ভারতে পিপিই পরে ডাকাতি

  যুগান্তর ডেস্ক ০৯ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মহামারী করোনাভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে পিপিই পরছেন বিশ্বের প্রায় সব দেশেরই সচেতন নাগরিক। পিপিই পরেই চিকিৎসা দিচ্ছেন স্বাস্থ্যকর্মীরাও। আর এই পিপিই পরেই ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে ভারতে। দেশটির মহারাষ্ট্রে সোনার গয়নার দোকানে এমন ঘটনা ঘটে। দোকানের সিসিটিভি ফুটেজে এমন ঘটনার দেখার পর হতভম্ব পুলিশ। মহারাষ্ট্র পুলিশের ধারণা, করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষার জন্য নয়, নিজেদের চেহারা লুকাতেই পিপিই পরে ডাকাতি করে তারা। মঙ্গলবার বার্তা সংস্থা পিটিআই এ খবর দিয়েছে।

কয়েকদিন আগে মহারাষ্ট্রের সাতারা জেলায় একটি গয়নার দোকানের দেয়াল ভেঙে প্রায় ৭৮০ গ্রাম সোনার গয়না লুট করে পালিয়ে যায় ডকাতের দল। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান পুলিশ সদস্যরা। এরপর সংগ্রহ করা হয় গয়নার দোকানের সিসিটিভি ফুটেজ। ঘটনার দু’দিন আগের সেই ফুটেজে দেখা যায়, একেবারে স্বাস্থ্যকর্মীদের মতো পিপিই পরে এসেছে একদল ডাকাত। মাথায় ক্যাপ, মুখে মাস্ক, ফাইবারের চশমা, হ্যান্ড গ্লাভস- কোনো কিছুরই অভাব নেই। ফলে সিসিটিভি দেখে কাউকেই চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি।

জুয়েলারি দোকনের শোকেস ও কাপবোর্ড থেকে ডাকাতরা দিব্যি সোনার গহনা নিচ্ছে- এমন চিত্র সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে। দোকানের মালিক থানায় অভিযোগ জানান, তার দোকান থেকে ডাকাত দল ৭৮ তোলা (এক তোলা সমান ১০ গ্রাম) সোনা লুট করেছে। দোকানের মালিক জানান, ডাকাতরা দেয়াল ভেঙেই ভেতরে ঢোকে।

তদন্তকারীদের ধারণা, এ সময়ে মহারাষ্ট্রের রাস্তাঘাটে পিপিই কিট পরে রাতে একদল লোক গেলেও কেউ সন্দেহ করবে না। পুলিশ কর্মীদেরও খটকা লাগবে না। সেই সঙ্গে সিসিটিভিতে কিছু বোঝাও যাবে না। তাই দেখেই এমন ফন্দি এঁটেছে ডাকাতের দল। তারপর ডাকাতি করে নিয়ে যায় সোনার গয়না।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত