অভিশংসন শুনানি শুরু আজ

প্রকাশ : ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

ছবি: এএফপি

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসনে আজ বুধবার থেকে প্রকাশ্য শুনানি শুরু হচ্ছে। শুনানি করবে মার্কিন কংগ্রেসের ডেমোক্র্যাট সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রতিনিধি পরিষদের গোয়েন্দাবিষয়ক কমিটি।

ইউক্রেনে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ কূটনীতিক উইলিয়াম টেইলর ও মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি জর্জ কেন্টের সাক্ষ্যের মধ্য দিয়ে শুরু হবে। আগামী শুক্রবার সাক্ষ্য দেবেন ইউক্রেনে নিযুক্ত সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত মেরি ইভানোভিচ।

ট্রাম্পের কেলেঙ্কারির কারণে নির্ধারিত সময়ের আগেই গত মে মাসে পদত্যাগ করে দেশে ফিরে আসেন তিনি।

ক্যাপিটাল হিলের এ শুনানিতে ডেমোক্র্যাট এবং রিপাবলিকান আইনজীবীরা সাক্ষীদের যা জিজ্ঞাসাবাদ করবেন তা সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। খবর রয়টার্স ও দ্য গার্ডিয়ানের।

প্রকাশ্য তদন্ত শুরুর দু’দিন আগে সোমবার ট্রাম্পের অভিশংসন তদন্তে আরও কয়েক কর্মকর্তার জবানবন্দির তথ্য প্রকাশ করেছে মার্কিন কংগ্রেসের ডেমোক্র্যাট অভিশংসন তদন্ত কমিটি।

সর্বশেষ ব্যক্তি হিসেবে এই সাক্ষ্য দেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি লরা কুপার ও ইউক্রেনের মার্কিন নীতিবিষয়ক রাষ্ট্রদূত কুর্ট ভলকারের দুই উপদেষ্টা ক্যাথরিন ক্রফট ও ক্রিস্টোফার অ্যান্ডারসন। সাক্ষ্যে ইউক্রেন বিষয়ে ট্রাম্পের অনৈতিক অবস্থানের অভিযোগ নিশ্চিত করেছেন লরা কুপার।

তিনি বলেছেন, প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের মূল্যায়নের পরিপ্রেক্ষিতেই অফিস অব ম্যানেজমেন্ট ও বাজেট ইউক্রেনের জন্য নির্ধারিত সামরিক সহায়তা বন্ধ রেখেছিল।

এ সময় ট্রাম্প সরকারের এ পদক্ষেপে পেন্টাগন কর্মকর্তারা উদ্বেগ জানিয়েছিলেন বলে কংগ্রেসের সাক্ষ্য নথিতে বলা হয়েছে। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি তার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন ও তার ছেলের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির জিলেনস্কিকে চাপ দিয়েছিলেন। জো বাইডেনের ছেলে ইউক্রেনের গ্যাস কোম্পানি বুরিসমায় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ছিলেন।

ট্রাম্পের মতে, ওই কোম্পানিতে থাকার সময় বাইডেনের ছেলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল এবং বাইডেন ক্ষমতা প্রয়োগ করে সেই দুর্নীতির তদন্ত বন্ধ করেন।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ফোনালাপে তিনি ওই তদন্ত আবারও শুরু করতে চাপ দেন ট্রাম্প এবং চাপ প্রয়োগের অংশ হিসেবে তিনি ইউক্রেনে মার্কিন সামরিক সহায়তাও সাময়িকভাবে বন্ধ রাখেন।

গত সেপ্টেম্বরে সিআইএ’র সাবেক এক কর্মকর্তা ট্রাম্পের ফোনালাপ ফাঁস করে দেন। এতে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ ওঠে। তবে ট্রাম্প জানান, তিনি কোনো অন্যায় করেননি। এরপরে এই অভিশংসনের তদন্তের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

চলমান এ তদন্তে ইতিমধ্যে কংগ্রেসে সাক্ষ্য দিয়েছেন জর্জ কেন্ট, মেরি ইভানোভিচ ও উইলিয়াম টেইলর। এবার তারা জনসম্মুখে সাক্ষী দেবেন এবং তাদের ধারণা, জনসম্মুখে শুনানি হলে ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট পদ হারাতে পারেন।

রুশ হস্তক্ষেপ নিয়ে কঠোর সমালোচনা হিলারির : ব্রিটিশ রাজনীতিতে রুশ হস্তক্ষেপ নিয়ে তৈরি প্রতিবেদন প্রকাশ না করায় ব্রিটিশ সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছেন গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন।

ব্রিটেনের গণতন্ত্রে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগ পর্যবেক্ষণ করে দেশটির পার্লামেন্টের ইনটেলিজেন্স কমিটি ও নিরাপত্তা কমিটি একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছে। তবে আগামী ১২ ডিসেম্বর নির্বাচনের আগে এটি প্রকাশ করা হবে না বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ সরকার। হিলারি ক্লিনটন বলেন, ওই প্রতিবেদনে কি বলা হয়েছে নির্বাচনের আগেই প্রতিটি ভোটারের তা জানার অধিকার রয়েছে।