ভারতেও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বিমান ‘এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান’
jugantor
ভারতেও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বিমান ‘এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান’

  যুগান্তর ডেস্ক  

০২ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মার্কিন প্রেসিডেন্টের মতোই এবার বিশেষ বিমানে সফর করবেন ভারতের রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী। নিñিদ্র নিরাপত্তায় মোড়া, মিসাইল হামলা থেকে সুরক্ষিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে ধরনের বোয়িং বিমান ব্যবহার করেন সেই বোয়িং-৭৭৭ বিমানেরই আধুনিক সংস্করণ আনল ভারত।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের মতোই এবার বিশেষ বিমানে সফর করবেন ভারতের রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী। নিñিদ্র নিরাপত্তায় মোড়া, মিসাইল হামলা থেকে সুরক্ষিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে ধরনের বোয়িং বিমান ব্যবহার করেন সেই বোয়িং-৭৭৭ বিমানেরই আধুনিক সংস্করণ আনল ভারত।

টেক্সাস থেকে উড়ে বৃহস্পতিবার বেলা ৩টায় (স্থানীয় সময়) দিল্লির বিমানবন্দর নামল ভারতের ‘এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান’। শুধু ভারতের প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি ও উপরাষ্ট্রপতির সফরের জন্যই দুটি বোয়িং-৭৭৭ বিমান কেনার চুক্তি হয়েছিল আমেরিকার সঙ্গে। আরেকটি আসতে পারে আজ।

আসার কথা ছিল জুন-জুলাই মাসেই। কিন্তু কিছু যান্ত্রিক সমস্যার জন্য এই সময় পিছিয়ে যায়। টাইমস অব ইন্ডিয়া।

ভিভিআইপিদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি এই এয়ারক্র্যাফটের নাম দেয়া হয়েছে ‘এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান।’ এই দুই বোয়িংয়ের পরিচালনা করবে ভারতীয় বায়ুসেনা।

এতদিন বিদেশে দূরপাল্লার সফরের জন্য এয়ার ইন্ডিয়ার বোয়িং-৭৪৭ বিমান ব্যবহার করতেন ভিভিআইপিরা। এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলে এই বিমানের নাম (কল সাইন) ছিল এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান।

বোয়িংয়ের অত্যাধুনিক সংস্করণের কল সাইনও হতে চলেছে এই নামেই। তবে শোনা যাচ্ছে, বিমানবাহিনী এই দুই বোয়িং নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব নিলে কল সাইন বদলে ‘এয়ার ফোর্স ওয়ান’ও হতে পারে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট যে বোয়িং-৭৭৭ বিমানে চেপে বিদেশ সফরে যান তার নাম বা কল সাইনও এটাই।

আকাশপথে নাশকতা বা সন্ত্রাসবাদীদের হামলা থেকে ভিভিআইপিদের সুরক্ষা দিতে এমন নিরাপত্তার চাদরে মোড়া আধুনিক এয়ারক্র্যাফটের ভাবনা আগেই ছিল প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের।

আমেরিকার বোয়িং-৭৭৭ প্রযুক্তির ধাঁচেই নতুন এয়ারক্রাফট তৈরির জন্য বোয়িংকে বরাত দেয়া হয়েছিল। প্রায় ১৩৩০ কোটি টাকার চুক্তি হয়েছিল আমেরিকার সঙ্গে।

দীর্ঘ অপেক্ষার পরে সেই অত্যাধুনিক এয়ারক্রাফট এসে পৌঁছে দেশে। বোয়িং কমার্শিয়াল এয়ারপ্লেনের তৈরি এই এয়ারক্রাফট প্রযুক্তিতে বোয়িংয়ের বাকি বিমানদের হারিয়ে দেবে। বোয়িং-৭৬৭ ও বোয়িং-৭৪৭ এর পরে এটিই সর্বাধুনিক সংস্করণ বোয়িং-৭৭৭।

বিশাল মাপের এই বিমানে রয়েছে টুইনজেট ফেসিলিটি। ৯,৭০০ থেকে ১৫,৮৪০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে পারে এই বিমান। মাঝ আকাশেই তেল ভরার প্রযুক্তি রয়েছে এই এয়ারক্রাফটের।

ভারতেও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বিমান ‘এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান’

 যুগান্তর ডেস্ক 
০২ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
মার্কিন প্রেসিডেন্টের মতোই এবার বিশেষ বিমানে সফর করবেন ভারতের রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী। নিñিদ্র নিরাপত্তায় মোড়া, মিসাইল হামলা থেকে সুরক্ষিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে ধরনের বোয়িং বিমান ব্যবহার করেন সেই বোয়িং-৭৭৭ বিমানেরই আধুনিক সংস্করণ আনল ভারত।
ছবি: সংগৃহীত

মার্কিন প্রেসিডেন্টের মতোই এবার বিশেষ বিমানে সফর করবেন ভারতের রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী। নিñিদ্র নিরাপত্তায় মোড়া, মিসাইল হামলা থেকে সুরক্ষিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে ধরনের বোয়িং বিমান ব্যবহার করেন সেই বোয়িং-৭৭৭ বিমানেরই আধুনিক সংস্করণ আনল ভারত।

টেক্সাস থেকে উড়ে বৃহস্পতিবার বেলা ৩টায় (স্থানীয় সময়) দিল্লির বিমানবন্দর নামল ভারতের ‘এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান’। শুধু ভারতের প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি ও উপরাষ্ট্রপতির সফরের জন্যই দুটি বোয়িং-৭৭৭ বিমান কেনার চুক্তি হয়েছিল আমেরিকার সঙ্গে। আরেকটি আসতে পারে আজ।

আসার কথা ছিল জুন-জুলাই মাসেই। কিন্তু কিছু যান্ত্রিক সমস্যার জন্য এই সময় পিছিয়ে যায়। টাইমস অব ইন্ডিয়া।

ভিভিআইপিদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি এই এয়ারক্র্যাফটের নাম দেয়া হয়েছে ‘এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান।’ এই দুই বোয়িংয়ের পরিচালনা করবে ভারতীয় বায়ুসেনা।

এতদিন বিদেশে দূরপাল্লার সফরের জন্য এয়ার ইন্ডিয়ার বোয়িং-৭৪৭ বিমান ব্যবহার করতেন ভিভিআইপিরা। এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলে এই বিমানের নাম (কল সাইন) ছিল এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান।

বোয়িংয়ের অত্যাধুনিক সংস্করণের কল সাইনও হতে চলেছে এই নামেই। তবে শোনা যাচ্ছে, বিমানবাহিনী এই দুই বোয়িং নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব নিলে কল সাইন বদলে ‘এয়ার ফোর্স ওয়ান’ও হতে পারে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট যে বোয়িং-৭৭৭ বিমানে চেপে বিদেশ সফরে যান তার নাম বা কল সাইনও এটাই।

আকাশপথে নাশকতা বা সন্ত্রাসবাদীদের হামলা থেকে ভিভিআইপিদের সুরক্ষা দিতে এমন নিরাপত্তার চাদরে মোড়া আধুনিক এয়ারক্র্যাফটের ভাবনা আগেই ছিল প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের।

আমেরিকার বোয়িং-৭৭৭ প্রযুক্তির ধাঁচেই নতুন এয়ারক্রাফট তৈরির জন্য বোয়িংকে বরাত দেয়া হয়েছিল। প্রায় ১৩৩০ কোটি টাকার চুক্তি হয়েছিল আমেরিকার সঙ্গে।

দীর্ঘ অপেক্ষার পরে সেই অত্যাধুনিক এয়ারক্রাফট এসে পৌঁছে দেশে। বোয়িং কমার্শিয়াল এয়ারপ্লেনের তৈরি এই এয়ারক্রাফট প্রযুক্তিতে বোয়িংয়ের বাকি বিমানদের হারিয়ে দেবে। বোয়িং-৭৬৭ ও বোয়িং-৭৪৭ এর পরে এটিই সর্বাধুনিক সংস্করণ বোয়িং-৭৭৭।

বিশাল মাপের এই বিমানে রয়েছে টুইনজেট ফেসিলিটি। ৯,৭০০ থেকে ১৫,৮৪০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে পারে এই বিমান। মাঝ আকাশেই তেল ভরার প্রযুক্তি রয়েছে এই এয়ারক্রাফটের।