হংকং নিরাপত্তা আইনে ৪ শিক্ষার্থী আটক

জশুয়া অংসহ ১২ গণতন্ত্রপন্থী নেতাকে নির্বাচনে নিষেধাজ্ঞা

  যুগান্তর ডেস্ক ৩১ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

হংকংয়ে বিতর্কিত জাতীয় নিরাপত্তা আইন কার্যকরের এক মাসের মধ্যে প্রথমবারের মতো চারজনকে গ্রেফতার করল চীনের পুলিশ। অভিযুক্ত সবাই ছাত্র। বয়স ১৬ থেকে ২০ বছর। পুলিশের অভিযোগ, ফেসবুকে হংকংয়ের স্বাধীনতার পক্ষে সওয়াল করেছিলেন ওই শিক্ষার্থীরা। নতুন আইন অনুযায়ী এ ধরনের কার্যকলাপ এখন হংকংয়ে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। হংকং পুলিশের লি কোয়াই-ওয়াহ বলেন, ওই শিক্ষার্থীদের ল্যাপটপ, ফোনসহ বহু ব্যক্তিগত জিনিসপত্র বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। এদিকে হংকংয়ের ১২ গণতন্ত্রপন্থী নেতাকে আগামী নির্বাচনে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আধা-স্বায়ত্তশাসিত এ অঞ্চলটির কর্তৃপক্ষ। তাদের মধ্যে জশুয়া অং ও লেস্টার সাম অন্যতম। ১ জুলাই নিরাপত্তা আইন পাসের পর আগামী সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে স্বাধীনতাকামী নেতারা আইন পরিষদের অধিকাংশ আসন দখলের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিলেন।

বিবিসি জানায়, হংকংয়ে আটক হওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে টনি চাং অন্যতম। হংকংয়ের স্বাধীনতাকামী ছাত্রদের একটি দল জানিয়েছে, চাং তাদের দলের সাবেক নেতা। বেইজিং নিরাপত্তা আইন ঘোষণা করার পরে তাদের দলটি কার্যকলাপ বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে। কারণ নতুন আইন অনুযায়ী- বিচ্ছিন্নতা, বাইরের দেশের সঙ্গে কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে রাজনৈতিক কারণে যোগাযোগ রাখা অপরাধ বলে গণ্য হবে। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, কয়েক দিন ধরে টনি এবং তার অন্য সহযোগীদের নজরে রাখছিল পুলিশ। তারা কোথায় যাচ্ছেন, কী লিখছেন, কাদের সঙ্গে দেখা করছেন- সবই খোঁজ রাখা হচ্ছিল। এই সূত্র ধরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৮টা নাগাদ টনিকে তার বাড়ি থেকেই গ্রেফতার করা হয়। বাকি তিনজনকেও কাছাকাছি সময়ে পুলিশ আটক করে। আটক সবাই জুন পর্যন্ত হংকংয়ের স্বাধীনতা চেয়ে আন্দোলন করেছেন। ২০১৯ সালজুড়েই হংকংয়ে ব্যাপক আন্দোলন হয়েছে। ২০২০ সালের গোড়ায় সেই আন্দোলন আরও উত্তাল হয়ে ওঠে। পরিস্থিতি এতটাই জটিল হয়ে ওঠে যে, চীন পুলিশ এবং প্যারামিলিটারি দিয়েও তা দমন করতে পারেনি। এরপরই গত জুনে নতুন আইনের কথা জানায় বেইজিং। নতুন নিরাপত্তা আইন অনুযায়ী এ ধরনের আন্দোলন সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ হয়ে যায়। হংকং কর্তৃপক্ষ জানায়, আইন পরিষদ নির্বাচনে অযোগ্য হওয়ায় ১২ স্বাধীনতাপন্থী নেতার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। যারা হংকংয়ের স্বাধীনতার পক্ষে সাওয়াল করবেন, এ অঞ্চলে বিদেশি সরকারদের হস্তক্ষেপের অনুরোধ জানাবেন এবং বেইজিং আরোপিত জাতীয় নিরাপত্তা আইনের বিরোধিতা করবেন- তারা সাংবিধানিক দায়িত্ব পালনে অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। ২০১৪ সাল থেকে তরুণ নেতা জশুয়া অং স্বাধীনতা আন্দোলনে সোচ্চার। তিনি বলেন, ‘এ সিদ্ধান্ত হংকংবাসীর ইচ্ছার প্রতি চপেটাঘাত।’

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত