ডেঙ্গি জ্বরে সুখবর
jugantor
ডেঙ্গি জ্বরে সুখবর
৭৭ শতাংশ প্রকোপ কমাবে ব্যাকটেরিয়া

  যুগান্তর ডেস্ক  

১১ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ডেঙ্গি জ্বর নিয়ে সুখবর দিলেন বিজ্ঞানীরা। ওলবাকিয়া নামের ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত মশা থেকে ডেঙ্গি জ্বরের প্রকোপ ৭৭ শতাংশ কমিয়ে আনা যাবে বলে মনে করছেন তারা। আপাতত ছোট পরিসরে করা এ গবেষণায় সুফল পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। আরও বড় পরিসরে গবেষণার পর এটি ডেঙ্গি প্রতিরোধে কার্যকর ফলাফল আনবে বলে আশা করছেন তারা। বিবিসি। ইন্দোনেশিয়ার ইয়োগিয়াকার্তা শহরে ডেঙ্গি ভাইরাসের বিরুদ্ধে এ গবেষণা চালানো হয়েছে। নতুন এ পদ্ধতিতে ডেঙ্গি ভাইরাসের সংক্রমণ নির্মূল করা যাবে বলে আশা করছেন বিজ্ঞানীরা। দ্য ওয়ার্ল্ড মস্কুইটো প্রোগ্রাম জানিয়েছে, বিশ্বব্যাপী ডেঙ্গি সংক্রমণ রোধে কার্যকর সমাধান হতে পারে এটি।

পরীক্ষামূলক গবেষণায় ‘ওলবাকিয়া’ নামের ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত মশা ব্যবহার করা হয়েছে। গবেষক কেটি আন্দ্রেজ এই ব্যাকটেরিয়াকে ‘অলৌকিক’ ব্যাকটেরিয়া হিসাবে অভিহিত করেছেন। ওলবাকিয়া নামের এই ব্যাকটেরিয়া মশাদের কোনো ক্ষতি করে না। মশার শরীরের যে অংশ দিয়ে ডেঙ্গি ভাইরাস প্রবেশ করে, এ ভাইরাস সে অংশটি নিষ্ক্রিয় করে দেয়। এ কারণে কামড়ানোর পর মশা থেকে সংক্রমণের মাত্রা কমে যায়। পরীক্ষামূলক ওই গবেষণায় মশার ৫০ লাখ ডিম ওলবাকিয়া ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত করা হয়। বালতিভর্তি পানিতে মশার ডিমগুলো রাখা হয়। প্রতি দুই সপ্তাহে একবার মশার ডিমগুলো রাখা হয়। সেগুলো ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত হতে ৯ মাস সময় লাগে। এরপর ইয়োগিয়াকার্তা শহরের ২৪টি এলাকায় অর্ধেক মশা ছেড়ে দেওয়া হয়। গবেষণাটির ফলাফল নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিনে প্রকাশিত হয়েছে। এতে দেখা গেছে, এতে ডেঙ্গি সংক্রমণের হার ৭৭ শতাংশ কমেছে। আর ৮৬ শতাংশ রোগীর হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন হয়নি। কেটি আন্দ্রেজ বলেছেন, ‘আমরা যা আশা করেছিলাম, ফলাফল তার চেয়েও ভালো।’

ডেঙ্গি জ্বরে সুখবর

৭৭ শতাংশ প্রকোপ কমাবে ব্যাকটেরিয়া
 যুগান্তর ডেস্ক 
১১ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ডেঙ্গি জ্বর নিয়ে সুখবর দিলেন বিজ্ঞানীরা। ওলবাকিয়া নামের ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত মশা থেকে ডেঙ্গি জ্বরের প্রকোপ ৭৭ শতাংশ কমিয়ে আনা যাবে বলে মনে করছেন তারা। আপাতত ছোট পরিসরে করা এ গবেষণায় সুফল পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। আরও বড় পরিসরে গবেষণার পর এটি ডেঙ্গি প্রতিরোধে কার্যকর ফলাফল আনবে বলে আশা করছেন তারা। বিবিসি। ইন্দোনেশিয়ার ইয়োগিয়াকার্তা শহরে ডেঙ্গি ভাইরাসের বিরুদ্ধে এ গবেষণা চালানো হয়েছে। নতুন এ পদ্ধতিতে ডেঙ্গি ভাইরাসের সংক্রমণ নির্মূল করা যাবে বলে আশা করছেন বিজ্ঞানীরা। দ্য ওয়ার্ল্ড মস্কুইটো প্রোগ্রাম জানিয়েছে, বিশ্বব্যাপী ডেঙ্গি সংক্রমণ রোধে কার্যকর সমাধান হতে পারে এটি।

পরীক্ষামূলক গবেষণায় ‘ওলবাকিয়া’ নামের ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত মশা ব্যবহার করা হয়েছে। গবেষক কেটি আন্দ্রেজ এই ব্যাকটেরিয়াকে ‘অলৌকিক’ ব্যাকটেরিয়া হিসাবে অভিহিত করেছেন। ওলবাকিয়া নামের এই ব্যাকটেরিয়া মশাদের কোনো ক্ষতি করে না। মশার শরীরের যে অংশ দিয়ে ডেঙ্গি ভাইরাস প্রবেশ করে, এ ভাইরাস সে অংশটি নিষ্ক্রিয় করে দেয়। এ কারণে কামড়ানোর পর মশা থেকে সংক্রমণের মাত্রা কমে যায়। পরীক্ষামূলক ওই গবেষণায় মশার ৫০ লাখ ডিম ওলবাকিয়া ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত করা হয়। বালতিভর্তি পানিতে মশার ডিমগুলো রাখা হয়। প্রতি দুই সপ্তাহে একবার মশার ডিমগুলো রাখা হয়। সেগুলো ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত হতে ৯ মাস সময় লাগে। এরপর ইয়োগিয়াকার্তা শহরের ২৪টি এলাকায় অর্ধেক মশা ছেড়ে দেওয়া হয়। গবেষণাটির ফলাফল নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিনে প্রকাশিত হয়েছে। এতে দেখা গেছে, এতে ডেঙ্গি সংক্রমণের হার ৭৭ শতাংশ কমেছে। আর ৮৬ শতাংশ রোগীর হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন হয়নি। কেটি আন্দ্রেজ বলেছেন, ‘আমরা যা আশা করেছিলাম, ফলাফল তার চেয়েও ভালো।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন