মিয়ানমারের ছায়া সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করছে চীন
jugantor
মিয়ানমারের ছায়া সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করছে চীন
সশস্ত্র বিক্ষোভ শুরু, বন্দুক-বোমা নিয়ে সেনার বিরুদ্ধে লড়ছে বিক্ষোভকারীরা নিহত ১১ * পুলিশের টার্গেটে তারকা ব্যক্তিত্বরা, জনপ্রিয় অভিনেতা আটক

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৯ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মিয়ানমার

অভ্যুত্থানের পর থেকে জান্তা সরকারকেই প্রচ্ছন্ন সমর্থন দিয়ে আসছে চীন। তাদের সঙ্গেই সবধরনের যোগাযোগ ও বৈঠক করছে। চলমান সংকট সমাধানে এতদিন বারবার সর্বদলীয় সংলাপের আহ্বান জানিয়েছে। কিন্তু এবার মিয়ানমারের সেনাবিরোধী ছায়া সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছে প্রতিবেশী দেশটি। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম দ্য ইরাবতী জানিয়েছে, মিয়ানমারে চীনা দূতাবাস ক্ষমতাচ্যুত দল ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) নেতৃত্বাধীন ছায়া সরকার সিআরপিএইচের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছে। সিআরপিএইচের সঙ্গে এটাই বেইজিংয়ের পক্ষ থেকে প্রথম কোনো আলোচনা।
এদিকে বিভিন্ন ধরনের বিক্ষোভ-প্রতিরোধ আন্দোলনের পর মিয়ানমারে এবার শুরু হয়েছে সশস্ত্র বিক্ষোভ। হাতে তৈরি পাখি শিকারের বন্দুক, ছুরি আর আগুনবোমা নিয়ে জান্তা সেনাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ লড়াই করছে বিক্ষোভকারীরা। বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত মিয়ানমারের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় তেইজ শহরে উভয়পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। তবে এতে বিক্ষোভকারীরাই হাতহত হয়েছে। রয়টার্স জানিয়েছে, অন্তত ১১ বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও ২০ বিক্ষোভকারী। এ ঘটনার পর মৃতের সংখ্যা ৬০০ ছাড়িয়েছে।
চলমান ধরপাকড়ের মধ্যে এবার পুলিশের টার্গেটে পড়েছে দেশের তারকা ব্যক্তিত্বরা। সর্বশেষ এক জনপ্রিয় অভিনেতাকে আটক করা হয়েছে। বিবিসি জানায়, বৃহস্পতিবার সবচেয়ে জনপ্রিয় সেলিব্রেটিদের একজন পাইং তাখনকে আটক করা হয়। অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে সক্রিয় ছিলেন তিনি। চলতি সপ্তাহে কয়েকশ ব্যক্তির বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করা হয়েছে যার মধ্যে রয়েছে শিল্পী, গায়ক ও বিনোদন জগতের ব্যক্তিত্ব। এ বিষয়ে জান্তাপক্ষের কোনো বক্তব্য উদ্ধার করা যায়নি। অ্যাসিসট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনার্স (এএপিপি) জানিয়েছে এ পর্যন্ত দুই হাজার ৮৪৭ জনকে গ্রেফতার করেছে জান্তারা।
মিয়ানমারের জান্তাবিরোধী বিক্ষোভে অন্যতম ইস্যু হয়েছে চীন। বরাবরই দেশটি মিয়ানমারের ‘জান্তাবন্ধু’ হিসাবে নিজেদের অবস্থান রেখে ‘ধরি মাছ, না-ছুঁই পানি’ মনোভাব দেখিয়ে আসছে। চলমান পরিস্থিতি উত্তরণে সব দলের অংশগ্রহণে সংলাপের আহ্বান জানিয়েছে বেইজিং। তবে দ্য ইরাবতী জানায়, ইয়াঙ্গুনে চীনা দূতাবাসের এক শীর্ষ কর্মকর্তা গত সপ্তাহে সিআরপিএইচ প্রতিনিধিদের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন। কথা বলেন চলমান সংকট সমাধানের উপায় নিয়ে।
সেনা শাসনকে চ্যালেঞ্জ করে এনএলডির সাংসদদের নিয়ে গঠিত ছায়া সরকার (সিআরপিএইচ) ইতোমধ্যে দেশে-বিদেশে সুনাম কুড়িয়েছে। বেশ কিছুদিন ধরেই তারা বেইজিংয়ের সঙ্গে সংলাপ বিষয়ে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছিল। তবে গত সপ্তাহেই প্রথমবার চীনা প্রতিনিধির সঙ্গে কথা ( ফোনে) বলার সুযোগ পান। ফোনকল চলাকালীন উভয়পক্ষই অভ্যুত্থান পরবর্তী সেনা সন্ত্রাস বিষয়ে আলোচনা হয়। এ আলোচনায় নির্বাচিত সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরই একমাত্র সমাধান বলে দাবি করেন ছায়া সরকারের ওই প্রতিনিধি। এ সময় নিজেদের ব্যবসায়িক ক্ষতি বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন চীনা প্রতিনিধি। তিনি এ প্রসঙ্গে মনে করিয়ে দেন, প্রকল্পগুলো এনএলডি সরকারই অনুমোদন দিয়েছিল।
লন্ডনের রাস্তায় রাত কাটালেন মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত : লন্ডনে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে দূতাবাস থেকে বের করে দেওয়ার পর বুধবার তিনি ভবনের বাইরে রাস্তায় তার গাড়িতে রাত কাটিয়েছেন। রাষ্ট্রদূত জ জোয়া মিন বলেছেন, দূতাবাসে কর্মরত লোকজনকে ভবন ছেড়ে চলে যাওয়ার আদেশ দেয় মিয়ানমার এবং দেশটির রাষ্ট্রদূতের পদ থেকেও তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।


মিয়ানমারের ছায়া সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করছে চীন

সশস্ত্র বিক্ষোভ শুরু, বন্দুক-বোমা নিয়ে সেনার বিরুদ্ধে লড়ছে বিক্ষোভকারীরা নিহত ১১ * পুলিশের টার্গেটে তারকা ব্যক্তিত্বরা, জনপ্রিয় অভিনেতা আটক
 যুগান্তর ডেস্ক 
০৯ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
মিয়ানমার
সামনে মাইক্রো। তাতে এক বিক্ষোভকারীর লাশ। পেছনে যতদূর দৃষ্টি যায়, বাইক আর বাইক। মিয়ানমারের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় কালে শহরে বৃহস্পতিবার শেষকৃত্যের মিছিলে যোগ দিয়েছেন অভ্যুত্থানবিরোধীরা। এদিন সকাল থেকে শহরে শহরে বিভিন্ন প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেন বিক্ষোভকারীরা। শান্তিপূর্ণ এসব বিক্ষোভেও গুলি চালায় নিরাপত্তা বাহিনী। এতে নিহত হয়েছে আরও ১১ জন -এএফপি

অভ্যুত্থানের পর থেকে জান্তা সরকারকেই প্রচ্ছন্ন সমর্থন দিয়ে আসছে চীন। তাদের সঙ্গেই সবধরনের যোগাযোগ ও বৈঠক করছে। চলমান সংকট সমাধানে এতদিন বারবার সর্বদলীয় সংলাপের আহ্বান জানিয়েছে। কিন্তু এবার মিয়ানমারের সেনাবিরোধী ছায়া সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছে প্রতিবেশী দেশটি। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম দ্য ইরাবতী জানিয়েছে, মিয়ানমারে চীনা দূতাবাস ক্ষমতাচ্যুত দল ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) নেতৃত্বাধীন ছায়া সরকার সিআরপিএইচের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছে। সিআরপিএইচের সঙ্গে এটাই বেইজিংয়ের পক্ষ থেকে প্রথম কোনো আলোচনা। 
এদিকে বিভিন্ন ধরনের বিক্ষোভ-প্রতিরোধ আন্দোলনের পর মিয়ানমারে এবার শুরু হয়েছে সশস্ত্র বিক্ষোভ। হাতে তৈরি পাখি শিকারের বন্দুক, ছুরি আর আগুনবোমা নিয়ে জান্তা সেনাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ লড়াই করছে বিক্ষোভকারীরা। বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত মিয়ানমারের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় তেইজ শহরে উভয়পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। তবে এতে বিক্ষোভকারীরাই হাতহত হয়েছে। রয়টার্স জানিয়েছে, অন্তত ১১ বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও ২০ বিক্ষোভকারী। এ ঘটনার পর মৃতের সংখ্যা ৬০০ ছাড়িয়েছে। 
চলমান ধরপাকড়ের মধ্যে এবার পুলিশের টার্গেটে পড়েছে দেশের তারকা ব্যক্তিত্বরা। সর্বশেষ এক জনপ্রিয় অভিনেতাকে আটক করা হয়েছে। বিবিসি জানায়, বৃহস্পতিবার সবচেয়ে জনপ্রিয় সেলিব্রেটিদের একজন পাইং তাখনকে আটক করা হয়। অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে সক্রিয় ছিলেন তিনি। চলতি সপ্তাহে কয়েকশ ব্যক্তির বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করা হয়েছে যার মধ্যে রয়েছে শিল্পী, গায়ক ও বিনোদন জগতের ব্যক্তিত্ব। এ বিষয়ে জান্তাপক্ষের কোনো বক্তব্য উদ্ধার করা যায়নি। অ্যাসিসট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনার্স (এএপিপি) জানিয়েছে এ পর্যন্ত দুই হাজার ৮৪৭ জনকে গ্রেফতার করেছে জান্তারা।
মিয়ানমারের জান্তাবিরোধী বিক্ষোভে অন্যতম ইস্যু হয়েছে চীন। বরাবরই দেশটি মিয়ানমারের ‘জান্তাবন্ধু’ হিসাবে নিজেদের অবস্থান রেখে ‘ধরি মাছ, না-ছুঁই পানি’ মনোভাব দেখিয়ে আসছে। চলমান পরিস্থিতি উত্তরণে সব দলের অংশগ্রহণে সংলাপের আহ্বান জানিয়েছে বেইজিং। তবে দ্য ইরাবতী জানায়, ইয়াঙ্গুনে চীনা দূতাবাসের এক শীর্ষ কর্মকর্তা গত সপ্তাহে সিআরপিএইচ প্রতিনিধিদের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন। কথা বলেন চলমান সংকট সমাধানের উপায় নিয়ে। 
সেনা শাসনকে চ্যালেঞ্জ করে এনএলডির সাংসদদের নিয়ে গঠিত ছায়া সরকার (সিআরপিএইচ) ইতোমধ্যে দেশে-বিদেশে সুনাম কুড়িয়েছে। বেশ কিছুদিন ধরেই তারা বেইজিংয়ের সঙ্গে সংলাপ বিষয়ে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছিল। তবে গত সপ্তাহেই প্রথমবার চীনা প্রতিনিধির সঙ্গে কথা ( ফোনে) বলার সুযোগ পান। ফোনকল চলাকালীন উভয়পক্ষই অভ্যুত্থান পরবর্তী সেনা সন্ত্রাস বিষয়ে আলোচনা হয়। এ আলোচনায় নির্বাচিত সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরই একমাত্র সমাধান বলে দাবি করেন ছায়া সরকারের ওই প্রতিনিধি। এ সময় নিজেদের ব্যবসায়িক ক্ষতি বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন চীনা প্রতিনিধি। তিনি এ প্রসঙ্গে মনে করিয়ে দেন, প্রকল্পগুলো এনএলডি সরকারই অনুমোদন দিয়েছিল।
লন্ডনের রাস্তায় রাত কাটালেন মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত : লন্ডনে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে দূতাবাস থেকে বের করে দেওয়ার পর বুধবার তিনি ভবনের বাইরে রাস্তায় তার গাড়িতে রাত কাটিয়েছেন। রাষ্ট্রদূত জ জোয়া মিন বলেছেন, দূতাবাসে কর্মরত লোকজনকে ভবন ছেড়ে চলে যাওয়ার আদেশ দেয় মিয়ানমার এবং দেশটির রাষ্ট্রদূতের পদ থেকেও তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।


 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন