আল-আকসা মসজিদে ইসরাইলি বাহিনীর সহিংসতা চলছেই
jugantor
আল-আকসা মসজিদে ইসরাইলি বাহিনীর সহিংসতা চলছেই

  যুগান্তর ডেস্ক  

১১ মে ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পূর্ব জেরুজালেমে আল-আকসা মসজিদে ইসরাইলি বাহিনী সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে। সোমবার ভোরেও মসজিদে ঢুকে পড়ে তাণ্ডব চালিয়েছে ইসরাইলি বাহিনী। তারা ফিলিস্তিনি মুসল্লিদের ওপর নির্বিচারে রাবার বুলেট, কাঁদানে গ্যাসের শেল ও সাউন্ড গ্রেনেড ছুড়েছে। এতে তিন শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। এ ছাড়া শহরের শেখ জাররাহ এলাকায় ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলা চালিয়েছে ইসরাইলি সেটেলাররা। শুক্রবার থেকে কয়েক দফায় ইসরাইলি পুলিশের সঙ্গে ফিলিস্তিনিদের সংঘর্ষ চলছে। মুসলিমদের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান আল-আকসায় ইসরাইলি বাহিনীর এই তাণ্ডবের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। একে ‘ন্যাক্কারজনক ও নিষ্ঠুর’ অভিহিত করে ইসরাইলকে অবিলম্বে এই তাণ্ডব বন্ধ করার আহ্বান তুরস্ক। অবৈধ ইহুদি বসতি গড়ার জন্য ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদ করে ইসরাইল আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন করছে মন্তব্য করেছে সুইজারল্যান্ড। রোববার এক বিবৃতিতে ইহুদিবাদীদের এ পদক্ষেপ নিন্দার যোগ্য বলেও উল্লেখ করেছে দেশটি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে অবৈধ ইহুদি বসতি স্থাপন নিয়ে ইসরাইল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। জেরুজালেম থেকে নতুন করে ফিলিস্তিনিদের তাড়ানো হবে বলে আশঙ্কা ছড়ানোর পর এই উত্তেজনা শুরু হয়। পবিত্র রমজান মাসের শেষ শুক্রবার অর্থাৎ জুমাতুল বিদা উপলক্ষ্যে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদে জড়ো হলে তাদের ওপর অভিযান চালায় ইসরাইলি পুলিশ। পরদিন পবিত্র শবে কদরের রাতেও তাদের ওপর তাণ্ডব চালানো হয়। এতে শত শত ফিলিস্তিনি আহত হয়েছে। ইসরাইলি জাতীয়তাবাদীরা তাদের বার্ষিক জেরুজালেম ডে ফ্ল্যাগ উপলক্ষ্যে শোভাযাত্রা শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে আল-আকসা প্রাঙ্গণে এ ঘটনা ঘটল। জেরুজালেমে ১৯৬৭ সালের এই দিনে ইসরাইলি দখলদারিত্বকে উদ্যাপন করতে দিবসটি পালন করে ইহুদিরা। তবে ফিলিস্তিনিরা ইহুদিদের দিনটি উদ্যাপনকে উসকানিমূলক বলে মনে করে।

খবরে বলা হয়েছে, পূর্ব জেরুজালেমের শেখ জাররাহ এলাকা থেকে ৭০টির বেশি ফিলিস্তিনি পরিবার উচ্ছেদের ঝুঁকির মুখে পড়েছে। ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের একটি সংস্থার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই পরিবারগুলোকে উচ্ছেদের পক্ষে রায় দিয়েছিল ইসরাইলি আদালত। এর বিরুদ্ধে ইসরাইলের সুপ্রিমকোর্টে আপিল শুনানিকে সামনে রেখে দুই পক্ষে উত্তেজনা দেখা দেয়। তবে রোববার ওই মামলার শুনানি পিছিয়ে গেছে। আগামী ৩০ দিনের মধ্যে নতুন তারিখ দেওয়া হবে। যে কোনো ধরনের উচ্ছেদ কর্মকাণ্ড বন্ধ রাখার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। বিক্ষোভকারীদের প্রতি সর্বোচ্চ সহনশীলতা দেখানোরও আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি। ফিলিস্তিনিদের বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত করার যে কোনো উদ্যোগের বিরুদ্ধে হস্তক্ষেপ করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আরব লিগ।

গত কয়েক দিনে ইসরাইলি সেনা ও অবৈধ বসতি স্থাপনকারী ইহুদিরা ফিলিস্তিনিদের সেখান থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করে। এ নিয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষ হচ্ছে। এরই মধ্যে ইসরাইলি সেনাদের সহিংস হামলায় বহু ফিলিস্তিনি আহত ও বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। ফিলিস্তিনি রেড ক্রিসেন্ট জানায়, সোমবার ইসরাইলি সেনাদের হামলায় আহত ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে ৩০০ জনে দাঁড়িয়েছে।

আল-আকসা মসজিদে ইসরাইলি বাহিনীর সহিংসতা চলছেই

 যুগান্তর ডেস্ক 
১১ মে ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পূর্ব জেরুজালেমে আল-আকসা মসজিদে ইসরাইলি বাহিনী সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে। সোমবার ভোরেও মসজিদে ঢুকে পড়ে তাণ্ডব চালিয়েছে ইসরাইলি বাহিনী। তারা ফিলিস্তিনি মুসল্লিদের ওপর নির্বিচারে রাবার বুলেট, কাঁদানে গ্যাসের শেল ও সাউন্ড গ্রেনেড ছুড়েছে। এতে তিন শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। এ ছাড়া শহরের শেখ জাররাহ এলাকায় ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলা চালিয়েছে ইসরাইলি সেটেলাররা। শুক্রবার থেকে কয়েক দফায় ইসরাইলি পুলিশের সঙ্গে ফিলিস্তিনিদের সংঘর্ষ চলছে। মুসলিমদের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান আল-আকসায় ইসরাইলি বাহিনীর এই তাণ্ডবের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। একে ‘ন্যাক্কারজনক ও নিষ্ঠুর’ অভিহিত করে ইসরাইলকে অবিলম্বে এই তাণ্ডব বন্ধ করার আহ্বান তুরস্ক। অবৈধ ইহুদি বসতি গড়ার জন্য ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদ করে ইসরাইল আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন করছে মন্তব্য করেছে সুইজারল্যান্ড। রোববার এক বিবৃতিতে ইহুদিবাদীদের এ পদক্ষেপ নিন্দার যোগ্য বলেও উল্লেখ করেছে দেশটি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে অবৈধ ইহুদি বসতি স্থাপন নিয়ে ইসরাইল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। জেরুজালেম থেকে নতুন করে ফিলিস্তিনিদের তাড়ানো হবে বলে আশঙ্কা ছড়ানোর পর এই উত্তেজনা শুরু হয়। পবিত্র রমজান মাসের শেষ শুক্রবার অর্থাৎ জুমাতুল বিদা উপলক্ষ্যে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদে জড়ো হলে তাদের ওপর অভিযান চালায় ইসরাইলি পুলিশ। পরদিন পবিত্র শবে কদরের রাতেও তাদের ওপর তাণ্ডব চালানো হয়। এতে শত শত ফিলিস্তিনি আহত হয়েছে। ইসরাইলি জাতীয়তাবাদীরা তাদের বার্ষিক জেরুজালেম ডে ফ্ল্যাগ উপলক্ষ্যে শোভাযাত্রা শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে আল-আকসা প্রাঙ্গণে এ ঘটনা ঘটল। জেরুজালেমে ১৯৬৭ সালের এই দিনে ইসরাইলি দখলদারিত্বকে উদ্যাপন করতে দিবসটি পালন করে ইহুদিরা। তবে ফিলিস্তিনিরা ইহুদিদের দিনটি উদ্যাপনকে উসকানিমূলক বলে মনে করে।

খবরে বলা হয়েছে, পূর্ব জেরুজালেমের শেখ জাররাহ এলাকা থেকে ৭০টির বেশি ফিলিস্তিনি পরিবার উচ্ছেদের ঝুঁকির মুখে পড়েছে। ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের একটি সংস্থার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই পরিবারগুলোকে উচ্ছেদের পক্ষে রায় দিয়েছিল ইসরাইলি আদালত। এর বিরুদ্ধে ইসরাইলের সুপ্রিমকোর্টে আপিল শুনানিকে সামনে রেখে দুই পক্ষে উত্তেজনা দেখা দেয়। তবে রোববার ওই মামলার শুনানি পিছিয়ে গেছে। আগামী ৩০ দিনের মধ্যে নতুন তারিখ দেওয়া হবে। যে কোনো ধরনের উচ্ছেদ কর্মকাণ্ড বন্ধ রাখার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। বিক্ষোভকারীদের প্রতি সর্বোচ্চ সহনশীলতা দেখানোরও আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি। ফিলিস্তিনিদের বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত করার যে কোনো উদ্যোগের বিরুদ্ধে হস্তক্ষেপ করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আরব লিগ।

গত কয়েক দিনে ইসরাইলি সেনা ও অবৈধ বসতি স্থাপনকারী ইহুদিরা ফিলিস্তিনিদের সেখান থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করে। এ নিয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষ হচ্ছে। এরই মধ্যে ইসরাইলি সেনাদের সহিংস হামলায় বহু ফিলিস্তিনি আহত ও বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। ফিলিস্তিনি রেড ক্রিসেন্ট জানায়, সোমবার ইসরাইলি সেনাদের হামলায় আহত ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে ৩০০ জনে দাঁড়িয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন