মাটির নিচ থেকে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ল ইরান

  যুগান্তর ডেস্ক ৩১ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মাটির নিচ থেকে প্রথমবারের মতো একটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছে ইরানের প্রভাবশালী ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনী (আইআরজিসি)। স্পর্শকাতর উপসাগরীয় সমুদ্রসীমায় দেশটির এক সামরিক মহড়ার শেষদিন বুধবার এ ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়। আইআরজিসি’র এক বিবৃতিতে দাবি করা হয়েছে, পৃথিবীতে প্রথমবারের মতো ভূগর্ভস্থ এ ধরনের পরীক্ষা চালানো হল।

আলজাজিরা জানিয়েছে, হরমুজগান প্রদেশ, কৌশলগত হরমুজপ্রণালি ও পারস্য উপসাগরের বিস্তীর্ণ এলাকায় দুইদিনের সামরিক মহড়া চালিয়েছে ইরান।

‘মহানবী (সা.)-১৪’ নামে এ মহড়ার প্রথম দিনে মঙ্গলবার দূরপাল্লার ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালায় আইআরজিসি। আর দ্বিতীয় দিনে মাটির নিচ থেকে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালানো হল।

ইরানের রাষ্ট্রীয় টিভির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি বার্তা সংস্থায় ওই ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। এতে দেখা যায়, ক্ষেপণাস্ত্রটি আকাশে ঝলকে ওঠার আগে আশপাশের এলাকা ধুলায় ঢেকে যায়। ইরানের ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর বিবৃতিতে এই ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষায় সফলতার দাবি করা হয়েছে। বলা হয়েছে, সম্পূর্ণ ছদ্মবেশী উপায়ে এই পরীক্ষা চালানো গেছে।

এছাড়া মহড়ার সময়ে সুখোই এসইউ-২২ যুদ্ধবিমান ব্যবহার করে নির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানার পরীক্ষা চালানো হয়েছে। ইরানের সমুদ্রসীমায় বানি ফারুর দ্বীপে ওই লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণ করা হয়। রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনকে আইআরজিসি’র অ্যারোস্পেস প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমির আলি হাজিজাদেহ বলেন, ‘কোনো প্ল্যাটফরম এবং স্বাভাবিক সরঞ্জাম ব্যবহার ছাড়াই এসব উৎক্ষেপণ সম্পন্ন হয়।’ তিনি দাবি করেন, নতুন এ ক্ষেপণাস্ত্র হঠাৎ করে মাটির নিচ থেকে বেরিয়ে নির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম।

মহামারী করোনাভাইরাসের মধ্যে মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় বিপর্যস্ত ইরান। তেল বিক্রিতে পতন ঘটেছে। সরবরাহ সংকট এড়াতে খাবার ও ওষুধ কিনতে ব্যর্থ হচ্ছেন দেশটির নাগরিকরা। নিষেধাজ্ঞার মধ্যেও যেসব পণ্যের সরবরাহ রয়েছে সেগুলো কিনতেও টাকা পাচ্ছেন না তারা। কারণ মার্কিন নিষেধাজ্ঞার ভয়ে বিদেশি ব্যাংক ও সরকার অর্থ সরবরাহ করছে না। পাঁচটি বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক উৎসের বরাতে বৃহস্পতিবার এ তথ্য দিয়েছে রয়টার্স।

সুইস সরকার অনুমোদিত বাণিজ্য চানেল ও ওয়াশিংটন সমর্থিত সুইস হিউম্যানিটারিয়ান ট্রেড অ্যাগ্রিমেন্ট (এসএইচটিএ) সুইজারল্যান্ডের কোম্পানিগুলো থেকে ইরানের ক্রয় সুবিধা এক বছর সরবরাহের পর গত ফেব্রুয়ারিতে বন্ধ করে দিয়েছে। এমনকি তেল রফতানির কয়েকশ কোটি ডলার সরবরাহে অক্ষম ইরানের কেন্দ্রীয় ব্যাংকও (আইসিবি)। কারণ ২০১৬ ও ২০১৮ সালের মধ্যে এসএইচটিএ’র সঙ্গে কাজ করতে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলেছিল আইসিবি। ইরান যেসব দেশে তেল বিক্রি করেছিল সেসব দেশের ব্যাংক হিসাবে ওই টাকা রয়েছে। এ অর্থের অধিকাংশই রয়েছে ইরানের বৃহত্তম কাস্টমার এবং এশিয়ার দুই দেশ জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ায়। ২০১৮ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানের পরমাণু চুক্তি প্রত্যাহারের পর থেকে আইসিবিকে টার্গেট করে এ অর্থ জব্দ করে রাখা হয়েছে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত