ভারতকে আগাম সতর্কতা পাকিস্তানের

পুলওয়ামার কায়দায় আবার হামলা হবে জম্মু-কাশ্মীরে

প্রকাশ : ১৭ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

জঙ্গি হামলায় কাশ্মীর ফের রক্তাক্ত হতে পারে বলে ভারতকে আগাম সতর্কবার্তা দিয়েছে পাকিস্তান। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আইইডি বোঝাই গাড়ি নিয়ে সিআরপি কনভয়ে হামলা চালায় জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মুহাম্মদ। একই কায়দায় এবার দক্ষিণ কাশ্মীরের অবন্তীপোরায় হামলা হতে পারে বলে ইসলামাবাদে ভারতীয় হাইকমিশনকে জানিয়েছেন পাক গোয়েন্দারা। যুক্তরাষ্ট্রকেও হামলার সম্ভাবনার কথা জানিয়েছেন তারা। গোটা উপত্যকাজুড়ে কড়া সতর্কতা জারি করা হয়েছে। খবর এনডিটিভির।

সম্প্রতি কিরগিজস্তানের বিশকেকে আয়োজিত সাংহাই কো-অপারেশন অর্গানাইজেশন (এসসিও) সম্মেলনে যোগ দিয়েছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সেখানে সন্ত্রাস দমন নিয়ে কড়া বার্তা দেন মোদি। নাম না করে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসে মদদ দেয়ারও অভিযোগ তোলেন তিনি। তার আগেই ইসলামাবাদে ভারতীয় হাইকমিশনকে হামলার সম্ভাবনার কথা জানানো হয় বলে সেনা সূত্রে জানা গেছে। ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক কর্মকর্তা জানান, ‘ইসলামাবাদে আমাদের হাইকমিশনকে হামলার সম্ভাবনার কথা জানায় পাকিস্তান। আমেরিকাকেও বিষয়টি জানায় তারা। এরপর মার্কিন গোয়েন্দারাও আমাদের সতর্ক করে দেন।’ সেনার সঙ্গে সংঘর্ষে উপত্যকার জঙ্গি জাকির মুসার মৃত্যুর বদলা নিতেই জঙ্গিরা নতুন করে হামলার ছক কষছে, এমন তথ্য হাতে এসেছে বলেও জানান ওই কর্মকর্তা। দীর্ঘদিন ধরে উপত্যকায় নাশকতামূলক কাজকর্মে যুক্ত ছিল জাকির। ২০১৬ সালে বুরহান ওয়ানির মৃত্যুর পর কাশ্মীরে হিজবুল মুজাহিদিনের দায়িত্ব নেয় সে। ২০১৭ সালের মে মাসে হিজবুল ছেড়ে আল কায়দার আদর্শে অনুপ্রাণিত জঙ্গি সংগঠন আনসার গাজওয়াত-উল-হিন্দের নেতা হয়। গত মাসে কাশ্মীরের ত্রালে সেনা অভিযানে মৃত্যু হয় তার। জাকির মুসার মৃত্যুর পরই ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় গাজওয়াত-উল-হিন্দ সংগঠনটি। জাকিরের নেতৃত্বে বহু অল্পবয়সী ছেলেমেয়ে তাতে যোগ দিলেও এই মুহূর্তে ওই সংগঠনের সদস্য সংখ্যা দু’-তিনজনে এসে ঠেকেছে বলে দাবি উপত্যকা পুলিশের। তা সত্ত্বেও হামলার সম্ভাবনা একেবারেই উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না। কারণ পুলওয়ামায় হামলার রেশ কাটতে না কাটতেই সম্প্রতি অনন্তনাগে সিআরপি জওয়ানদের ওপর হামলা করে দুই জঙ্গি। তাতে প্রাণ হারান পাঁচ জওয়ান।

আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, পাকিস্তানের তরফে এভাবে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে ভারতকে সতর্ক করার পেছনে একাধিক কারণ থাকতে পারে বলে ধারণা কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।