ইসলামকে উৎখাত করতে চাইছে চীন : অ্যামনেস্টি
jugantor
ইসলামকে উৎখাত করতে চাইছে চীন : অ্যামনেস্টি

  যুগান্তর ডেস্ক  

১২ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চীনের ইসলাম বিদ্বেষ এখন চরমে। দেশটির সংখ্যালঘু উইঘুর সম্প্রদায় নিয়ে মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের নতুন এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। এতে অভিযোগ করা হয়, চীন ইসলামকে মুছে ফেলতে চাইছে। ১৬০ পাতার ওই প্রতিবেদেনের শিরোনাম, ‘আমরা যেন যুদ্ধে শত্রুপক্ষ’। সংস্থাটির ওয়েবসাইটে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। এ প্রতিবেদনের সারমর্ম প্রকাশ করেছে বিবিসি। অ্যামনেস্টি ২০১৯ সালের অক্টোবর থেকে গত মে পর্যন্ত এ গবেষণা পরিচালনা করেছে। তারা ১২৮ জনের সাক্ষাৎকার নিয়েছে। তার মধ্যে ৫৫ জন চীনের উইঘুর শিবিরে ছিলেন। আর ৬৮ জন সেই সব পরিবারের সদস্য- যাদের কেউ হারিয়ে গেছেন বা আটক করা হয়েছে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে।

প্রতিবেদন বলছে, শিনজিয়াং-এ ১০ লাখের বেশি মানুষকে শিবিরে পাঠানো হয়েছে। মুসলিমদের ভয় দেখানোর জন্য চীন তাদের ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক স্থানগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। প্রচুর সাক্ষী অ্যামনেস্টিকে বলেছেন, চীন ইসলামকেই মুছে ফেলতে চায়। সাক্ষাৎকারদাতাদের অনেকেই বলেছেন, তারা চীনে নিজেদের ধর্মাচরণ করতে ভয় পাচ্ছেন। কারণ তারা জানেন যে, রাষ্ট্র তাদের ওপর নজর রাখছে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, কোনো রকম সতর্কতা ছাড়াই উইঘুরদের মাঝরাতে বাড়ি থেকে তুলে শিবিরে নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের তথাকথিত শিক্ষা-শিবিরে নিয়ে যাওয়া হয় এবং জোর করে নিজেদের অপরাধের কথা স্বীকার করানো হয়।

ইসলামকে উৎখাত করতে চাইছে চীন : অ্যামনেস্টি

 যুগান্তর ডেস্ক 
১২ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চীনের ইসলাম বিদ্বেষ এখন চরমে। দেশটির সংখ্যালঘু উইঘুর সম্প্রদায় নিয়ে মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের নতুন এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। এতে অভিযোগ করা হয়, চীন ইসলামকে মুছে ফেলতে চাইছে। ১৬০ পাতার ওই প্রতিবেদেনের শিরোনাম, ‘আমরা যেন যুদ্ধে শত্রুপক্ষ’। সংস্থাটির ওয়েবসাইটে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। এ প্রতিবেদনের সারমর্ম প্রকাশ করেছে বিবিসি। অ্যামনেস্টি ২০১৯ সালের অক্টোবর থেকে গত মে পর্যন্ত এ গবেষণা পরিচালনা করেছে। তারা ১২৮ জনের সাক্ষাৎকার নিয়েছে। তার মধ্যে ৫৫ জন চীনের উইঘুর শিবিরে ছিলেন। আর ৬৮ জন সেই সব পরিবারের সদস্য- যাদের কেউ হারিয়ে গেছেন বা আটক করা হয়েছে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে।

প্রতিবেদন বলছে, শিনজিয়াং-এ ১০ লাখের বেশি মানুষকে শিবিরে পাঠানো হয়েছে। মুসলিমদের ভয় দেখানোর জন্য চীন তাদের ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক স্থানগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। প্রচুর সাক্ষী অ্যামনেস্টিকে বলেছেন, চীন ইসলামকেই মুছে ফেলতে চায়। সাক্ষাৎকারদাতাদের অনেকেই বলেছেন, তারা চীনে নিজেদের ধর্মাচরণ করতে ভয় পাচ্ছেন। কারণ তারা জানেন যে, রাষ্ট্র তাদের ওপর নজর রাখছে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, কোনো রকম সতর্কতা ছাড়াই উইঘুরদের মাঝরাতে বাড়ি থেকে তুলে শিবিরে নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের তথাকথিত শিক্ষা-শিবিরে নিয়ে যাওয়া হয় এবং জোর করে নিজেদের অপরাধের কথা স্বীকার করানো হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন