ইসরাইলের সঙ্গে চুক্তির অপেক্ষায় আরও ৫ দেশ
jugantor
ইসরাইলের সঙ্গে চুক্তির অপেক্ষায় আরও ৫ দেশ
এয়ারফোর্স ওয়ানের সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইনের পর মধ্যপ্রাচ্যের আরও পাঁচটি দেশ ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকের চুক্তির কথা ভাবছে। তবে কোন দেশগুলো তেল আবিবের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকের কথা ভাবছে তা না বললেও এর মধ্যে তিনটি দেশ মধ্যপ্রাচ্য ও এর আশপাশের অঞ্চলের বলে জানিয়েছেন মিডোজ। হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ মিক মিডোজ বৃহস্পতিবার (স্থানীয় সময়) এক বিবৃতিতে এ খবর নিশ্চিত করেছেন। এ প্রসঙ্গে আর বিস্তারিত বলতে রাজি হননি তিনি। বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, নির্বাচনী প্রচারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে উইসকনসিনে নিয়ে যাওয়া বিমান এয়ার ফোর্স ওয়ানের ভেতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেছেন তিনি। ট্রাম্পের মধ্যস্থতায় গত সপ্তাহে হোয়াইট হাউসে ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকের চুক্তিতে স্বাক্ষর করে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন। শিগগিরই আরও কয়েকটি দেশও একই পথে হাঁটতে যাচ্ছে বলে সে সময়ই ট্রাম্প ইঙ্গিত দিয়েছেন। নতুন যে দেশগুলো তেল আবিবের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনে ইচ্ছুক তার মধ্যে ওমান থাকতে পারে বলে ধারণা অনেক পর্যবেক্ষকের। হোয়াইট হাউসে ইসরাইল-আমিরাত-বাহরাইন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ওমানের রাষ্ট্রদূত উপস্থিত ছিলেন। মধ্যপ্রাচের প্রভাবশালী মার্কিন মিত্র সৌদি আরবও ইসরাইল প্রশ্নে নমনীয় হচ্ছে বলে দেশটির নেয়া কয়েকটি পদক্ষেপে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। ঘটনাচক্রে রিয়াদ তেল আবিবের সঙ্গে চুক্তিতে রাজিও হয়ে যেতে পারে বলে মঙ্গলবারই আভাস দিয়েছিলেন ট্রাম্প।

ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করবে না কুয়েত : কুয়েতের সংসদ স্পিকার মারজুক আল গানিম বলেছেন, ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন না করার নীতিতে তারা অটল থাকবেন। বৃহস্পতিবার কুয়েতে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূত রামি তাহবুবের সঙ্গে বৈঠকে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, কুয়েত আন্তর্জাতিক ইশতেহার অনুযায়ী দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সরকার গঠনের নীতিতে বিশ্বাস করে। কুয়েত জেরুজালেমকে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের রাজধানী বলে মনে করে। স্পিকার আরও বলেন, দখলদার ইসরাইলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইনের সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে কুয়েতের কোনো প্রতিনিধি অংশ নেয়নি।

এদিকে জর্ডানের প্রধানমন্ত্রী ওমার রাজ্জাজ বলেছেন ইসরাইলের একতরফা দখলদারিত্ব বজায় রাখলে মধ্যপ্রাচ্যে কখনও শান্তি আসবে না। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ফিলিস্তিনি জনগণ বৈধ অধিকার না পেলে ন্যায়বিচার অর্জন সম্ভব নয়। তিনি বলেন, জর্ডান আরব দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনায় প্রস্তুত কিন্তু ফিলিস্তিনিদের স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার অধিকার ক্ষুণ্ন করে নয়। জেরুজালেমকে ইসরাইলের দখলে রেখে শান্তিতে পৌঁছানো সম্ভব নয়।

ইসরাইলের সঙ্গে চুক্তির অপেক্ষায় আরও ৫ দেশ

এয়ারফোর্স ওয়ানের সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প
 যুগান্তর ডেস্ক 
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইনের পর মধ্যপ্রাচ্যের আরও পাঁচটি দেশ ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকের চুক্তির কথা ভাবছে। তবে কোন দেশগুলো তেল আবিবের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকের কথা ভাবছে তা না বললেও এর মধ্যে তিনটি দেশ মধ্যপ্রাচ্য ও এর আশপাশের অঞ্চলের বলে জানিয়েছেন মিডোজ। হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ মিক মিডোজ বৃহস্পতিবার (স্থানীয় সময়) এক বিবৃতিতে এ খবর নিশ্চিত করেছেন। এ প্রসঙ্গে আর বিস্তারিত বলতে রাজি হননি তিনি। বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, নির্বাচনী প্রচারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে উইসকনসিনে নিয়ে যাওয়া বিমান এয়ার ফোর্স ওয়ানের ভেতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেছেন তিনি। ট্রাম্পের মধ্যস্থতায় গত সপ্তাহে হোয়াইট হাউসে ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকের চুক্তিতে স্বাক্ষর করে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন। শিগগিরই আরও কয়েকটি দেশও একই পথে হাঁটতে যাচ্ছে বলে সে সময়ই ট্রাম্প ইঙ্গিত দিয়েছেন। নতুন যে দেশগুলো তেল আবিবের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনে ইচ্ছুক তার মধ্যে ওমান থাকতে পারে বলে ধারণা অনেক পর্যবেক্ষকের। হোয়াইট হাউসে ইসরাইল-আমিরাত-বাহরাইন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ওমানের রাষ্ট্রদূত উপস্থিত ছিলেন। মধ্যপ্রাচের প্রভাবশালী মার্কিন মিত্র সৌদি আরবও ইসরাইল প্রশ্নে নমনীয় হচ্ছে বলে দেশটির নেয়া কয়েকটি পদক্ষেপে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। ঘটনাচক্রে রিয়াদ তেল আবিবের সঙ্গে চুক্তিতে রাজিও হয়ে যেতে পারে বলে মঙ্গলবারই আভাস দিয়েছিলেন ট্রাম্প।

ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করবে না কুয়েত : কুয়েতের সংসদ স্পিকার মারজুক আল গানিম বলেছেন, ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন না করার নীতিতে তারা অটল থাকবেন। বৃহস্পতিবার কুয়েতে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূত রামি তাহবুবের সঙ্গে বৈঠকে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, কুয়েত আন্তর্জাতিক ইশতেহার অনুযায়ী দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সরকার গঠনের নীতিতে বিশ্বাস করে। কুয়েত জেরুজালেমকে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের রাজধানী বলে মনে করে। স্পিকার আরও বলেন, দখলদার ইসরাইলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইনের সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে কুয়েতের কোনো প্রতিনিধি অংশ নেয়নি।

এদিকে জর্ডানের প্রধানমন্ত্রী ওমার রাজ্জাজ বলেছেন ইসরাইলের একতরফা দখলদারিত্ব বজায় রাখলে মধ্যপ্রাচ্যে কখনও শান্তি আসবে না। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ফিলিস্তিনি জনগণ বৈধ অধিকার না পেলে ন্যায়বিচার অর্জন সম্ভব নয়। তিনি বলেন, জর্ডান আরব দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনায় প্রস্তুত কিন্তু ফিলিস্তিনিদের স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার অধিকার ক্ষুণ্ন করে নয়। জেরুজালেমকে ইসরাইলের দখলে রেখে শান্তিতে পৌঁছানো সম্ভব নয়।