হরমুজে তৃতীয় রণতরী ব্রিটেনের

প্রকাশ : ২৬ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

পারস্য উপসাগরে তৃতীয় যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়েছে যুক্তরাজ্য। হরমুজ প্রণালিতে ইরানের হাতে একটি ব্রিটিশ পতাকাবাহী জাহাজ আটকের পর নৌচলাচলের স্বাধীনতা রক্ষায় এ রণতরী পাঠাল দেশটি। শনিবার ব্রিটেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। টাইপ ৪৫ ডেস্ট্রয়ার শ্রেণির এইচএমএস ডিফেন্ডার নামের যুদ্ধজাহাজটি এইচএমএস কেন্ট ও এইচএমএস মন্ট্রোস রণতরীর বহরে যুক্ত হয়েছে। ইংল্যান্ডের পোর্টসমাউথ শহর থেকে ১২ আগস্ট উপসাগরীয় মিশনের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে এইচএমএস ডিফেন্ডার। খবর দ্য ইন্ডিপেনডেন্টের।

গত মাসের গোড়ার দিকে জিব্রাল্টার প্রণালি থেকে ব্রিটেন একটি ইরানি সুপার তেল ট্যাংকার আটক করার পর দুই দেশের সম্পর্কে উত্তেজনা বেড়ে যায়। একই সময়ে মধ্যপ্রাচ্যে যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করে ব্রিটেন। দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেন ওয়ালেস বলেন, উপসাগরে নৌ চলাচলের স্বাধীনতা রক্ষায় সচেষ্ট যুক্তরাজ্য। এ নিয়ে উপসাগরে যুক্তরাজ্যের যুদ্ধজাহাজের সংখ্যা দাঁড়াল চারটিতে।

গত মাসে পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চল থেকে ‘এইচএমএস মন্ট্রোস’ নামে যুদ্ধজাহাজটিকে মেরামতের জন্য ব্রিটেনে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। এর পরিবর্তে ‘এইচএমএস ডানকান’ ডেস্ট্রয়ার মধ্যপ্রাচ্যে পাঠানো হয়। রয়্যাল নৌবাহিনী বলছে, এইচএমএস মন্ট্রোস পূর্ব পরিকল্পিত কার্যক্রম সম্পন্ন ও ক্রু পরিবর্তন করে আবারও বহরে যুক্ত হয়েছে।

এবার ইরানের নিষেধাজ্ঞায় মার্কিন প্রতিষ্ঠান : ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদে জড়িত থাকার দায়ে একটি মার্কিন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তেহরান। ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শনিবার রাতে ফাউন্ডেশন ফর ডিফেন্স অব ডেমোক্রেসিস (এফডিডি) নামের ওই সংস্থা ও এর পরিচালক মার্ক ডুবোইটসের ওপর এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। এ সম্পর্কে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ইরানবিরোধী লবিস্ট গ্রুপ এফডিডি ও এর পরিচালক মার্ক ডুবোইটস স্বপ্রণোদিতভাবে তেহরানবিরোধী অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদ চালানোর লক্ষ্যে মিথ্যা তথ্য তৈরি ও প্রচার, উপদেষ্টা সহযোগিতা এবং লবিস্ট হিসেবে কাজ করছে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, এফডিডি ও এর পরিচালক ইরানি জনগণের জাতীয় স্বার্থ ও নিরাপত্তাকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে ব্যাপক তৎপরতা চালিয়েছে এবং এখনও চালিয়ে যাচ্ছে। মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদ ও হঠকারিতার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার যে আইন ইরানে রয়েছে তার ৪ ও ৫ নম্বর ধারা অনুযায়ী এফডিডি ও তার পরিচালককে নিষেধাজ্ঞার তালিকায় স্থান দিয়েছে তেহরান।

ইরানের এ পদক্ষেপের জবাবে পাল্টা হুশিয়ারি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মরগান ওর্তাগাস বলেন, তেহরানের হুমকিকে মারাত্মকভাবে নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। আমরা প্রত্যক্ষ বা অপ্রত্যক্ষভাবে যে কোনো মার্কিনির নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় ইরানকে দায়বদ্ধ হিসেবে রাখছি।