বাইডেনের বার্তা শুনেই মার্কিন সীমান্তে অভিবাসী ভিড়
jugantor
বাইডেনের বার্তা শুনেই মার্কিন সীমান্তে অভিবাসী ভিড়
এক কোটি ১০ লাখ অভিবাসীকে নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রস্তাব

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৯ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের এক কোটির বেশি অবৈধ অভিবাসীকে নাগরিকত্ব দেওয়া নিয়ে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সুখবর শুনেই দেশটির সীমান্তে ভিড় জমতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে হন্ডুরাস থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পথে পাড়ি জমিয়েছে নয় হাজার মানুষের এক বিশাল কাফেলা। এই মুহূর্তে প্রতিবেশী দেশ গুয়াতেমালা সীমান্তে অবস্থান করছে তারা। অভিবাসীদের এ মিছিল ঠেকাতে সীমান্তে পাহারা বসিয়েছে গুয়াতেমালার পুলিশ ও সেনাবাহিনী। এই কাফেলার সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে।

বিদায়ি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শাসনামলে এ ধরনের অভিবাসীদের প্রতি কঠোর আচরণ করা হয়েছিল। তবে সর্বশেষ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের নির্বাচনি প্রচারে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, ক্ষমতায় গেলে ট্রাম্পের নীতি পালটে ফেলবেন তিনি। এখন হন্ডুরাস থেকে সহস্রাধিক অভিবাসীর স্রোত এসে ঠেকেছে যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তে। তারা বাইডেনের প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন দেখতে চায়।

অভিবাসীদের অধিকার রক্ষায় কাজ করছে এমন সংগঠন পুয়েবলো সিন ফ্রন্টটিয়ার্স যারা সীমান্তে বিশ্বাস করে না এবং সংগঠনটির পক্ষ থেকে ফক্স নিউজকে বলা হচ্ছে বাইডেন প্রশাসনের উচিত অভিবাসীদের উষ্ণ সংবর্ধনা দেওয়া। গুয়াতেমালার কর্মকর্তারা বলছেন, অন্তত নয় হাজার অভিবাসী এখন যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকে পড়ার অপেক্ষায় রয়েছে। দারিদ্র্য, গ্যাং সন্ত্রাস ও আবহাওয়া দুর্যোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য এসব অভিবাসী হন্ডুরাস ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রে থিতু হতে চায়। এদের প্রায় সবাই হেঁটে মেক্সিকো সীমান্ত পার হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে যেতে চাচ্ছে। এদের একজন ৪০ বছরের অগাস্টিনা রডরিগেজ বলেন, আমরা ইতোমধ্যে গুয়েতেমালায় এসে পড়েছি। যুক্তরাষ্ট্রের দিকে ফের হাঁটছি। ট্রাম্প মেক্সিকো সীমান্তে এই অভিবাসীদের ঠেকাতে দেওয়াল নির্মাণে বরাদ্দ দিয়েছিলেন। এ নিয়ে মেক্সিকোর কাছে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প দেওয়াল নির্মাণের খরচও চেয়েছিলেন। আলজাজিরার খবরে বলা হয়, গুয়াতেমালা অভিবাসন সংস্থার সরবরাহ করা ভিডিওতে দেখা যায়, কয়েকশ অভিবাসী নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে ধস্তাধস্তি করছে। নিরাপত্তা বাহিনী অনেককে ফেরত পাঠাতে পারলেও কেউ কেউ তাদের ঠেলে পালিয়ে যাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে রওনা হওয়া মানুষজনের আশা, যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আশ্রয়প্রার্থীদের স্বাগত জানাবেন। গুয়াতেমালা অভিবাসন সংস্থার মুখপাত্র আলেজান্দ্রা মিনা বলেন, একটি ছোট দল বাধা পার হয়ে চলে গেছে।

বাইডেনের বার্তা শুনেই মার্কিন সীমান্তে অভিবাসী ভিড়

এক কোটি ১০ লাখ অভিবাসীকে নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রস্তাব
 যুগান্তর ডেস্ক 
১৯ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের এক কোটির বেশি অবৈধ অভিবাসীকে নাগরিকত্ব দেওয়া নিয়ে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সুখবর শুনেই দেশটির সীমান্তে ভিড় জমতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে হন্ডুরাস থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পথে পাড়ি জমিয়েছে নয় হাজার মানুষের এক বিশাল কাফেলা। এই মুহূর্তে প্রতিবেশী দেশ গুয়াতেমালা সীমান্তে অবস্থান করছে তারা। অভিবাসীদের এ মিছিল ঠেকাতে সীমান্তে পাহারা বসিয়েছে গুয়াতেমালার পুলিশ ও সেনাবাহিনী। এই কাফেলার সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে।

বিদায়ি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শাসনামলে এ ধরনের অভিবাসীদের প্রতি কঠোর আচরণ করা হয়েছিল। তবে সর্বশেষ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের নির্বাচনি প্রচারে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, ক্ষমতায় গেলে ট্রাম্পের নীতি পালটে ফেলবেন তিনি। এখন হন্ডুরাস থেকে সহস্রাধিক অভিবাসীর স্রোত এসে ঠেকেছে যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তে। তারা বাইডেনের প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন দেখতে চায়।

অভিবাসীদের অধিকার রক্ষায় কাজ করছে এমন সংগঠন পুয়েবলো সিন ফ্রন্টটিয়ার্স যারা সীমান্তে বিশ্বাস করে না এবং সংগঠনটির পক্ষ থেকে ফক্স নিউজকে বলা হচ্ছে বাইডেন প্রশাসনের উচিত অভিবাসীদের উষ্ণ সংবর্ধনা দেওয়া। গুয়াতেমালার কর্মকর্তারা বলছেন, অন্তত নয় হাজার অভিবাসী এখন যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকে পড়ার অপেক্ষায় রয়েছে। দারিদ্র্য, গ্যাং সন্ত্রাস ও আবহাওয়া দুর্যোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য এসব অভিবাসী হন্ডুরাস ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রে থিতু হতে চায়। এদের প্রায় সবাই হেঁটে মেক্সিকো সীমান্ত পার হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে যেতে চাচ্ছে। এদের একজন ৪০ বছরের অগাস্টিনা রডরিগেজ বলেন, আমরা ইতোমধ্যে গুয়েতেমালায় এসে পড়েছি। যুক্তরাষ্ট্রের দিকে ফের হাঁটছি। ট্রাম্প মেক্সিকো সীমান্তে এই অভিবাসীদের ঠেকাতে দেওয়াল নির্মাণে বরাদ্দ দিয়েছিলেন। এ নিয়ে মেক্সিকোর কাছে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প দেওয়াল নির্মাণের খরচও চেয়েছিলেন। আলজাজিরার খবরে বলা হয়, গুয়াতেমালা অভিবাসন সংস্থার সরবরাহ করা ভিডিওতে দেখা যায়, কয়েকশ অভিবাসী নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে ধস্তাধস্তি করছে। নিরাপত্তা বাহিনী অনেককে ফেরত পাঠাতে পারলেও কেউ কেউ তাদের ঠেলে পালিয়ে যাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে রওনা হওয়া মানুষজনের আশা, যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আশ্রয়প্রার্থীদের স্বাগত জানাবেন। গুয়াতেমালা অভিবাসন সংস্থার মুখপাত্র আলেজান্দ্রা মিনা বলেন, একটি ছোট দল বাধা পার হয়ে চলে গেছে।