আরেক ‘বেলফোর’ দেখল ফিলিস্তিন

  যুগান্তর ডেস্ক ৩০ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আরেক ‘বেলফোর’ দেখল ফিলিস্তিন

দীর্ঘ একশ বছরেরও বেশি সময় পর আরেকটি ‘বেলফোর চুক্তি’ দেখল ফিলিস্তিন। মঙ্গলবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উত্থাপিত ‘ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি’কে (শতাব্দীর সেরা চুক্তি) ‘নতুন বেলফোর ঘোষণা’ হিসেবে আখ্যা দিয়ে তা প্রত্যাখ্যান করেছেন ফিলিস্তিনিরা।

একে ‘শতাব্দীর সেরা বিশ্বাসঘাতকতা’ বলে উল্লেখ করেছে ইরান। ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাইয়েদ আব্বাস মুসাভি মঙ্গলবার রাতে তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ফিলিস্তিনিদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে চাপিয়ে দেয়া এ লজ্জাজনক শান্তি পরিকল্পনা ব্যর্থ হতে বাধ্য।

ট্রাম্পের একপেশে কথিত মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনাকে ‘নিরঙ্কুশভাবে অগ্রহণযোগ্য’ বলে উল্লেখ করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোগান। এ পরিকল্পনাকে সমর্থন জানিয়েছে সৌদি আরব। খবর এএফপি ও বিবিসির।

ফিলিস্তিনিদের প্রবল বিরোধিতা উপেক্ষা করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শেষ পর্যন্ত ইহুদিবাদী পরিকল্পনা ‘ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি’ উপস্থাপন করেছেন। তিনি মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুকে পাশে নিয়ে তার একপেশে এ আপস প্রক্রিয়া উপস্থাপন করেন।

মার্কিন-ইহুদিবাদী এ পরিকল্পনায় ঐতিহাসিক জেরুজালেম আল-কুদস শহরকে ইসরাইলি ভূখণ্ডের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সেই সঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসরত ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের তাদের মাতৃভূমিতে ফিরে যাওয়ার অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। এছাড়া জর্ডান নদীর পশ্চিম তীরের অবশিষ্ট অংশ ও গাজা উপত্যকা নিয়ে একটি দুর্বল ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের কথা বলা হয়েছে।

ফিলিস্তিনিদের পাশাপাশি বিশ্বের বহু মুসলিম দেশ ট্রাম্পের এই একতরফা পরিকল্পনার বিরোধিতা করেছে। ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, আমি হাজারবার বলেছি, এ পরিকল্পনা মানি না, মানি না, মানি না।

‘ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি’ উপস্থাপনের পর ট্রাম্প মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গে কথা বলার জন্য তাকে টেলিফোন করলেও তিনি ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি। তিনি বলেছেন, যে পরিকল্পনায় জেরুজালেম আল-কুদসকে রাজধানী করে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের কথা নেই, সেই পরিকল্পনা তিনি মেনে নেবেন না।

অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমের বাসিন্দা ফিলিস্তিনি মানবাধিকার কর্মী ফখরি আবু দিয়াব আলজাজিরাকে বলেন, যার (নেতানিয়াহু) মালিকানা নেই, তার হাতে তুলে দিচ্ছেন তিনি (ট্রাম্প)।

যাদের কোনো অধিকারও নেই। তিনি বলেন, এটা পরিষ্কার, নতুন বেলফোর ঘোষণার মাধ্যমে ট্রাম্প ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি করছেন। ইহুদিদের জন্য নতুন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় ব্রিটেনের অঙ্গীকারের পর ১৯১৭ সালের ২ নভেম্বর ‘বেলফোর ঘোষণা’ দেয়া হয়।

তৎকালীন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেমস আর্থার বেলফোর ওইদিন ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে ইহুদিদের জন্য কথিত রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পক্ষে ব্রিটেনের অবস্থানের ঘোষণা দেন।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান এ চুক্তিকে নিরঙ্কুশভাবে অগ্রহণযোগ্য অ্যাখ্যা দিয়েছেন। বুধবার তিনি বলেন, জেরাজালেম মুসলিমদের পবিত্র ভূমি। একে ইসরাইলকে দিয়ে দেয়া একেবারেই অগ্রহণযোগ্য। এ পরিকল্পনা ফিলিস্তিনিদের অধিকার হরণ করে এবং ইসরাইলের দখলদারিত্বকে বৈধতা দেয়।

ইরানি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট এ পরিকল্পনা উত্থাপন করে মূলত ফিলিস্তিনি জনগণের পাশাপাশি গোটা মুসলিম উম্মাহর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন।

এ পরিকল্পনা প্রতিহত করার জন্য মধ্যপ্রাচ্যসহ গোটা বিশ্বের স্বাধীনচেতা দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান তিনি। ফিলিস্তিনি জনগণকে ইসরাইলসহ গোটা ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডের প্রকৃত মালিক বলে উল্লেখ করেন সাইয়েদ মুসাভি।

ইরানের দৃষ্টিতে ফিলিস্তিন ও জেরুজালেম আল-কুদসকে মুসলিম বিশ্বের এক নম্বর সমস্যা হিসেবে আখ্যায়িত করেন ইরানি এ মুখপাত্র।

ঘটনাপ্রবাহ : ফিলিস্তিনিদের ঘরে ফেরার বিক্ষোভ

আরও পড়ুন

'কোভিড-১৯' সর্বশেষ আপডেট

# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ৫১ ২৫
বিশ্ব ৮,২৩,১৯৪১,৭৪,৩৩২৪০,৬৩৩
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

 
×