পাকসীমান্তেই প্রথম সফর রাজনাথের

  যুগান্তর ডেস্ক ০৩ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে আজ সিয়াচেন যাচ্ছেন রাজনাথ সিংহ। এটাই প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে তার প্রথম সফর। পৃথিবীর সর্বোচ্চ যুদ্ধক্ষেত্র সিয়াচেন। ওই এলাকার, বিশেষ করে পাকিস্তানের সীমান্তের প্রতিরক্ষা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে যাচ্ছেন রাজনাথ সিংহ। এ সফরে প্রতিরক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে থাকবেন অনেকে। তাদের মধ্যে অন্যতম সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অন্য সিনিয়র কর্মকর্তারা। এনডিটিভি।

ভারতীয় আর্মি ওই এলাকায় একটি ব্রিগেড গঠন করেছে। কোনো কোনো পোস্ট ২৩,০০০ ফুটেরও উপরে অবস্থিত। ওই অঞ্চলে শ্বাস নেয়াই দুষ্কর। ইউপিএ-১-এর সময় ওই অঞ্চল থেকে সেনা সরিয়ে নেয়ার প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সেনাদের পক্ষে ওখানে সেনা ছাউনি রেখে দেয়ার ব্যাপারে জোর দেয়া হয়। ১৯৮৪ সাল থেকে সিয়াচেনের তুষারাবৃত অঞ্চল আর্মির দখলে রয়েছে। সেই সময় ‘অপারেশন মেঘদূত’-এর মাধ্যমে পর্বত অভিযাত্রীর মতো চূড়ায় পৌঁছে পাকিস্তানি আর্মির থেকে ওই এলাকার দখল করে নেয়।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী সিয়াচেনের তুষারাবৃত অঞ্চল ছাড়াও পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলোও পরিদর্শন করবেন বলে মনে করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপতি ভবনে ছিল শপথ গ্রহণের অনুষ্ঠান। শনিবার প্রতিরক্ষা হিসেবে দায়িত্ব পান রাজনাথ সিংহ। নবনিযুক্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্তাদের ডেকে বর্তমানের সব কর্মসূচির বিস্তৃত বিবরণ প্রস্তুত করতে বলেন। সেনাবাহিনীর আধুনিকীকরণ সম্পূর্ণ করতে সময়ের মধ্যে প্রজেক্টগুলো শেষ করতে বলেন।

হিন্দি শিক্ষা বাধ্যতামূলক প্রস্তাবে তামিলনাড়ুতে তোলপাড় : দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার তিন দিনের মধ্যেই শিক্ষানীতি নিয়ে বিতর্কের মুখে পড়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

অভিযোগ উঠেছে, হিন্দি ভাষাকে জোর করে চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে সারা দেশে। দেশজুড়ে সমস্ত রাজ্যে এই নীতি প্রয়োগের প্রস্তাব উঠলেও, প্রতিবাদে সবচেয়ে বেশি সরব হয়েছে দক্ষিণী রাজ্যগুলো। এমনকি, তামিলনাড়ুতে হিন্দি ভাষা আবশ্যিক করা হলে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ হবে বলেও হুশিয়ারি দিয়েছেন ডিএমকে সুপ্রিমো এম কে স্ট্যালিন। তার দাবি, তামিলদের রক্তে হিন্দির কোনো স্থান নেই।

বৃহস্পতিবার মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের দায়িত্ব পান রমেশ পোখরিয়াল নিশঙ্ক। তার পরদিন শুক্রবারই মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকে খসড়া জমা পড়েছে জাতীয় শিক্ষানীতির। সেখানেই প্রস্তাব রয়েছে, দেশের সব রাজ্যেই অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত হিন্দি ভাষা পড়ানো বাধ্যতামূলক করা হোক। এর পরেই সোশ্যাল মিডিয়াজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে।

কেন্দ্রের জাতীয় শিক্ষানীতির প্রধান, ইসরোর সাবেক চেয়ারম্যান কে কস্তুরীরঙ্গন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×