ক্ষ্যাপা বরিসে বিরক্ত এমপিরা

পার্লামেন্টকে বিষাক্ত করে তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী * হত্যার শিকার এমপি জো কক্সের কথা তুলে ‘হত্যার হুমকি’ * হাল ছেড়ে আত্মসমর্পণের সুর

  যুগান্তর ডেস্ক ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ব্রিটিশ পার্লামেন্ট স্থগিত- সুপ্রিমকোর্টের এমন সিদ্ধান্তে চরম ক্ষেপে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন শেষ না করেই বুধবার দেশে ফিরেছেন। ফিরেই পার্লামেন্টে এমপিদের একহাত নিলেন তিনি।
ছবি: সংগৃহীত

ব্রিটিশ পার্লামেন্ট স্থগিত- সুপ্রিমকোর্টের এমন সিদ্ধান্তে চরম ক্ষেপে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন শেষ না করেই বুধবার দেশে ফিরেছেন। ফিরেই পার্লামেন্টে এমপিদের একহাত নিলেন তিনি।

ব্রেক্সিট কার্যকরে নতুন সময়সীমা বাড়ানোর চেয়ে আত্মসমর্পণ করাই ভালো বলেই হুংকার তুলেছেন বরিস।

বলেন, চুক্তিহীন ব্রেক্সিটের পরিবর্তে নতুন করে বিলম্বের চেয়ে ভালো হয় হত্যার শিকার ব্রেক্সিটবিরোধী এমপি জো কক্সের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো আর এতেই ব্রেক্সিট কার্যকর হয়ে যাবে। এমন মন্তব্যে এমপিদের তোপের মুখে পড়েছেন বরিস। অনেকেই প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে বলে জানিয়েছেন।

এএফপি জানায়, ২০১৬ সালে ব্রেক্সিট প্রচারণার সময় হত্যার শিকার হন ইউরোপপন্থী জো কক্স। পার্লামেন্টে তার কথা তুলে বরিস কার্যত ব্রিটিশ এমপিদের ‘হত্যার হুমকি’ দিয়েছেন।

ইউরোপিয়ান কমিশনের ব্রিটিশ সদস্য জুলিয়ান কিং বৃহস্পতিবার টুইটারে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এ ধরনের মন্তব্য জঘন্য ও বিপজ্জনক। আপনি যদি মনে করেন, এমন আক্রমণাত্মক মন্তব্যে ইউরোপজুড়ে (যুক্তরাজ্যসহ) রাজনৈতিক উত্তেজনা ছড়াবে না, তাহলে বুঝতে হবে আপনার মনোযোগ এদিকে নেই।

পার্লামেন্টে বরিস বারবার আত্মসমর্পণের কথা বলেছেন। রাগে মুখ বাঁকিয়ে বক্তব্যের খেই হারিয়ে জো কক্সের কথা তুলেছেন। কক্সের স্ত্রী ব্রেনডান বলেন, ছিঁচকাঁদুনে চেহারায় বরিস প্রয়াত এমপির প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর কথা তুলে বলেছেন, এতেই ‘ব্রেক্সিট বাস্তবায়ন’ হয়ে যাবে।

টুইটারে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে এভাবে হেয় করার ছলে জো কক্সের প্রসঙ্গ তোলায় খুব ব্যথিত হয়েছি। টোরি চেয়ারম্যান জেমস ক্লেভারলি বলেন, বারবার ‘আত্মসমর্পণ’ শব্দ ব্যবহার করাটাও প্রধানমন্ত্রীর জন্য ‘সম্পূর্ণ অনায্য’।

স্বয়ং হাউস অব কমন্সের স্পিকার জন বারকাউ বলেন, হাউস অব কমন্সের সংস্কৃতিকে বিষাক্ত করে তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

লেবার পার্টির এমপি পাউলা শেরিফ বলেন, আত্মসমর্পণমূলক কার্যক্রম বিশ্বাসঘাতকতা ও দেশদ্রোহিতার শামিল। তার এ ধরনের মন্তব্যের জন্য ব্যথিত হয়েছি। ভাষা ব্যবহারের ক্ষেত্রে আমাদের আরও সচেতন হওয়া উচিত। অবশ্যই এটা প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকেই প্রথমে আসতে হবে। কথার লাগাম না থাকায় প্রধানমন্ত্রী বরিসকে ক্ষমা চাইতে হবে বলে দাবি তুলেছেন লেবার দলীয় এমপি জেস ফিলিপ।

বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ভাষা এবং দেশ ও পার্লামেন্টের পরিবেশ শান্তিপূর্ণ করায় তার ভূমিকা নিয়ে প্রশ্নের মুখোমুখি দাঁড়াতে হবে তাকে। সাহসী ও শক্তিশালী পদক্ষেপ হবে জাতির কাছে তার ক্ষমা চাওয়া। লেবার দলের প্রধান জেরেমি করবিনও বরিসকে ক্ষমা চাইতে হবে বলে দাবি তুলেছেন।

বৃহস্পতিবার টোরি এমপিদের ব্যাকবেঞ্চ ১৯২২ কমিটির সঙ্গে বৈঠকে ‘আত্মসমর্পণ বিল’ তুলবেন বলে জানিয়েছেন বরিস।

ঘটনাপ্রবাহ : ব্রেক্সিট ইস্যু

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×