দরিদ্র দেশগুলোকে একশ কোটি টিকা দিচ্ছে জি-৭
jugantor
দরিদ্র দেশগুলোকে একশ কোটি টিকা দিচ্ছে জি-৭

  যুগান্তর ডেস্ক  

১২ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনা মহামারী মোকাবিলায় দরিদ্র দেশগুলোকে ১০০ কোটি টিকা দিচ্ছেন জি-৭-এর নেতারা। সম্মেলন শুরুর আগে বৃহস্পতিবার করোনা সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই জোরদার করতে ফাইজারের ৫০ কোটি ডোজ টিকাদানের ঘোষণা দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ঘণ্টাখানেক পরই ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন জানান, যুক্তরাজ্যের পক্ষ থেকে তিনি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন, উদ্বৃত্ত থাকা কমপক্ষে ১০ কোটি ডোজ টিকা দরিদ্র দেশগুলোতে বিতরণ করবে তার দেশ। করোনা মহামারির মধ্যে ইংল্যান্ডের পর্যটন শহর কর্নওয়ালের সেন্ট আইভসে শুক্রবার শুরু হয়েছে শিল্পোন্নত দেশগুলোর জোট জি-৭ সম্মেলন। এই সম্মেলন শুরুর প্রাক্কালে বিশ্বকে টিকা দান করার বিষয়ে যুক্তরাজ্যের কাছ থেকে সুখবর এলো।

বিশ্বের বিশেষ করে নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলো করোনার টিকার বড় ধরনের সংকটে রয়েছে। অন্যদিকে বিশ্বের ধনী দেশগুলো ইতোমধ্যে বিপুল সংখ্যায় করোনার টিকা কিনে নিয়েছে। এ নিয়ে বিশ্বজুড়ে তীব্র সমালোচনা চলছে। টিকার ন্যায্য বণ্টন নিশ্চিত করতে জন্য ধনী দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানানো হচ্ছে। দরিদ্র দেশগুলোর সঙ্গে টিকার বাড়তি মজুত ভাগ করে নেওয়ার পাশাপাশি আর্থিক সহায়তার জন্য ধনী দেশগুলোর ওপর চাপ বাড়ছে। এমন প্রেক্ষাপটে গত সপ্তাহেই দরিদ্র দেশগুলোর টিকার ব্যবস্থা করতে

জি-৭ নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান সাবেক দুই শতাধিক নেতারা। যার মধ্যে বিভিন্ন দেশের শতাধিক প্রধানমন্ত্রী, প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন।

রয়টার্স জানিয়েছে, চলমান সম্মেলনেই জি-৭ নেতারা টিকা দান করার বিষয়ে অঙ্গীকার করতে যাচ্ছেন। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ও দপ্তর ডাউনিং স্ট্রিটের এক বিবৃতিতে বলা হয়, জি-৭ সম্মেলনে শীর্ষ নেতারা বিশ্বকে অন্তত ১০০ কোটি (১ বিলিয়ন) ডোজ করোনার টিকা দেওয়ার বিষয়ে ঘোষণা দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে। টিকা ভাগ করে নেওয়ার পাশাপাশি অর্থায়নের মাধ্যমে এই দান করা হবে।

ব্রাজিলে টিকা নিলে মাস্ক পরতে হবে না, জানালেন প্রেসিডেন্ট : যারা করোনাভাইরাসের টিকা নিয়েছেন তাদের মাস্ক পরার প্রয়োজন নেই বলে মন্তব্য করেছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো। বৃহস্পতিবার তিনি বলেছেন, ‘যারা করোনার টিকা নিয়েছেন ও আগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের মাস্ক পরার প্রয়োজন নেই।’ ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ নিয়ম চালুর প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও জানান তিনি। রয়টার্স।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বলসোনারো আরও বলেন, ‘যারা করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন শুধু তাদের জন্যই কোয়ারেন্টিন প্রয়োজন।’ করোনার সংক্রমণ রোধে বলসোনারো বরাবরই লকডাউন ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার বিরোধী। সংক্রমিত দেশের তালিকায় ব্রাজিলের অবস্থান তৃতীয়। মৃত্যুর হিসাবে দুই নম্বরে রয়েছে দেশটি। এ পর্যন্ত ব্রাজিলে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এক কোটি ৭২ লাখ ১৫ হাজার মানুষ। দেশটিতে করোনায় মৃত্যু হয়েছে চার লাখ ৮২ হাজার ১৩৫ জনের।

টিকা নেওয়ার পরও ভারতীয়দের ভিসা দিচ্ছে না চীন : টিকা দেওয়া নিয়ে ভিসা জটিলতায় পড়েছে ভারত। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা স্বীকৃত টিকা না দিলে কোনো কোনো দেশের ভিসা পাচ্ছেন না ভারতীয়রা। চীনা টিকা না নিলে ভিসা দেওয়া হবে না, গত মার্চ থেকেই এই নিয়ম কার্যকর করেছে চীন। তার আগে গত নভেম্বরেই ভারতসহ বেশ কয়েকটি দেশের নাগরিকদের ওপর নির্দেশ জারি করেছিল চীন। যে কারণে বিপাকে পড়েছেন বহু ভারতীয়। এই পরিস্থিতিতেই চীনের কাছে নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার আবেদন জানাল ভারত। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘বর্তমানে চীন থেকে সে দেশের নাগরিকসহ যে কেউ ভারতে প্রবেশ করতে পারেন বিনা বাধায়। কিন্তু গত নভেম্বর থেকে ভারতীয়দের পক্ষে চীনে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না, কারণ সব পুরোনো ভিসাই বাতিল করে দিয়েছে চীনা সরকার।’

দরিদ্র দেশগুলোকে একশ কোটি টিকা দিচ্ছে জি-৭

 যুগান্তর ডেস্ক 
১২ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনা মহামারী মোকাবিলায় দরিদ্র দেশগুলোকে ১০০ কোটি টিকা দিচ্ছেন জি-৭-এর নেতারা। সম্মেলন শুরুর আগে বৃহস্পতিবার করোনা সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই জোরদার করতে ফাইজারের ৫০ কোটি ডোজ টিকাদানের ঘোষণা দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ঘণ্টাখানেক পরই ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন জানান, যুক্তরাজ্যের পক্ষ থেকে তিনি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন, উদ্বৃত্ত থাকা কমপক্ষে ১০ কোটি ডোজ টিকা দরিদ্র দেশগুলোতে বিতরণ করবে তার দেশ। করোনা মহামারির মধ্যে ইংল্যান্ডের পর্যটন শহর কর্নওয়ালের সেন্ট আইভসে শুক্রবার শুরু হয়েছে শিল্পোন্নত দেশগুলোর জোট জি-৭ সম্মেলন। এই সম্মেলন শুরুর প্রাক্কালে বিশ্বকে টিকা দান করার বিষয়ে যুক্তরাজ্যের কাছ থেকে সুখবর এলো।

বিশ্বের বিশেষ করে নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলো করোনার টিকার বড় ধরনের সংকটে রয়েছে। অন্যদিকে বিশ্বের ধনী দেশগুলো ইতোমধ্যে বিপুল সংখ্যায় করোনার টিকা কিনে নিয়েছে। এ নিয়ে বিশ্বজুড়ে তীব্র সমালোচনা চলছে। টিকার ন্যায্য বণ্টন নিশ্চিত করতে জন্য ধনী দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানানো হচ্ছে। দরিদ্র দেশগুলোর সঙ্গে টিকার বাড়তি মজুত ভাগ করে নেওয়ার পাশাপাশি আর্থিক সহায়তার জন্য ধনী দেশগুলোর ওপর চাপ বাড়ছে। এমন প্রেক্ষাপটে গত সপ্তাহেই দরিদ্র দেশগুলোর টিকার ব্যবস্থা করতে

জি-৭ নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান সাবেক দুই শতাধিক নেতারা। যার মধ্যে বিভিন্ন দেশের শতাধিক প্রধানমন্ত্রী, প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন।

রয়টার্স জানিয়েছে, চলমান সম্মেলনেই জি-৭ নেতারা টিকা দান করার বিষয়ে অঙ্গীকার করতে যাচ্ছেন। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ও দপ্তর ডাউনিং স্ট্রিটের এক বিবৃতিতে বলা হয়, জি-৭ সম্মেলনে শীর্ষ নেতারা বিশ্বকে অন্তত ১০০ কোটি (১ বিলিয়ন) ডোজ করোনার টিকা দেওয়ার বিষয়ে ঘোষণা দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে। টিকা ভাগ করে নেওয়ার পাশাপাশি অর্থায়নের মাধ্যমে এই দান করা হবে।

ব্রাজিলে টিকা নিলে মাস্ক পরতে হবে না, জানালেন প্রেসিডেন্ট : যারা করোনাভাইরাসের টিকা নিয়েছেন তাদের মাস্ক পরার প্রয়োজন নেই বলে মন্তব্য করেছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো। বৃহস্পতিবার তিনি বলেছেন, ‘যারা করোনার টিকা নিয়েছেন ও আগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের মাস্ক পরার প্রয়োজন নেই।’ ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ নিয়ম চালুর প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও জানান তিনি। রয়টার্স।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বলসোনারো আরও বলেন, ‘যারা করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন শুধু তাদের জন্যই কোয়ারেন্টিন প্রয়োজন।’ করোনার সংক্রমণ রোধে বলসোনারো বরাবরই লকডাউন ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার বিরোধী। সংক্রমিত দেশের তালিকায় ব্রাজিলের অবস্থান তৃতীয়। মৃত্যুর হিসাবে দুই নম্বরে রয়েছে দেশটি। এ পর্যন্ত ব্রাজিলে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এক কোটি ৭২ লাখ ১৫ হাজার মানুষ। দেশটিতে করোনায় মৃত্যু হয়েছে চার লাখ ৮২ হাজার ১৩৫ জনের।

টিকা নেওয়ার পরও ভারতীয়দের ভিসা দিচ্ছে না চীন : টিকা দেওয়া নিয়ে ভিসা জটিলতায় পড়েছে ভারত। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা স্বীকৃত টিকা না দিলে কোনো কোনো দেশের ভিসা পাচ্ছেন না ভারতীয়রা। চীনা টিকা না নিলে ভিসা দেওয়া হবে না, গত মার্চ থেকেই এই নিয়ম কার্যকর করেছে চীন। তার আগে গত নভেম্বরেই ভারতসহ বেশ কয়েকটি দেশের নাগরিকদের ওপর নির্দেশ জারি করেছিল চীন। যে কারণে বিপাকে পড়েছেন বহু ভারতীয়। এই পরিস্থিতিতেই চীনের কাছে নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার আবেদন জানাল ভারত। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘বর্তমানে চীন থেকে সে দেশের নাগরিকসহ যে কেউ ভারতে প্রবেশ করতে পারেন বিনা বাধায়। কিন্তু গত নভেম্বর থেকে ভারতীয়দের পক্ষে চীনে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না, কারণ সব পুরোনো ভিসাই বাতিল করে দিয়েছে চীনা সরকার।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন