ধ্যান ভাঙলেন মোদি

  যুগান্তর ডেস্ক ২০ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের শেষধাপের আগের দিন শনিবার বিকালে ধ্যানে বসেন দেশটির ‘সন্যাসী’ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। টানা ১৮ ঘণ্টা পর রোববার সকালে সে ধ্যান ভাঙেন মোদি। এ ব্যাপারে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, সকালে ধ্যান ভেঙে কেদারনাথ গুহা থেকে বেরিয়ে বদরীনাথের উদ্দেশ্যে রওনা দেন মোদি। জানা যায়, দুদিনের বিশেষ সফরে উত্তরখণ্ড আসেন মোদি। হিন্দুদের পবিত্র স্থান কেদারনাথ ও বদরীনাথ মন্দিরে সৃষ্টিকর্তার সান্নিধ্যে কাটানোর সংকল্প নেন। সেই মতে শনিবার পৌঁছে যান কেদারনাথ। গেরুয়া বসন পরে কেদারের গুহায় ধ্যানে বসে পড়েন। এনডিটিভি। কেদারনাথে যে গুহায় ধ্যানে বসে সবাইকে চমকে দিলেন মোদি, সেই গুহারও রয়েছে বেশকিছু বৈশিষ্ট্য, যা চমকে দেয়ার মতোই। ১০ ফুট বাই ৮ ফুট। আর পাঁচটা গুহার থেকে একদম আলাদা। সাধুসন্তরা যে ধরনের গুহায় ধ্যান করেন, মোদির গুহা ছিল তার থেকে একেবারেই আলাদা। এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে। ওয়াইফাই পরিষেবা ছিল। পাশাপাশি গুহার মধ্যে ছিল একটি টেলিফোনও। বিলাসবহুল শৌচাগারও ছিল তার জন্য। এমনকি জামাকাপড় টাঙিয়ে রাখার জন্য হ্যাঙারের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছিল। তিনি যতক্ষণ এখানে ছিলেন ততক্ষণ কোনো পুণ্যার্থীকে ঢুকতে দেয়া হয়নি। এই নিয়ে দু’বছরে চারবার এখানে এলেন প্রধানমন্ত্রী। ৮ ফুট বাই ৯ ফুটের এই গুহায় প্রবেশের দরজার উচ্চতা পাঁচ ফুটের। এই গুহায় সারারাত ধ্যান করে রোববার সকালে সেখান থেকে বেরিয়ে পড়েন মোদি। উল্লেখ্য, শনিবার সকালে কেদারনাথে পা রাখেন মোদি। তার পর মন্দিরে পুজো দিয়ে অঞ্চলের উন্নয়নের প্রকল্পগুলোর অগ্রগতির রিপোর্ট খতিয়ে দেখেন। তারপর হেঁটে গুহায় পা রাখেন তিনি। কেদারে ভক্তদের উদ্দেশ্যে হাত নেড়ে বদরীনাথে পাড়ি দেন তিনি। বেলা সাড়ে ১০টা নাগাদ বদরীনাথে পৌঁছেছেন মোদি।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×