ভয়ংকর পরিণতি হবে যুক্তরাষ্ট্রের

হোয়াইট হাউস করোনাভাইরাস টাস্কফোর্সের হুশিয়ারি

  যুগান্তর ডেস্ক ১৪ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

লকডাউন তুললেই গর্জে উঠবে করোনা। এর থাবায় পরিণতি হবে আরও ভয়ংকর। যুক্তরাষ্ট্রে আগেভাগে করোনা বিধিনিষেধ তুলে নেয়ার ব্যাপারে এভাবেই হুশিয়ারি দিয়েছে হোয়াইট হাউস করোনাভাইরাস টাস্কফোর্সের কর্মকর্তারা। মঙ্গলবার সিনেটের এক শুনানিকালে একই হুশিয়ারি দিয়েছেন হোয়াইট হাউসের স্বাস্থ্যবিশেষজ্ঞ ড. অ্যান্থনি ফাউসি। তিনি বলেছেন, লকডাউন শিথিলের ‘পরিণতি হবে গুরুতর’। মার্কিন সিনেটকে সতর্ক করে তিনি বলেন, চলমান মহামারীর মধ্যেই অর্থনীতি সচল করা হলে ভাইরাসটি সারা দেশে ছড়িয়ে পড়বে। স্বল্প পরিসরের সংক্রমণও বড় মহামারীর রূপ নেবে। বিবিসি ও নিউইয়র্ক টাইমস।

হোয়াইট হাউসের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের ‘ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজ’র পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন অ্যান্থনি ফাউসি। করোনা প্রতিরোধ নীতি নিয়ে তাকে প্রায়ই প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে দেখা যায়। করোনা লকডাউন শিথিলের ব্যাপারে ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেও কথা বলছেন তিনি। সিনেটকে তিনি বলেছেন, ফের অর্থনীতি সচল করে দিতে সরকারের নির্দেশনা অনুসরণ করাই যুক্তরাষ্ট্রের জন্য ভালো হবে। ভাইরাসটির প্রাদুর্ভাব কিছুটা কমে আসবে।

যুক্তরাষ্ট্রে ইতোমধ্যে করোনায় প্রকৃত মৃতের সংখ্যা ৮৩ হাজার পার হয়েছে। এটা অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, নিউজিল্যান্ডসহ অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক বেশি। বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ফাউসি। মঙ্গলবার সিনেটর টিম কাইনে জানান, যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুহার ভারত, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, জাপান এবং মেক্সিকোর চেয়ে বহুগুণ বেশি। এমনকি জার্মানির চেয়ে ১০ গুণ ও কানাডার চেয়ে ১৬ গুণ বেশি। এ সময় ফাউসি বলেন, দক্ষিণ কোরিয়ার চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুহার ৪৫ গুণ বেশি। দেশটিতে ২৫৯ জন মারা গেছেন। অস্ট্রেলিয়ায় ৯৮ জন মারা গেছেন এবং নিউজিল্যান্ডে ২১ জন। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে এত বেশি মানুষের মৃত্যুহার অগ্রহণযোগ্য। অন্যান্য দেশের চেয়ে আমাদের আরও ভালো থাকার কথা। এত বেশি মৃত্যুহার গ্রহণ করাটাই অসম্ভব।’

এরপরেই এক ভিডিও কনফারেন্সে সিনেটরদের সতর্ক করে ফাউসি বলেন, লকডাউন উঠানো হলে যুক্তরাষ্ট্রের রাজ্য ও শহরগুলো করোনার মারাত্মক হুমকির মুখে পড়বে। যতদিন পর্যন্ত প্রশাসনের এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করার সক্ষমতা না হয় ততদিন লকডাউন না উঠানোর পরামর্শ দেন ফাউসি। ইতোমধ্যে স্কুল-কলেজ ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুনরায় সব কিছু চালু করতে তিন দফায় ১৪ দিনের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। রাজ্যের সিনেটরদের এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। তবে ফাউসি বলছেন, অর্থনীতিকে চাঙা করতে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিলে মৃত্যুর যন্ত্রণা এড়ানো সম্ভব হবে না। করোনার প্রাদুর্ভাবও নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। ট্রাম্পের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, সত্যিকারের ঝুঁকি রয়েছে এমন একটি প্রাদুর্ভাবকে আপনি (ট্রাম্প) আরও ছড়িয়ে দেয়ার মতো কাজ করছেন, যা আপনি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন না। প্রকৃতপক্ষে লকডাউন তুলে দেয়া হলে বিপর্যয় আসবে।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত