বৃষ্টি নেই, ফসল নেই, খাদ্য সংকটে উ. কোরিয়া

  যুগান্তর ডেস্ক ১৬ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রচণ্ড খরায় ধুঁকছে উত্তর কোরিয়া। চলতি বছর দেশটির ৩৭ বছরের ইতিহাসে সর্বনিম্ন গড় বৃষ্টিপাত ও তুষারপাত রেকর্ড করা হয়েছে। খাদ্য উৎপাদন কমে গেছে রেকর্ড পরিমাণ। এ কথা নিজেরাই স্বীকার করেছে পিয়ংইয়ং। দেশটির জনগণ বড় ধরনের খাদ্য ঘাটতিতে পড়তে পারে- জাতিসংঘের এমন এক সতর্কতার কয়েকদিন পর দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম কেসিএনএ এ তথ্য জানিয়েছে। খবর এএফপির।

জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিসহ সম্প্রতি বেশ আন্তর্জাতিক সংস্থা আগেই হুশিয়ারি দিয়েছিল, খরার মতো দুর্যোগ দেশটির খাদ্য উৎপাদন ব্যাহত করতে পারে। ফলে দেশটিতে ক্ষুধা বাড়বে, বাড়বে অপুষ্টি। এছাড়া স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দবে হাজার হাজার শিশু ও গর্ভবতী মায়ের। বয়স্ক ও মারাত্মক অসুখে ভোগা রোগীরা হয়তো টিকে থাকতে পারবে না এই খরায়। উত্তর কোরিয়ায় এবার বসন্তের শুরুতেই খরার প্রবণতা দেখা দিয়েছে। তাই ফসলাদি নষ্ট হচ্ছে। জুন থেকে সেপ্টেম্বরের সময়টায় ঠিকভাবে ফলন তুলতে পারবেন না কৃষকরা। প্রায় প্রতি বছরই এ সময়ে খরায় ভুগে দেশটি।

২০১৮ সালে দেশটিতে খাদ্য উৎপাদন পূর্বের বছরের চেয়ে শতকরা ১২ ভাগ কমেছে। যা গত দশ বছরের মধ্যে সবচেয়ে নিম্নগামী। এছাড়া এখনই উত্তর কোরিয়ায় অন্তত ১ কোটি লোকের জরুরি খাদ্যসহায়তা প্রয়োজন। তা না হলে খরায় পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হবে বলে আশঙ্কা আইএফআরসির। উত্তর কোরিয়ায় আইএফআরসির প্রধান মোহাম্মদ বাবিকর বলেন, আগাম খরায় শিশু ও বয়স্করা টিকে থাকতে পারবে কি না, তা নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। এই খরার আগেও দেশটিতে প্রতি পাঁচ শিশুর একজন অপুষ্টির শিকার হয়েছে। তারা হয়তো খরায় সামনের ধকল কাটিয়ে উঠতে পারবে না।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×