বলিভিয়ায় অভ্যুত্থানে প্রেসিডেন্টের পদত্যাগ

রাশিয়া, কিউবা ভেনিজুয়েলার নিন্দা * মোরালেসকে রাজনৈতিক আশ্রয়ের প্রস্তাব মেক্সিকোর

  যুগান্তর ডেস্ক ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

অভ্যুত্থানের মুখে পদত্যাগ করেছেন বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট ইভো মোরালেস। তিন সপ্তাহের সহিংস বিক্ষোভের পর রোববার এক টেলিভিশন ভাষণে পদত্যাগের ঘোষণা দেন মার্কিন সাম্রাজ্যবাদবিরোধী হিসেবে পরিচিত এই রাজনীতিক। বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির মধ্যে এরপর একে একে তার মন্ত্রিসভার আরও বেশ কয়েকজন মন্ত্রী ও প্রশাসনের সিনিয়র কর্মকর্তারা পদত্যাগ করেন। সরকারের হঠাৎ পতনে দেশটিতে ক্ষমতা ও নেতৃত্বের শূন্যতা তৈরি হয়েছে। ল্যাতিন আমেরিকার সবচেয়ে বেশি সময় ক্ষমতায় থাকার মোরালেসের পদত্যাগ রাস্তায় নেমে উদযাপন করছে বলিভীয় জনগণ। সরকার পতনকে ‘সামরিক অভ্যুত্থান’ হিসেবে অভিহিত করে এর নিন্দা জানিয়েছে মিত্র রাশিয়া, ভেনিজুয়েলা ও কিউবা। সব পক্ষকে শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষার আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। মোরালেসকে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রদানের প্রস্তাব দিয়েছে প্রতিবেশী দেশ মেক্সিকো। খবর এএফপি ও আলজাজিরার। ২০০৬ সাল থেকে বলিভিয়ার নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন ইভো মোরালেস (৬০)। ২০ অক্টোবরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী কার্লোস মেসাকে পরাজিত করে চতুর্থবারের মতো প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন তিনি। তবে কারচুপির অভিযোগ তুলে ওই নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করেন বিরোধী নেতা কার্লোস মেসা। দেশজুড়ে সরকারবিরোধী আন্দোলনের ডাক দেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে মেসার সুসম্পর্ক রয়েছে বলে মনে করা হয়। সেই সঙ্গে গত কয়েকদিন ধরে একটানা ব্যাপক বিক্ষোভ-আন্দোলন অব্যাহতভাবে চলতে থাকে। শনিবার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ভবন ও রেডিও সম্প্রচার কেন্দ্র দখলে নেয় বিক্ষোভকারীরা। বিক্ষোভে সমর্থন দেয় পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনী। সেনাবাহিনী সাফ জানিয়ে দেয়, বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে কোনো সংঘাতে জড়াবে না তারা। রোববার আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক সংস্থাগুলো অক্টোবরের ভোটে ‘জালিয়াতির স্পষ্ট প্রমাণ’ পেয়েছে বলে জানিয়ে নির্বাচনের ফল বাতিলের আহ্বান জানায়। তাদের সঙ্গে একমত হয়ে মোরালেস নির্বাচন কমিশন সংস্কার করার পর নতুন নির্বাচনের ডাক দেয়ার ঘোষণা দেন। কিন্তু তার এ ঘোষণা মেনে না নিয়ে রাজনৈতিক নেতারা, সেনাবাহিনী প্রধান ও পুলিশ প্রধান তাকে পদত্যাগের আহ্বান জানান। এরপর টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে মোরালেস প্রেসিডেন্টের পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন। ভাষণে তিনি বলেন, ?ভাই ও বোনদের ওপর হামলা বন্ধ করুন, জ্বালাও পোড়াও ও হামলা বন্ধ করুন। পদত্যাগের ঘোষণায় বলেন, আমি পদত্যাগ করছি। আমার পদত্যাগপত্র আইনসভার কাছে পাঠিয়ে দিচ্ছি। আদিবাসী প্রেসিডেন্ট ও সব বলিভিয়ানের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শান্তির চেষ্টা করা আমার দায়িত্ব। এরই মধ্যে পদত্যাগ করেন ভাইস প্রেসিডেন্ট আলভারো গার্সিয়া লিনেরা এবং সিনেট প্রেসিডেন্ট আদ্রিয়ানা সালভাতিয়েরা। পদত্যাগের পর মোরালেসের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে পুলিশ।

সরকারের পদত্যাগের সিদ্ধান্তের পর পথে নেমে আসে জনতা। রাজধানী লাপাজ লোকারণ্যে পরিণত হয়। বলিভিয়ার লাল-হলুদ ও সবুজ পতাকা নিয়ে আনন্দ মিছিল করে বিক্ষোভকারীরা। পতাকা হাতে সাদা হেলমেট পরা আবেগাপ্লুত হয়ে এক তরুণ বলেন, ‘এটাই আমার একমাত্র পতাকা।’ এ সময় আরেক দল দূরে বিভিন্ন ভবন থেকে আদিবাসী সংস্কৃতির প্রতিনিধিত্বকারী ‘হুইপালা’ পতাকা নামিয়ে ফেলতে থাকে। লাপাজের প্রধান সড়ক এল প্রাডোর পাশে ৬১ বছর বয়সী ব্যবসায়ী রেগিনা সোজাস বলেন, ‘মোরালেস একটা নির্বোধ। তিনি নিজের মতো করে চিন্তাও করতে পারেন না। অবশেষে জানালা দিয়ে পালিয়েছেন তিনি। খুবই ভালো। আমরা এখন খুশি।’

মোরালেসকে রুশ টিভি চ্যানেলের চাকরির প্রস্তাব : মোরালেসকে চাকরির প্রস্তাব দিয়েছে রাশিয়ার একটি টিভি চ্যানেল। মোরালেস চাইলে সংবাদ পাঠক পদে চাকরি করতে পারেন প্রস্তাব দেশটির সরকারপন্থী হিসেবে পরিচিত আরটি টিভির। জনগণ, পুলিশ ও সেনাবাহিনীর চাপে রোববার পদত্যাগের ঘোষণা দেন মোরালেস। একদিন পরই আরটির প্রধান সম্পাদক মারগারিটা সোমিনিয়ান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টেলিগ্রামে এক বার্তায় বলেন, ‘আমি আরটির স্পেনীয় ভাষার একজন সংবাদ পাঠক হিসেবে মোরালেসকে চাকরিরে প্রস্তাব দিচ্ছি।’ তবে মোরালেস আরটির চাকরির প্রস্তাব গ্রহণ করেছেন কিনা এখনও জানা যায়নি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×