আয়ুর্বেদিক ওষুধের ফর্মুলা নিয়ে কাজ শুরু ভারতে
jugantor
আয়ুর্বেদিক ওষুধের ফর্মুলা নিয়ে কাজ শুরু ভারতে

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৫ মে ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ রোধে চারটি ঐতিহ্যবাহী আয়ুর্বেদিক ওষুধের ফর্মুলা নিয়ে কাজ শুরু করেছে ভারত। এটা কতটা কার্যকরী ফল দিচ্ছে এ সপ্তাহেই তার ট্রায়াল শুরু হবে। বৃহস্পতিবার এক টুইটে এ খবর জানান দেশটির কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী শ্রীপদ ওয়াই নায়েক। তিনি আরও বলেন, আমি নিশ্চিত এবং যথেষ্ট আশাবাদী যে, আমাদের ঐতিহ্যবাহী এ ঔষধি ব্যবস্থাই করোনা মহামারী থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর পথ দেখাবে। ভারতে বরাবরই আয়ুর্বেদ, যোগ, ইউনানি, সিদ্ধা এবং হোমিওপ্যাথির চর্চা হয়ে আসছে। এবার করোনাকে রুখতে ঐতিহ্যবাহী আয়ুর্বেদেই ভরসা রাখছেন ওই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। প্রতিমন্ত্রী শ্রীপদ ওয়াই নায়েক জানান, কোভিড-১৯ মহামারীর বিরুদ্ধে চারটি আয়ুষ ফর্মুলেশন যাচাই করার জন্য একসঙ্গে কাজ করা হচ্ছে। ওই গবেষণা শেষে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এ নিয়ে পরীক্ষা করা শুরু হবে। তিনি জানান, করোনা রোগীদের জন্য একটি অ্যাড-অন থেরাপি এবং স্ট্যান্ডার্ড কেয়ার হিসেবে ওই ওষুধগুলো ব্যবহারের চেষ্টা করা হবে। দ্য কাউন্সিল অব সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চ বা সিএসআইআর’র সঙ্গে যৌথভাবে ঐতিহ্যবাহী ওষুধগুলো নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাচ্ছে মন্ত্রণালয়। সিএসআইআর বিশ্বের বৃহত্তম এবং সর্বাধিক বৈচিত্র্যযুক্ত পাবলিক ফান্ডিং বৈজ্ঞানিক ও শিল্প গবেষণা সংস্থা।

আয়ুর্বেদিক ওষুধের ফর্মুলা নিয়ে কাজ শুরু ভারতে

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৫ মে ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ রোধে চারটি ঐতিহ্যবাহী আয়ুর্বেদিক ওষুধের ফর্মুলা নিয়ে কাজ শুরু করেছে ভারত। এটা কতটা কার্যকরী ফল দিচ্ছে এ সপ্তাহেই তার ট্রায়াল শুরু হবে। বৃহস্পতিবার এক টুইটে এ খবর জানান দেশটির কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী শ্রীপদ ওয়াই নায়েক। তিনি আরও বলেন, আমি নিশ্চিত এবং যথেষ্ট আশাবাদী যে, আমাদের ঐতিহ্যবাহী এ ঔষধি ব্যবস্থাই করোনা মহামারী থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর পথ দেখাবে। ভারতে বরাবরই আয়ুর্বেদ, যোগ, ইউনানি, সিদ্ধা এবং হোমিওপ্যাথির চর্চা হয়ে আসছে। এবার করোনাকে রুখতে ঐতিহ্যবাহী আয়ুর্বেদেই ভরসা রাখছেন ওই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। প্রতিমন্ত্রী শ্রীপদ ওয়াই নায়েক জানান, কোভিড-১৯ মহামারীর বিরুদ্ধে চারটি আয়ুষ ফর্মুলেশন যাচাই করার জন্য একসঙ্গে কাজ করা হচ্ছে। ওই গবেষণা শেষে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এ নিয়ে পরীক্ষা করা শুরু হবে। তিনি জানান, করোনা রোগীদের জন্য একটি অ্যাড-অন থেরাপি এবং স্ট্যান্ডার্ড কেয়ার হিসেবে ওই ওষুধগুলো ব্যবহারের চেষ্টা করা হবে। দ্য কাউন্সিল অব সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চ বা সিএসআইআর’র সঙ্গে যৌথভাবে ঐতিহ্যবাহী ওষুধগুলো নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাচ্ছে মন্ত্রণালয়। সিএসআইআর বিশ্বের বৃহত্তম এবং সর্বাধিক বৈচিত্র্যযুক্ত পাবলিক ফান্ডিং বৈজ্ঞানিক ও শিল্প গবেষণা সংস্থা।