ভ্যাকসিন সহায়তায় ১০০ কোটি ডলার দিচ্ছে ব্রিটেন
jugantor
ভ্যাকসিন সহায়তায় ১০০ কোটি ডলার দিচ্ছে ব্রিটেন
ভ্যাকসিন নিয়েছেন রানি এলিজাবেথ ও প্রিন্স ফিলিপ

  যুগান্তর ডেস্ক  

১১ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর করোনাভাইরাস মোকাবিলার জন্য ভ্যাকসিন সরবরাহে ১০০ কোটি ডলার দেবে ব্রিটেন। বৈশ্বিক ম্যাচ-ফান্ডিং প্রকল্পের অধীনে ‘ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে’ করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন সুবিধা দিতে যুক্তরাজ্য বৈশ্বিক দাতা তহবিলে সহযোগিতা এক বিলিয়ন তথা ১০০ কোটি ডলারে উন্নীত করেছে বলে রোববার জানানো হয়।

এদিকে মানুষকে ভ্যাকসিন নিতে উৎসাহ দিতে করোনার টিকা নিয়েছেন রানি এলিজাবেথ ও প্রিন্স ফিলিপ। বিবিসি।

ব্রিটেন বলছে, দাতাদের প্রতিশ্রুত প্রতি চার ডলারের সঙ্গে এক পাউন্ড ম্যাচিংয়ের পর ব্রিটেন ভ্যাকসিন সহায়তায় কোভেক্স অ্যাডভান্স মার্কেট কমিটমেন্টের (এএমসি) অধীনে বাড়তি আরও ৫৪৮ মিলিয়ন পাউন্ড তহবিল সরবরাহে অঙ্গীকার করেছে।

কানাডা, জাপান ও জার্মানিসহ উন্নত দেশগুলো ম্যাচ-ফান্ডিং প্রকল্পের অধীনে ভ্যাকসিন সহায়তায় এএমসি তহবিলে এখন পর্যন্ত ১ দশমিক ৭ বিলিয়ন বা ১৭০ কোটি ডলারের বেশি অর্থ সহায়তা পাওয়া গেছে। ব্রিটেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, এই তহবিল থেকে চলতি বছরে বিশ্বের ৯২টি উন্নয়নশীল দেশে ১০০ কোটির বেশি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সরবরাহ করা হবে।

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়েছেন ব্রিটিশ রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ ও তার স্বামী ডিউক অব অ্যাডিনবার্গ প্রিন্স ফিলিপ। স্থানীয় সময় শনিবার উইন্ডসর প্রাসাদে রাজপরিবারের একজন চিকিৎসক রানি এবং তার স্বামীকে করোনার ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ প্রয়োগ করেন। লকডাউনের পর থেকে ৯৪ বছর বয়সি রানি এবং ৯৯ বছর বয়সি ফিলিপ উইন্ডসর প্রাসাদেই অবস্থান করছেন।

মহামারি করোনা থেকে বাঁচতে যুক্তরাজ্যে এরই মধ্যে ১০ লাখেরও বেশি মানুষ করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন। এদিকে যুক্তরাজ্যে নতুন বৈশিষ্ট্যের করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই প্রতিদিনই আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে।

সংক্রমণ ঠেকাতে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় নতুন করে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। লন্ডনেও জারি করা হয়েছে কঠোর বিধিনিষেধ। করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর তালিকায় একেবারে উপরের দিকে রয়েছে ব্রিটেনের অবস্থান। করোনার পরিসংখ্যানদাতা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডো মিটারের তথ্য অনুযায়ী, দেশটিতে ৩০ লাখ ১৭ হাজার ৪০৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়।

মারা গেছেন ৮০ হাজার ৮৬৮ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৪ লাখ ছয় হাজার ৯৬৭ জন। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনও করোনায় আক্রান্ত হয়ে কিটিক্যাল অবস্থা থেকে সুস্থ হয়েছেন।

গর্ভপাতকৃত ভ্রূণ সেল দিয়ে বানানো ভ্যাকসিন নৈতিকভাবে গ্রহণযোগ্য- ভ্যাটিকান : ভ্যাকসিন নেওয়া মানুষের নৈতিক দায়িত্ব। ফলে এ সপ্তাহে আমরা ভ্যাটিকানে ভ্যাকসিন দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করব।

আমিও ভ্যাকসিন নেব-ইতালির ক্যানালে-৫ চ্যানেলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন পোপ ফ্রান্সিস। সাক্ষাৎকারটিতে ক্যাপিটল হিল তথা মার্কিন কংগ্রেস ভবনে হামলা-তাণ্ডব নিয়ে পোপ বলেন, এটি অবশ্যই নিন্দনীয় ঘটনা।

এদিকে ভ্যাটিকানের এক বিবৃতিতে গর্ভপাতকৃত ভ্রূণের সেল দিয়ে বানানো টিকা নেওয়া নৈতিকভাবে গ্রহণযোগ্য বলে উল্লেখ করা হয়। সিএনএন। ভ্যাটিকানপ্রধান বলেন, ‘ক্যাপিটল হিলের তাণ্ডবে আমি বিস্মিত হয়েছি। কারণ মার্কিন জনগণ গণতন্ত্রে অনেক সুশৃঙ্খল। কিন্তু যা ঘটে গেছে তা বাস্তবতা। এমনকি অনেক ম্যাচিউর সমাজেও অনেক সময় কিছু ভুল ঘটে।

যেমন- কিছু মানুষ সমাজের বিরুদ্ধে, গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে, সর্বোপরি সবার জন্য ভালো বিষয়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। গডকে ধন্যবাদ। এমনটি ঘটেছে এবং আমরা দেখতে পেয়েছি। আমরা বুঝতে পারছি, এর প্রতিকার সম্ভব।

ভ্যাকসিন সহায়তায় ১০০ কোটি ডলার দিচ্ছে ব্রিটেন

ভ্যাকসিন নিয়েছেন রানি এলিজাবেথ ও প্রিন্স ফিলিপ
 যুগান্তর ডেস্ক 
১১ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর করোনাভাইরাস মোকাবিলার জন্য ভ্যাকসিন সরবরাহে ১০০ কোটি ডলার দেবে ব্রিটেন। বৈশ্বিক ম্যাচ-ফান্ডিং প্রকল্পের অধীনে ‘ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে’ করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন সুবিধা দিতে যুক্তরাজ্য বৈশ্বিক দাতা তহবিলে সহযোগিতা এক বিলিয়ন তথা ১০০ কোটি ডলারে উন্নীত করেছে বলে রোববার জানানো হয়।

এদিকে মানুষকে ভ্যাকসিন নিতে উৎসাহ দিতে করোনার টিকা নিয়েছেন রানি এলিজাবেথ ও প্রিন্স ফিলিপ। বিবিসি।

ব্রিটেন বলছে, দাতাদের প্রতিশ্রুত প্রতি চার ডলারের সঙ্গে এক পাউন্ড ম্যাচিংয়ের পর ব্রিটেন ভ্যাকসিন সহায়তায় কোভেক্স অ্যাডভান্স মার্কেট কমিটমেন্টের (এএমসি) অধীনে বাড়তি আরও ৫৪৮ মিলিয়ন পাউন্ড তহবিল সরবরাহে অঙ্গীকার করেছে।

কানাডা, জাপান ও জার্মানিসহ উন্নত দেশগুলো ম্যাচ-ফান্ডিং প্রকল্পের অধীনে ভ্যাকসিন সহায়তায় এএমসি তহবিলে এখন পর্যন্ত ১ দশমিক ৭ বিলিয়ন বা ১৭০ কোটি ডলারের বেশি অর্থ সহায়তা পাওয়া গেছে। ব্রিটেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, এই তহবিল থেকে চলতি বছরে বিশ্বের ৯২টি উন্নয়নশীল দেশে ১০০ কোটির বেশি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সরবরাহ করা হবে।

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়েছেন ব্রিটিশ রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ ও তার স্বামী ডিউক অব অ্যাডিনবার্গ প্রিন্স ফিলিপ। স্থানীয় সময় শনিবার উইন্ডসর প্রাসাদে রাজপরিবারের একজন চিকিৎসক রানি এবং তার স্বামীকে করোনার ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ প্রয়োগ করেন। লকডাউনের পর থেকে ৯৪ বছর বয়সি রানি এবং ৯৯ বছর বয়সি ফিলিপ উইন্ডসর প্রাসাদেই অবস্থান করছেন।

মহামারি করোনা থেকে বাঁচতে যুক্তরাজ্যে এরই মধ্যে ১০ লাখেরও বেশি মানুষ করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন। এদিকে যুক্তরাজ্যে নতুন বৈশিষ্ট্যের করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই প্রতিদিনই আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে।

সংক্রমণ ঠেকাতে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় নতুন করে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। লন্ডনেও জারি করা হয়েছে কঠোর বিধিনিষেধ। করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর তালিকায় একেবারে উপরের দিকে রয়েছে ব্রিটেনের অবস্থান। করোনার পরিসংখ্যানদাতা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডো মিটারের তথ্য অনুযায়ী, দেশটিতে ৩০ লাখ ১৭ হাজার ৪০৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়।

মারা গেছেন ৮০ হাজার ৮৬৮ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৪ লাখ ছয় হাজার ৯৬৭ জন। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনও করোনায় আক্রান্ত হয়ে কিটিক্যাল অবস্থা থেকে সুস্থ হয়েছেন।

গর্ভপাতকৃত ভ্রূণ সেল দিয়ে বানানো ভ্যাকসিন নৈতিকভাবে গ্রহণযোগ্য- ভ্যাটিকান : ভ্যাকসিন নেওয়া মানুষের নৈতিক দায়িত্ব। ফলে এ সপ্তাহে আমরা ভ্যাটিকানে ভ্যাকসিন দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করব।

আমিও ভ্যাকসিন নেব-ইতালির ক্যানালে-৫ চ্যানেলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন পোপ ফ্রান্সিস। সাক্ষাৎকারটিতে ক্যাপিটল হিল তথা মার্কিন কংগ্রেস ভবনে হামলা-তাণ্ডব নিয়ে পোপ বলেন, এটি অবশ্যই নিন্দনীয় ঘটনা।

এদিকে ভ্যাটিকানের এক বিবৃতিতে গর্ভপাতকৃত ভ্রূণের সেল দিয়ে বানানো টিকা নেওয়া নৈতিকভাবে গ্রহণযোগ্য বলে উল্লেখ করা হয়। সিএনএন। ভ্যাটিকানপ্রধান বলেন, ‘ক্যাপিটল হিলের তাণ্ডবে আমি বিস্মিত হয়েছি। কারণ মার্কিন জনগণ গণতন্ত্রে অনেক সুশৃঙ্খল। কিন্তু যা ঘটে গেছে তা বাস্তবতা। এমনকি অনেক ম্যাচিউর সমাজেও অনেক সময় কিছু ভুল ঘটে।

যেমন- কিছু মানুষ সমাজের বিরুদ্ধে, গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে, সর্বোপরি সবার জন্য ভালো বিষয়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। গডকে ধন্যবাদ। এমনটি ঘটেছে এবং আমরা দেখতে পেয়েছি। আমরা বুঝতে পারছি, এর প্রতিকার সম্ভব।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস