হিসেবে বিক্রি করা হয়। চীনা ওই পরিবার তাকে আটকে রেখে ধর্ষণ করে। ২০১৭ সালে এমন ২২৬টি ঘটনা ঘটেছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। তাদের মধ্যে বেঁচে ফেরা ৩৭ জনের সাক্ষাৎকার নিয়েছে এইচআরডব্লিউ। প্রত্যেক নারী তিন থেকে ১৩ হাজার ডলারে বিক্রি হয়েছে। পাচার হওয়ার সময় তাদের অনেকের বয়স ছিল ১৮ বছরেরও কম। ছিল ১৪ বছরের বালিকাও। অন্তত ২২ জন এক বছর বা তার চেয়েও বেশি সময় আটক ছিলেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনে দেশটির এক সন্তাননীতির ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। ১৯৭৯ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত বলবৎ থাকা এ নীতির কারণে প্রজন্মবৈষম্য প্রকট। কোনো কোনো পরিবারে মাত্র একটি পুত্রসন্তান। বর্তমানে দেশটিতে নারীর চেয়ে পুরুষের সংখ্যা ৩ থেকে ৪ কোটি বেশি। ফলে স্ত্রী খুঁজতে বেগ পেতে হচ্ছে পুরুষদের। আর এজন্যই দিন দিন পাচার হওয়ার ‘বউ’য়ের চাহিদা বাড়ছে এবং পাচারের সংখ্যাও বাড়ছে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×