প্রতিনিধি হাজার হাজার সমাবেশ মঞ্চ ফাঁকা
jugantor
ডেমোক্র্যাটদের জাতীয় সম্মেলন শুরু ১৭-২০ আগস্ট : ২ ঘণ্টা করে ৪ রাত
প্রতিনিধি হাজার হাজার সমাবেশ মঞ্চ ফাঁকা
প্রথম দিনে ভাষণ দিবেন মিশেল ওবামা। দ্বিতীয় দিনে বিল ক্লিনটন তৃতীয় দিনে ওবামা, হিলারী * আয়োজন ছিল ৫০ হাজার মানুষের করোনার কারণে এখন ১০০ জন প্রস্তুতি খরচ লাখ লাখ ডলার

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৮ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক ইতিহাসে ১৮৩০-এর দশক থেকে দলীয় জাতীয় কনভেনশনের রীতি চালু রয়েছে। এ সমাবেশ ঘিরে মার্কিন ভোটারদের থাকে বাড়তি আগ্রহ। দলের পক্ষ থেকে থাকে জমকালো আয়োজন।

এবার একদম আলাদা। মঞ্চ-গ্যালারি মিলিয়ে উপস্থিত থাকবেন হাতে গোনা কয়েকজন। চোখে পড়বে না লাল-নীল-বেগুনি রঙের বেলুন-বৃষ্টি। থাকবে না সমর্থকদের উল্লাস-উচ্ছ্বাস।

হবে না প্রতিনিধিদের সমাগম। ডিজিটাল প্ল্যাটফরমের মাধ্যমে ডেমোক্র্যাটিক দলের জাতীয় সম্মেলন সোমবার থেকে শুরু হয়েছে। চার দিনব্যাপী এ সম্মেলন চলবে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। করোনাভাইরাসের কারণে একেবারে ব্যতিক্রমী এ সম্মেলনেও নজর পুরো বিশ্বের।

ডেমোক্র্যাট দল থেকে এবার প্রেসিডেন্ট প্রার্থী সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। মূলত ট্রাম্পের সঙ্গে নির্বাচনে ৭৭ বছর বয়সী এ প্রবীণ রাজনীতিবিদকে আনুষ্ঠানিক প্রতিদ্বন্দ্বী ঘোষণা করতেই এ সম্মেলন।

‘আমরাই জনগণ’, ‘নেত্বত্বই আসল বিষয়’, ‘আমেরিকার প্রতিশ্রুতি’-স্লোগানে উইসকনসিন রাজ্যের মিলাউকির উইসকনসিন কনভেনশন সেন্টারে শুরু হয়েছে সম্মেলন। ১৩-১৬ জুলাই এ সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা সংক্রমণের কারণে তা এক মাস পিছিয়ে ১৭-২০ আগস্ট সম্মেলনের দিনক্ষণ ধার্য করা হয়।

চার দিনই স্থানীয় সময় রাত ৯-১১টা পর্যন্ত (বাংলাদেশ সময় পরবর্তী দিন সকাল ৭-৯টা) ২ ঘণ্টা করে এ সম্মেলন চলবে। উইসকনসিন একটি গুরুত্বপূর্ণ সুইং স্টেট। আগের ধাঁচে সম্মেলন না হলেও এর প্রস্তুতিতে লাখ লাখ ডলার খরচ করা হয়েছে।

প্রায় ৫০ হাজার ডেমোক্র্যাট প্রতিনিধি ও সমর্থকের উপস্থিতিতে এ সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনার কারণে সব পাল্টে গেছে। সব মিলিয়ে ১০০-রও কম মানুষ এবারের সম্মেলনে উপস্থিত থাকছেন। এমনকি প্রেসিডেন্ট প্রার্থী বাইডেন ও ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী কমলা হ্যারিসও সশরীরে মঞ্চে উপস্থিত থাকবেন না।

সাধারণত সম্মেলনে দলীয় প্রায় চার হাজার ৮০০ প্রতিনিধি উপস্থিত থেকে তাদের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী মনোনীত করেন। দলীয় নীতি কী হবে-তা নির্ধারণ করেন। এরপর ধারাবাহিক বক্তব্য দেন। এবার প্রায় অর্ধেক প্রতিনিধির আগেই রেকর্ড করা বক্তব্য প্রচার করা হবে।

দলীয় প্রতিনিধিরা হলেন : যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট, ফার্স্টলেডি, প্রেসিডেন্ট প্রার্থী, সাবেক এবং বর্তমান গভর্নর, সিনেটর ও হাউস প্রতিনিধি। সম্মেলনের প্রথম দিন ভার্চুয়াল ভাষণ দেবেন সাবেক ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামা, সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্স, নিউইয়র্ক গভর্নর অ্যান্ড্রিউ কুমো, ট্রাম্পের সমালোচক ও রিপাবলিকান দলের সমর্থক জন কাসিচসহ (ওহাইও রাজ্যের সাবেক গভর্নর) কয়েকজন।

মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিন ভাষণ দেবেন জো বাইডেনের স্ত্রী সাবেক সেকেন্ড ফার্স্টলেডি জিল বাইডেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল শেলি ইয়েটস। ১৯ আগস্ট তৃতীয় দিন ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কমলা হ্যারিসের মনোনয়ন চূড়ান্ত করবেন।

এদিন ভাষণ দেবেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন, সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেনসহ কয়েকজন।

২০ আগস্ট সম্মেলনের শেষ দিন ভাষণ দেবেন ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর গ্যাভিন নিউসম, সিনেটর কমলা হ্যারিস ও বাইডেনের পরিবারের সদস্যরা। সমর্থকসহ অন্যান্য ভোটার ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের কাছে টানতে সর্বশেষ ভাষণ দেবেন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী বাইডেন।

ইউটিউবে লাইভ দেখা যাবে এ সম্মেলন। সরাসরি সম্প্রচারিত হবে এবিসি নিউজ, সিবিএস নিউজ, সিএনএন, ফক্স নিউজ, এমএসএনবিসি, এনবিসি নিউজ, পিবিএস নিউজ চ্যানেলে।

ডেমোক্র্যাটিক দলের কনভেনশন শুরুর দিনই উইসকনসিন সফরে যাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মিলাউকির দক্ষিণে ওশকোশ শহরে ভাষণ দেবেন তিনি। ট্রাম্প কর্মসংস্থান ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বাইডেনের ব্যর্থতার ফিরিস্তি তুলে ধরবেন বলে জানিয়েছে রিপাবলিকান প্রচারণা শিবির।

আগামী ২৪ আগস্ট থেকে শুরু হবে রিপাবলিকান দলের কনভেনশন। চলবে ২৭ আগস্ট পর্যন্ত। নর্থ ক্যারোলিনার শার্লটে এ সম্মেলনে সশরীরে উপস্থিত থাকবেন না ট্রাম্প। এখনও অঘোষিত এমন এক স্থান থেকে ভাষণ দেবেন তিনি। জানা গেছে, হোয়াইট হাউসের লন থেকে ভার্চুয়াল ভাষণ দেবেন রিপাবলিকান এ প্রার্থী।

কনভেনশনের মাধ্যমে কি ঐক্য ফিরবে : মহামারীকালে নতুন বাস্তবতায় দাঁড়িয়ে এ সম্মেলন নিয়ে এরই মধ্যে বেশ কিছু প্রশ্ন সামনে হাজির হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ এ রাজনৈতিক সম্মেলন এবার কতটা আবেদন সৃষ্টি করতে পারবে? মার্কিনিরা কনভেনশনের সময় স্ক্রিনের সামনে উপস্থিত থাকবেন তো?

প্রেসিডেন্ট নির্বাচন সামনে রেখে নিজেদের মধ্যে ঐক্য স্থাপন কী সম্ভব হবে? আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ের জন্য নিজেদের মধ্যে ঐক্য স্থাপনই সবচেয়ে জরুরি বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে ডেমোক্র্যাটদের জন্য। গেল নির্বাচনে পরাজয়ের পেছনে সবচেয়ে বেশি যে বিষয়টিকে দায়ী করা হয়, তা হল অনৈক্য।

এবারও সেই দ্বিধাবিভক্ত ডেমোক্র্যাটিক পার্টিই সবার সামনে উপস্থিত হয়েছে।

ডেমোক্র্যাটদের জাতীয় সম্মেলন শুরু ১৭-২০ আগস্ট : ২ ঘণ্টা করে ৪ রাত

প্রতিনিধি হাজার হাজার সমাবেশ মঞ্চ ফাঁকা

প্রথম দিনে ভাষণ দিবেন মিশেল ওবামা। দ্বিতীয় দিনে বিল ক্লিনটন তৃতীয় দিনে ওবামা, হিলারী * আয়োজন ছিল ৫০ হাজার মানুষের করোনার কারণে এখন ১০০ জন প্রস্তুতি খরচ লাখ লাখ ডলার
 যুগান্তর ডেস্ক 
১৮ আগস্ট ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
যুক্তরাষ্ট্র
ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক ইতিহাসে ১৮৩০-এর দশক থেকে দলীয় জাতীয় কনভেনশনের রীতি চালু রয়েছে। এ সমাবেশ ঘিরে মার্কিন ভোটারদের থাকে বাড়তি আগ্রহ। দলের পক্ষ থেকে থাকে জমকালো আয়োজন।

এবার একদম আলাদা। মঞ্চ-গ্যালারি মিলিয়ে উপস্থিত থাকবেন হাতে গোনা কয়েকজন। চোখে পড়বে না লাল-নীল-বেগুনি রঙের বেলুন-বৃষ্টি। থাকবে না সমর্থকদের উল্লাস-উচ্ছ্বাস।

হবে না প্রতিনিধিদের সমাগম। ডিজিটাল প্ল্যাটফরমের মাধ্যমে ডেমোক্র্যাটিক দলের জাতীয় সম্মেলন সোমবার থেকে শুরু হয়েছে। চার দিনব্যাপী এ সম্মেলন চলবে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। করোনাভাইরাসের কারণে একেবারে ব্যতিক্রমী এ সম্মেলনেও নজর পুরো বিশ্বের।

ডেমোক্র্যাট দল থেকে এবার প্রেসিডেন্ট প্রার্থী সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। মূলত ট্রাম্পের সঙ্গে নির্বাচনে ৭৭ বছর বয়সী এ প্রবীণ রাজনীতিবিদকে আনুষ্ঠানিক প্রতিদ্বন্দ্বী ঘোষণা করতেই এ সম্মেলন।

‘আমরাই জনগণ’, ‘নেত্বত্বই আসল বিষয়’, ‘আমেরিকার প্রতিশ্রুতি’-স্লোগানে উইসকনসিন রাজ্যের মিলাউকির উইসকনসিন কনভেনশন সেন্টারে শুরু হয়েছে সম্মেলন। ১৩-১৬ জুলাই এ সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা সংক্রমণের কারণে তা এক মাস পিছিয়ে ১৭-২০ আগস্ট সম্মেলনের দিনক্ষণ ধার্য করা হয়।

চার দিনই স্থানীয় সময় রাত ৯-১১টা পর্যন্ত (বাংলাদেশ সময় পরবর্তী দিন সকাল ৭-৯টা) ২ ঘণ্টা করে এ সম্মেলন চলবে। উইসকনসিন একটি গুরুত্বপূর্ণ সুইং স্টেট। আগের ধাঁচে সম্মেলন না হলেও এর প্রস্তুতিতে লাখ লাখ ডলার খরচ করা হয়েছে।

প্রায় ৫০ হাজার ডেমোক্র্যাট প্রতিনিধি ও সমর্থকের উপস্থিতিতে এ সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনার কারণে সব পাল্টে গেছে। সব মিলিয়ে ১০০-রও কম মানুষ এবারের সম্মেলনে উপস্থিত থাকছেন। এমনকি প্রেসিডেন্ট প্রার্থী বাইডেন ও ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী কমলা হ্যারিসও সশরীরে মঞ্চে উপস্থিত থাকবেন না।

সাধারণত সম্মেলনে দলীয় প্রায় চার হাজার ৮০০ প্রতিনিধি উপস্থিত থেকে তাদের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী মনোনীত করেন। দলীয় নীতি কী হবে-তা নির্ধারণ করেন। এরপর ধারাবাহিক বক্তব্য দেন। এবার প্রায় অর্ধেক প্রতিনিধির আগেই রেকর্ড করা বক্তব্য প্রচার করা হবে।

দলীয় প্রতিনিধিরা হলেন : যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট, ফার্স্টলেডি, প্রেসিডেন্ট প্রার্থী, সাবেক এবং বর্তমান গভর্নর, সিনেটর ও হাউস প্রতিনিধি। সম্মেলনের প্রথম দিন ভার্চুয়াল ভাষণ দেবেন সাবেক ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামা, সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্স, নিউইয়র্ক গভর্নর অ্যান্ড্রিউ কুমো, ট্রাম্পের সমালোচক ও রিপাবলিকান দলের সমর্থক জন কাসিচসহ (ওহাইও রাজ্যের সাবেক গভর্নর) কয়েকজন।

মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিন ভাষণ দেবেন জো বাইডেনের স্ত্রী সাবেক সেকেন্ড ফার্স্টলেডি জিল বাইডেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল শেলি ইয়েটস। ১৯ আগস্ট তৃতীয় দিন ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কমলা হ্যারিসের মনোনয়ন চূড়ান্ত করবেন।

এদিন ভাষণ দেবেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন, সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেনসহ কয়েকজন।

২০ আগস্ট সম্মেলনের শেষ দিন ভাষণ দেবেন ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর গ্যাভিন নিউসম, সিনেটর কমলা হ্যারিস ও বাইডেনের পরিবারের সদস্যরা। সমর্থকসহ অন্যান্য ভোটার ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের কাছে টানতে সর্বশেষ ভাষণ দেবেন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী বাইডেন।

ইউটিউবে লাইভ দেখা যাবে এ সম্মেলন। সরাসরি সম্প্রচারিত হবে এবিসি নিউজ, সিবিএস নিউজ, সিএনএন, ফক্স নিউজ, এমএসএনবিসি, এনবিসি নিউজ, পিবিএস নিউজ চ্যানেলে।

ডেমোক্র্যাটিক দলের কনভেনশন শুরুর দিনই উইসকনসিন সফরে যাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মিলাউকির দক্ষিণে ওশকোশ শহরে ভাষণ দেবেন তিনি। ট্রাম্প কর্মসংস্থান ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বাইডেনের ব্যর্থতার ফিরিস্তি তুলে ধরবেন বলে জানিয়েছে রিপাবলিকান প্রচারণা শিবির।

আগামী ২৪ আগস্ট থেকে শুরু হবে রিপাবলিকান দলের কনভেনশন। চলবে ২৭ আগস্ট পর্যন্ত। নর্থ ক্যারোলিনার শার্লটে এ সম্মেলনে সশরীরে উপস্থিত থাকবেন না ট্রাম্প। এখনও অঘোষিত এমন এক স্থান থেকে ভাষণ দেবেন তিনি। জানা গেছে, হোয়াইট হাউসের লন থেকে ভার্চুয়াল ভাষণ দেবেন রিপাবলিকান এ প্রার্থী।

কনভেনশনের মাধ্যমে কি ঐক্য ফিরবে : মহামারীকালে নতুন বাস্তবতায় দাঁড়িয়ে এ সম্মেলন নিয়ে এরই মধ্যে বেশ কিছু প্রশ্ন সামনে হাজির হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ এ রাজনৈতিক সম্মেলন এবার কতটা আবেদন সৃষ্টি করতে পারবে? মার্কিনিরা কনভেনশনের সময় স্ক্রিনের সামনে উপস্থিত থাকবেন তো?

প্রেসিডেন্ট নির্বাচন সামনে রেখে নিজেদের মধ্যে ঐক্য স্থাপন কী সম্ভব হবে? আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ের জন্য নিজেদের মধ্যে ঐক্য স্থাপনই সবচেয়ে জরুরি বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে ডেমোক্র্যাটদের জন্য। গেল নির্বাচনে পরাজয়ের পেছনে সবচেয়ে বেশি যে বিষয়টিকে দায়ী করা হয়, তা হল অনৈক্য।

এবারও সেই দ্বিধাবিভক্ত ডেমোক্র্যাটিক পার্টিই সবার সামনে উপস্থিত হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন-২০২০