রহস্যজনক কারণে মরছে শত শত হাতি

  যুগান্তর ডেস্ক ০৩ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ছবি: সংগৃহীত

গত দুই মাস ধরে আফ্রিকার দেশ বতসোয়ানায় রহস্যজনক কারণে শত শত হাতির মৃত্যুর ঘটনায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। সেখানে গণহারে হাতির এমন মৃত্যুর ঘটনা নজিরবিহীন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন এর আগে কখনো এরকম হয়নি। বুধবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

জানা গেছে, বতসোয়ানায় মে মাসের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত তার সহকর্মীরা বতসোয়ানার উত্তরাঞ্চলের ওকাভাঙ্গা ব-দ্বীপে ৩৫০টিরও বেশি হাতির মরদেহ দেখেছেন। তবে কী কারণে এত এত হাতির মৃত্যু হচ্ছে কেউ জানে না।

এরই মাঝে মৃত হাতিদের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর ফলাফল আসতে আরও কয়েক সপ্তাহ লাগবে।

বিশ্বগণমাধ্যম বলছে, আফ্রিকা মহাদেশে দিন দিন হাতির সংখ্যা কমে যাচ্ছে। এ মহাদেশের ৩ ভাগের এক ভাগ হাতির আবাসস্থলই বতসোয়ানায়।

প্রথমে কীভাবে গণহারে মারা যেতে থাকা এ হাতিরা নজরে এলো, এ প্রসঙ্গে ড. নায়াল ম্যাকান বলেন, মে মাসে প্লেনে করে ওকাভাঙ্গা পরিদর্শনের পর বিবিসির স্থানীয় প্রতিনিধি ও পরিবেশবাদীরা এ ব্যাপারে প্রথম সরকারকে সতর্কতা জানান।

‘মাত্র ৩ ঘণ্টার উড্ডয়নে সে সময় তারা ১৬৯টি হাতির মরদেহ দেখতে পান। এত কম সময়ে এত মরা হাতি চোখে পড়া অস্বাভাবিক। এক মাস পর আরও কিছু হাতির মরদেহ চোখে পড়ে। সব মিলিয়ে এ সংখ্যা ৩৫০-এরও বেশি।’

‘ক্ষরা বা অনাবৃষ্টি ছাড়া একসঙ্গে এত হাতির মৃত্যু নজিরবিহীন। কেবল হাতিরাই মারা যাচ্ছে।’

মে মাসেই দেশটির সরকার নিশ্চিত করে, এত এত হাতির মৃত্যুর পেছনে চোরাশিকারিদের হাত নেই। কারণ সে ক্ষেত্রে মৃত হাতিগুলোর দাঁত থাকতো না। বহুমূল্য এসব দাঁতের লোভেই তারা হাতি মারে।

ড. নায়াল ম্যাকান বলেন, অনেকে মনে করছেন, তাদের স্নায়ুবিক কোনো সমস্যা হচ্ছে। হতে পারে কিছু একটা তাদের স্নায়ুযন্ত্রকে আক্রমণ করছে।

বতসোয়ানার বন্যপ্রাণী ও জাতীয় উদ্যান বিভাগের প্রধান পরিচালক ড. সাইরিল তাওলো জানান, এখন পর্যন্ত তারা অন্তত ২৮০টি হাতির মৃত্যুর ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছেন।

কী কারণে এত এত হাতির মৃত্যু হচ্ছে, এ ব্যাপারে এখনও তারা কিছু জানেন না বলে জানিয়েছেন।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত