যখন প্রথম ভোট দিই মোদির বয়স এক, রাহুলের বাবার সাত

প্রথম ভোটারের সাক্ষাৎকার

  যুগান্তর ডেস্ক ২৬ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শ্যামচরণ নেগি। এখন বয়স ১০২। স্বাধীন ভারতের প্রথম নির্বাচনের প্রথম ভোটারের গর্বিত দাবিদার তিনিই। ১৯৫২ সালে লোকসভার প্রথম নির্বাচনের মহোৎসব অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচনে ব্যালট পেপারে প্রথম সিলটি তিনিই মেরেছিলেন। বৃহস্পতিবার প্রভাবশালী সাপ্তাহিক ম্যাগাজিনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে কয়েক দশকের পুরনো সেদিনের কথা স্মরণ করেছেন তিনি। জানিয়েছেন, প্রথমবার তিনি যখন ভোট দেন তখন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মাত্র এক বছরের শিশু। ভারতের সবচেয়ে পুরনো দল কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধীর বাবা সাবেক প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর বয়স তখন সাত বছর। আর তার মা সোনিয়া গান্ধী পাঁচ বছরের শিশু। বর্তমান ক্ষমতাসীন দল বিজেপি তখন কেবল ২৯ বছরের।

৬৭ বছর পর সেই লোকসভার ১৭তম নির্বাচনেও ভোট দিতে যাচ্ছেন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রাজ্য হিমাচল প্রদেশের এ বাসিন্দা। তবে এবারই শেষ বলে জানিয়েছেন তিনি। হিমাচল প্রদেশের মোট চারটি আসনের সবগুলোতেই একবারে ভোট হবে ৭ম পর্বে আগামী ১৯ মে। তাই ভোটের দিনের অপেক্ষাতেই দিন কাটছে রাজ্যের কিন্নর জেলার কালপা উপত্যকার এ অধিবাসীর। তিনি বলেন, ‘এবারই শেষবারের মতো ভোট দেব আমি।’ বলেন, ‘ভোট দেয়া মানে গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করা। এটা আমাদের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।’ এখনকার ভোটারদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘বহুত্যাগে অর্জিত এ গণতন্ত্র। তাই প্রতীক দেখে নয়, ভোট দিতে হবে ভেবেচিন্তে।’ ইন্ডিয়া টুডে

বিজেপি এখন ‘ভাগতি জনতা পার্টি’ -অখিলেশ : অভিযোগটা প্রথম বাজারে আনে কংগ্রেসই। এবার সেটাই থলেই ভরল উত্তর প্রদেশের সমাজবাদি পার্টি (সপা)। বৃহস্পতিবার এক টুইটে সাংবাদিকদের এড়িয়ে চলার জন্য ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে তীব্র ভাষায় বিঁধলেন সপা সভাপতি অখিলেশ যাদব। এমনকি বিজেপির নাম ভারতীয় জনতা পার্টি থেকে বদলে ‘ভাগতি জনতা পার্টি’ হয়ে গিয়েছে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। টুইটারে মোদিকে তাক করে তিনি লিখেছেন, ‘বিকাশ জানতে চাইছে আপনি কি নতুন কিছু শুনেছেন। মানুষ বিজেপির নাম বদলে ভাগতি জনতা পার্টি করে দিয়েছে। কারণ, প্রধানমন্ত্রী ক্রমাগত সংবাদ সম্মেলন এড়িয়ে যান। তার মন্ত্রীরা সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখোমুখি হন না আর তাদের দলীয় কর্মীরা জনতার সামনে আসতে চান না।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×