আবার আড্ডা জমবে ব্রিটেনে
jugantor
আবার আড্ডা জমবে ব্রিটেনে
১৭ মে থেকে নিষেধাজ্ঞা শিথিল * কারফিউ তুলে নেওয়ায় স্পেনে উৎসব

  যুগান্তর ডেস্ক  

১১ মে ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ব্রিটেনে করোনার তাণ্ডব মোকাবিলায় নানা বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল। এমনকি নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে পারস্পরিক ভালোবাসা ও সৌহার্দ্য বিনিময়েও। আগামী ১৭ মে থেকেই সেসব নিষেধাজ্ঞা উঠে যাচ্ছে। ফলে আগের মতো আবার হইহুল্লোড়, আলিঙ্গন-আড্ডায় মেতে উঠতে পারবেন ব্রিটিশরা। করোনাভাইরাস বিধিনিষেধ ও কারফিউ উঠে যাওয়ায় উৎসবে মেতেছে স্প্যানিশরাও। স্পেনজুড়ে বিভিন্ন নগরীতে শত শত মানুষ রোববার সকালেই ঘরোয়া আড্ডায় অংশ নিতে শুরু করেছে। নেচে-গেয়ে আনন্দ-উল্লাস করছে তারা। বেশিরভাগই বয়সে ছিল তরুণ। খবর সিএনএন ও আলজাজিরার।

টিকাকরণ আর স্বাস্থ্যবিধির যথাযথ প্রয়োগে করোনা জয়ের পথে যুক্তরাজ্য। আর তাই ধাপে ধাপে স্বাস্থ্যবিধি শিথিল করছে দেশটি। প্রথম দুই ধাপে দোকানপাট খুলে দেওয়া, সীমিত পরিসরে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে মিলিত হওয়ার অনুমতি দেয় দেশটির সরকার। এবার তৃতীয় ধাপে সামাজিক দূরত্ব ঘুচিয়ে একে অপরের সঙ্গে সাক্ষাৎ, আবদ্ধ স্থানে একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া ও একে অন্যকে জড়িয়ে ধরতে পারবেন ব্রিটিশরা। আগামী সোমবার (১৭ মে) থেকে সামাজিক দূরত্ব ঘুচিয়ে একে অপরের সঙ্গে সাক্ষাৎ, আবদ্ধ স্থানে একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া ও একে অন্যকে জড়িয়ে ধরতে পারবেন ব্রিটিশরা। একই দিন যুক্তরাজ্য থেকে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল শুরু হবে বলেও জানিয়েছে সরকার। তবে মহামারির এ পর্যায়ে করোনাভাইরাসের কারণে ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচিত দেশগুলোর ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে। সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, স্পেনে মহামারি মোকাবিলায় গত বছরের অক্টোবর থেকে এসব বিধিনিষেধ জারি ছিল। শনিবার মধ্যরাত থেকে দেশটির ১৭টি অঞ্চলের মধ্যে ১৩টি থেকেই রাত ১১টার কারফিউ তুলে নেওয়া হয়। এরপরই দীর্ঘ ছয়মাসের জরুরি অবস্থা অবসানের খুশিতে মানুষ রাস্তায় নেমে আসে। জড়ো হয় বার্সেলোনার সৈকতে। রাজধানী মাদ্রিদের রাস্তায় রাস্তায় মানুষকে উৎসব করতে দেখা গেছে ফুটেজে। কেউই মাস্ক পরা বা সামাজিক দূরত্ব বিধি মানার কোনো তোয়াক্কা করেনি। ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনের মতো করেই তারা আনন্দে চিৎকার করে, হাততালি দিয়ে, গান গেয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছে।

জরুরি অবস্থা উঠে যাওয়ায় কয়েক মাস পর স্প্যানিশরা এই প্রথম এক অঞ্চল থেকে আরেক অঞ্চলে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে। এতদিন বন্দি থেকে হাঁপিয়ে উঠেছিলেন। অনেকেই ছাড়া পেয়ে কেমন লাগছে সে অনুভূতির বর্ণনায় একজন বলেন, ‘আমরা আবার একটু একটু করে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে পাচ্ছি। স্বাধীন অনুভব করছি। কিন্তু আমাদেরকে এও মনে রাখতে হবে যে ভাইরাস এখনও আশপাশেই আছে।’

করোনাভাইরাস মহামারির শুরুতে স্পেনে ঘরে থাকার কড়া নির্দেশ ছিল। এরপর দেশটিতে দ্বিতীয় জরুরি অবস্থা জারি হয় গত অক্টোবরে। এর আওতায় দেশজুড়ে জারি ছিল রাত্রিকালীন কারফিউ, জমায়েতের ওপর নিষেধাজ্ঞা এবং দেশের ভেতরে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। সম্প্রতি দেশটিতে টিকা কর্মসূচির অগ্রগতি এবং কোভিড-১৯ সংক্রমণ স্থিতিশীল অবস্থায় আসার কারণে বেশিরভাগ এলাকা থেকে করোনাভাইরাসের বিধিনিষেধ উঠিয়ে নেওয়া হলো।

আবার আড্ডা জমবে ব্রিটেনে

১৭ মে থেকে নিষেধাজ্ঞা শিথিল * কারফিউ তুলে নেওয়ায় স্পেনে উৎসব
 যুগান্তর ডেস্ক 
১১ মে ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ব্রিটেনে করোনার তাণ্ডব মোকাবিলায় নানা বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল। এমনকি নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে পারস্পরিক ভালোবাসা ও সৌহার্দ্য বিনিময়েও। আগামী ১৭ মে থেকেই সেসব নিষেধাজ্ঞা উঠে যাচ্ছে। ফলে আগের মতো আবার হইহুল্লোড়, আলিঙ্গন-আড্ডায় মেতে উঠতে পারবেন ব্রিটিশরা। করোনাভাইরাস বিধিনিষেধ ও কারফিউ উঠে যাওয়ায় উৎসবে মেতেছে স্প্যানিশরাও। স্পেনজুড়ে বিভিন্ন নগরীতে শত শত মানুষ রোববার সকালেই ঘরোয়া আড্ডায় অংশ নিতে শুরু করেছে। নেচে-গেয়ে আনন্দ-উল্লাস করছে তারা। বেশিরভাগই বয়সে ছিল তরুণ। খবর সিএনএন ও আলজাজিরার।

টিকাকরণ আর স্বাস্থ্যবিধির যথাযথ প্রয়োগে করোনা জয়ের পথে যুক্তরাজ্য। আর তাই ধাপে ধাপে স্বাস্থ্যবিধি শিথিল করছে দেশটি। প্রথম দুই ধাপে দোকানপাট খুলে দেওয়া, সীমিত পরিসরে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে মিলিত হওয়ার অনুমতি দেয় দেশটির সরকার। এবার তৃতীয় ধাপে সামাজিক দূরত্ব ঘুচিয়ে একে অপরের সঙ্গে সাক্ষাৎ, আবদ্ধ স্থানে একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া ও একে অন্যকে জড়িয়ে ধরতে পারবেন ব্রিটিশরা। আগামী সোমবার (১৭ মে) থেকে সামাজিক দূরত্ব ঘুচিয়ে একে অপরের সঙ্গে সাক্ষাৎ, আবদ্ধ স্থানে একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া ও একে অন্যকে জড়িয়ে ধরতে পারবেন ব্রিটিশরা। একই দিন যুক্তরাজ্য থেকে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল শুরু হবে বলেও জানিয়েছে সরকার। তবে মহামারির এ পর্যায়ে করোনাভাইরাসের কারণে ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচিত দেশগুলোর ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে। সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, স্পেনে মহামারি মোকাবিলায় গত বছরের অক্টোবর থেকে এসব বিধিনিষেধ জারি ছিল। শনিবার মধ্যরাত থেকে দেশটির ১৭টি অঞ্চলের মধ্যে ১৩টি থেকেই রাত ১১টার কারফিউ তুলে নেওয়া হয়। এরপরই দীর্ঘ ছয়মাসের জরুরি অবস্থা অবসানের খুশিতে মানুষ রাস্তায় নেমে আসে। জড়ো হয় বার্সেলোনার সৈকতে। রাজধানী মাদ্রিদের রাস্তায় রাস্তায় মানুষকে উৎসব করতে দেখা গেছে ফুটেজে। কেউই মাস্ক পরা বা সামাজিক দূরত্ব বিধি মানার কোনো তোয়াক্কা করেনি। ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনের মতো করেই তারা আনন্দে চিৎকার করে, হাততালি দিয়ে, গান গেয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছে।

জরুরি অবস্থা উঠে যাওয়ায় কয়েক মাস পর স্প্যানিশরা এই প্রথম এক অঞ্চল থেকে আরেক অঞ্চলে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে। এতদিন বন্দি থেকে হাঁপিয়ে উঠেছিলেন। অনেকেই ছাড়া পেয়ে কেমন লাগছে সে অনুভূতির বর্ণনায় একজন বলেন, ‘আমরা আবার একটু একটু করে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে পাচ্ছি। স্বাধীন অনুভব করছি। কিন্তু আমাদেরকে এও মনে রাখতে হবে যে ভাইরাস এখনও আশপাশেই আছে।’

করোনাভাইরাস মহামারির শুরুতে স্পেনে ঘরে থাকার কড়া নির্দেশ ছিল। এরপর দেশটিতে দ্বিতীয় জরুরি অবস্থা জারি হয় গত অক্টোবরে। এর আওতায় দেশজুড়ে জারি ছিল রাত্রিকালীন কারফিউ, জমায়েতের ওপর নিষেধাজ্ঞা এবং দেশের ভেতরে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। সম্প্রতি দেশটিতে টিকা কর্মসূচির অগ্রগতি এবং কোভিড-১৯ সংক্রমণ স্থিতিশীল অবস্থায় আসার কারণে বেশিরভাগ এলাকা থেকে করোনাভাইরাসের বিধিনিষেধ উঠিয়ে নেওয়া হলো।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন