কোরিয়ার শান্তি যুক্তরাষ্ট্রের হাতে : কিম

প্রকাশ : ২৭ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

ছবি: সংগৃহীত

কোরীয় উপদ্বীপে শান্তি প্রতিষ্ঠার বিষয়টি পুরোপুরিই যুক্তরাষ্ট্রের ওপর নির্ভর করছে বলে মন্তব্য করেছেন উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন। ভিয়েতনামের হ্যানয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে হওয়া শীর্ষ বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রের ‘উদ্দেশ্য সৎ ছিল না’ বলেও অভিযোগ করেছেন তিনি।

ভ্লাদিভস্তকে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠকে বৃহস্পতিবার তিনি এ মন্তব্য করেন বলে শুক্রবার জানিয়েছে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কেসিএনএ। এদিনই ভ্লাদিভস্তক ছেড়ে পিয়ংইয়ংয়ের উদ্দেশে ট্রেনে চেপে বসেন কিম।

২০১১ সালের পর উত্তর কোরিয়া ও রাশিয়ার মধ্যে এটিই প্রথম শীর্ষ বৈঠক। এর আগে ২০০২ সালে পুতিন কিমের বাবা ও উত্তর কোরিয়ার তৎকালীন শাসক কিম জং ইলের সঙ্গে বসেছিলেন। ইল সর্বশেষ ২০১১ সালে রাশিয়ার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদভের সঙ্গে বৈঠক করেন।

বৃহস্পতিবারের বৈঠকে পুতিন উত্তর কোরিয়া সফরের আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন বলেও জানিয়েছে কেসিএনএ। ‘সুবিধামতো কোনো একসময়ে’ ওই সফর হবে বলে জানিয়েছে তারা। কোরীয় উপদ্বীপ ও ওই অঞ্চলের পরিস্থিতিতে অচলাবস্থা বিরাজ করছে এবং এটি একটি জটিল পর্যায়ে পৌঁছেছে, বৈঠকে কিম পুতিনকে এমনটাই জানিয়েছেন বলে ভাষ্য কেসিএনএর।

সাম্প্রতিক আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্র যে একতরফা অবিশ্বাস ও সন্দেহবাতিকগ্রস্ততা দেখিয়েছে তাতে পরিস্থিতি আগের অবস্থায় ফেরত যেতে পারে বলেও কিম সতর্ক করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা ভেস্তে যাওয়ার জন্য ওয়াশিংটনকেই দায়ী করছে পিয়ংইয়ং।

পরমাণু কর্মসূচিতে লাগাম টানার বিনিময়ে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে মতবিরোধে ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার ওই শীর্ষ বৈঠক কোনো সমঝোতা ছাড়াই শেষ হয়। বিবিসি বলছে, ভ্লাদিভস্তকের বৈঠকে ‘বিরোধ নিষ্পত্তিকারীর’ ভূমিকায় ছিলেন পুতিন।