পেঁয়াজের ডাবল সেঞ্চুরি: ভারতে খাদ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা
jugantor
পেঁয়াজের ডাবল সেঞ্চুরি: ভারতে খাদ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পেঁয়াজের ডাবল সেঞ্চুরি: ভারতে খাদ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা
ফাইল ছবি

আগে পেঁয়াজের ঝাঁজে চোখে পানি এলেও এখন যেন পেঁয়াজের দাম শুনেই চোখে পানি আসার উপক্রম। ভারতজুড়ে পেঁয়াজের দাম বেড়েই চলেছে। কর্নাটক রাজ্যের বেঙ্গালুরু শহরে পেঁয়াজের কেজি ডাবল সেঞ্চুরি (২০০ রুপি) ছাড়িয়ে গেছে।

পেঁয়াজের এ ঝাঁজ আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। ‘জনগণের সঙ্গে প্রতারণা’র অভিযোগে কেন্দ্রীয় খাদ্যমন্ত্রী রামবিলাশ পাসোয়ানের বিরুদ্ধে মামলা ঠুকে দিয়েছেন এক ব্যক্তি। খবর ইন্ডিয়া টাইমস ও এনডিটিভির।

বাজারে সরবরাহে ঘাটতির কারণে পেঁয়াজের মূল্য উপর দিকে ছুটেছে বলে শনিবার বেঙ্গালুরুর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

কর্নাটক রাজ্যের এগ্রিকালচারাল মার্কেটিং কর্মকর্তা সিদ্ধাগাঙ্গাইয়া বার্তা সংস্থা আইএএনএসকে বলেছেন, ‘প্রতি ১০০ কেজি (এক কুইন্টাল) পেঁয়াজের পাইকারি মূল্য সাড়ে পাঁচ হাজার রুপি থেকে ১৪ হাজার রুপি পর্যন্ত ওঠানামা করতে থাকায় বেঙ্গালুরুর কিছু খুচরা পণ্যের দোকানে পেঁয়াজের কেজি ২০০ রুপি ছুয়েছে।’

এনডিটিভি বলছে, ভারতের পেঁয়াজের চাহিদা বার্ষিক ১৫০ লাখ মেট্রিক টন। কর্নাটকের বার্ষিক পেঁয়াজ উৎপাদনের পরিমাণ ২০ লাখ ১৯ হাজার মেট্রিক টন। কিন্তু ফসলহানি ও ফসল তোলার পর নষ্ট হওয়ায় কর্নাটকের পেঁয়াজ উৎপাদন এবার ৫০ শতাংশ কম হয়েছে।

ফসল তোলার সময় ভারি বৃষ্টিপাতের কারণেও প্রচুর পেঁয়াজ নষ্ট হয়। অবশিষ্ট পেঁয়াজ বাজারে এসেছে। নভেম্বরে প্রতিদিন ৬০ থেকে ৭০ কুইন্টাল পেঁয়াজ কর্নাটকের বাজারগুলোতে আসত, কিন্তু ডিসেম্বরে তা কমে অর্ধেকে নেমে এসেছে।

এতে বাজারে পেঁয়াজ সংকট দেখা দিয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে রাজ্যটির কৃষি উৎপাদন বাজার কমিটি (এপিএমসি) একটি সার্কুলার জারি করে ছুটির দিনেও পেঁয়াজ সরবরাহ অব্যাহত রাখা হবে বলে জানিয়েছে।

কর্নাটকের খাদ্য ও বেসামরিক সরবরাহ বিভাগ পেঁয়াজ মজুদকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে বলে এনডিটিভি জানিয়েছে।

পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধিতে কেন্দ্রীয় খাদ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিহারের এক আদালতে ফৌজদারি মামলা দায়ের হয়েছে। রামবিলাশের বিরুদ্ধে পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে ‘প্রতারণা ও বিভ্রান্ত করার’ অভিযোগ আনা হয়েছে।

মুজ্জাফফরপুর মুখ্য বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেটের কোর্টে মামলাটি করেছেন এম রাজু নায়ার নামে এক সমাজকর্মী। মামলাকারীর অভিযোগ, কেন্দ্রীয় খাদ্যমন্ত্রী হিসেবে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণ করা রামবিলাশের দায়িত্ব।

কিন্তু সেই দায়িত্ব পালনে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন মোদি সরকারের এ মন্ত্রী। এভাবে তিনি সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। আগামী ১২ ডিসেম্বর মামলার শুনানির দিন ধার্য করেছেন বিচারক মৌর্য কান্ত তিওয়ারি।

এশিয়ার বৃহত্তম পেঁয়াজের বাজার ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের লাসালগাঁও শহর। সেখানে কুইন্টাল প্রতি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০ হাজার রুপিতে। অর্থাৎ কেজি ১০০ রুপি। মুম্বাইয়ের ভাশি মার্কেটে কেজিপ্রতি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১৩০ রুপিতে।

খুচরা বাজারে এসব পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজি ১৪০ থেকে ১৬০ রুপি। কলকাতায় বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৩০ রুপিতে।

পেঁয়াজের ডাবল সেঞ্চুরি: ভারতে খাদ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
পেঁয়াজের ডাবল সেঞ্চুরি: ভারতে খাদ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা
ফাইল ছবি

আগে পেঁয়াজের ঝাঁজে চোখে পানি এলেও এখন যেন পেঁয়াজের দাম শুনেই চোখে পানি আসার উপক্রম। ভারতজুড়ে পেঁয়াজের দাম বেড়েই চলেছে। কর্নাটক রাজ্যের বেঙ্গালুরু শহরে পেঁয়াজের কেজি ডাবল সেঞ্চুরি (২০০ রুপি) ছাড়িয়ে গেছে।

পেঁয়াজের এ ঝাঁজ আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। ‘জনগণের সঙ্গে প্রতারণা’র অভিযোগে কেন্দ্রীয় খাদ্যমন্ত্রী রামবিলাশ পাসোয়ানের বিরুদ্ধে মামলা ঠুকে দিয়েছেন এক ব্যক্তি। খবর ইন্ডিয়া টাইমস ও এনডিটিভির।

বাজারে সরবরাহে ঘাটতির কারণে পেঁয়াজের মূল্য উপর দিকে ছুটেছে বলে শনিবার বেঙ্গালুরুর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

কর্নাটক রাজ্যের এগ্রিকালচারাল মার্কেটিং কর্মকর্তা সিদ্ধাগাঙ্গাইয়া বার্তা সংস্থা আইএএনএসকে বলেছেন, ‘প্রতি ১০০ কেজি (এক কুইন্টাল) পেঁয়াজের পাইকারি মূল্য সাড়ে পাঁচ হাজার রুপি থেকে ১৪ হাজার রুপি পর্যন্ত ওঠানামা করতে থাকায় বেঙ্গালুরুর কিছু খুচরা পণ্যের দোকানে পেঁয়াজের কেজি ২০০ রুপি ছুয়েছে।’

এনডিটিভি বলছে, ভারতের পেঁয়াজের চাহিদা বার্ষিক ১৫০ লাখ মেট্রিক টন। কর্নাটকের বার্ষিক পেঁয়াজ উৎপাদনের পরিমাণ ২০ লাখ ১৯ হাজার মেট্রিক টন। কিন্তু ফসলহানি ও ফসল তোলার পর নষ্ট হওয়ায় কর্নাটকের পেঁয়াজ উৎপাদন এবার ৫০ শতাংশ কম হয়েছে।

ফসল তোলার সময় ভারি বৃষ্টিপাতের কারণেও প্রচুর পেঁয়াজ নষ্ট হয়। অবশিষ্ট পেঁয়াজ বাজারে এসেছে। নভেম্বরে প্রতিদিন ৬০ থেকে ৭০ কুইন্টাল পেঁয়াজ কর্নাটকের বাজারগুলোতে আসত, কিন্তু ডিসেম্বরে তা কমে অর্ধেকে নেমে এসেছে।

এতে বাজারে পেঁয়াজ সংকট দেখা দিয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে রাজ্যটির কৃষি উৎপাদন বাজার কমিটি (এপিএমসি) একটি সার্কুলার জারি করে ছুটির দিনেও পেঁয়াজ সরবরাহ অব্যাহত রাখা হবে বলে জানিয়েছে।

কর্নাটকের খাদ্য ও বেসামরিক সরবরাহ বিভাগ পেঁয়াজ মজুদকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে বলে এনডিটিভি জানিয়েছে।

পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধিতে কেন্দ্রীয় খাদ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিহারের এক আদালতে ফৌজদারি মামলা দায়ের হয়েছে। রামবিলাশের বিরুদ্ধে পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে ‘প্রতারণা ও বিভ্রান্ত করার’ অভিযোগ আনা হয়েছে।

মুজ্জাফফরপুর মুখ্য বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেটের কোর্টে মামলাটি করেছেন এম রাজু নায়ার নামে এক সমাজকর্মী। মামলাকারীর অভিযোগ, কেন্দ্রীয় খাদ্যমন্ত্রী হিসেবে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণ করা রামবিলাশের দায়িত্ব।

কিন্তু সেই দায়িত্ব পালনে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন মোদি সরকারের এ মন্ত্রী। এভাবে তিনি সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। আগামী ১২ ডিসেম্বর মামলার শুনানির দিন ধার্য করেছেন বিচারক মৌর্য কান্ত তিওয়ারি।

এশিয়ার বৃহত্তম পেঁয়াজের বাজার ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের লাসালগাঁও শহর। সেখানে কুইন্টাল প্রতি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০ হাজার রুপিতে। অর্থাৎ কেজি ১০০ রুপি। মুম্বাইয়ের ভাশি মার্কেটে কেজিপ্রতি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১৩০ রুপিতে।

খুচরা বাজারে এসব পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজি ১৪০ থেকে ১৬০ রুপি। কলকাতায় বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৩০ রুপিতে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধি