পুতিনের বিমানে সোনার টয়লেট
jugantor
পুতিনের বিমানে সোনার টয়লেট

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৯ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জেনেভায় রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র সম্মেলনের পর নতুন করে আলোচনায় উঠে এসেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। টানা ১৯ বছর ধরে রাশিয়া শাসন করা এই নেতার বিলাসী জীবন নিয়েও কৌতূহলী হয়ে উঠেছে বিশ্ব। কোথায় থাকেন? কোন বিমানে উড়ে বেড়ান-এসব নানাবিধ জিজ্ঞাসায় মেতে উঠেছে পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলো। বিশেষ করে যে বিমানটিতে চড়ে বুধবার তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেনের সঙ্গে সাক্ষাতে আসেন সেটির রাজকীয় আভিজাত্য নিয়ে। পুতিনকে নিয়মিত বহনকারী বিমানটির মূল্য বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় চার হাজার ৬০০ কোটি টাকা। নাম ফ্লাইং ক্রেমলিন। বিমানটি তৈরি করেছে ভোরোনেজ এয়ারক্রাফট প্রোডাকশন অ্যাসোসিয়েশন। এর সর্বোচ্চ গতি ঘণ্টায় ৫৬০ কিলোমিটার। বিলাসবহুল এ বিমানের টয়লেটটিও সোনায় মোড়ানো। ভেতরে থাকা কনফারেন্স টেবিলটিও নকশা করা সোনার পাত দিয়ে ঘেরা। আরও রয়েছে বিলাসী বেডরুম, স্বয়ংসম্পূর্ণ ব্যায়ামাগার এবং পানশালা। ক্রিম রঙের আরামদায়ক মূল্যবান চামড়া দিয়ে মোড়ানো এর আসনগুলো।

বিমানটি পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছে রাশিয়া এয়ারলাইন্স। ফ্লাইং ক্রেমলিন নামে ডাকলেও বিমানটির দাপ্তরিক নাম ইলিউশন-২-৯৬-৩০০ পিইউ। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে বিমানটিতে এন্টি মিসাইল প্রটেকশন রয়েছে। এতে রয়েছেন দু’জন ক্রু সদস্য। বিমানের প্রতি কোনায় রয়েছে রাষ্ট্রীয় আভিজাত্যের নমুনা। রয়েছে প্রয়োজনীয় কমান্ড সেন্টারও। যেখান থেকে সেনাবাহিনীকে পরিচালনা করা যায়। ফলে বিমান ভ্রমণে থাকলেও যুদ্ধ পরিচালনায় কোনো সমস্যা হওয়ার কথা নয় তার। শুধু বিমানের ক্ষেত্রেই নয়, তার বাসস্থানের ক্ষেত্রেও বিলাসবহুল জীবন কাটাচ্ছেন পুতিন। তিনি এখন যে বাড়িতে থাকছেন তার মূল্য ১০০ কোটি পাউন্ড। এ ‘রাজপ্রাসাদে’ রয়েছে স্ট্রিপক্লাব, ক্যাসিনো এবং একটি থিয়েটার। এ কারণে রাশিয়ার আলোচিত বিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনি বলেছেন, বাড়িটি ‘রহস্যঘেরা’। নাভালনির দাবি অনুযায়ী, অনেক ঝামেলা রয়েছে বাড়িটির মালিকানা নিয়ে। দ্য সান।

পুতিনের বিমানে সোনার টয়লেট

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৯ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জেনেভায় রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র সম্মেলনের পর নতুন করে আলোচনায় উঠে এসেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। টানা ১৯ বছর ধরে রাশিয়া শাসন করা এই নেতার বিলাসী জীবন নিয়েও কৌতূহলী হয়ে উঠেছে বিশ্ব। কোথায় থাকেন? কোন বিমানে উড়ে বেড়ান-এসব নানাবিধ জিজ্ঞাসায় মেতে উঠেছে পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলো। বিশেষ করে যে বিমানটিতে চড়ে বুধবার তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেনের সঙ্গে সাক্ষাতে আসেন সেটির রাজকীয় আভিজাত্য নিয়ে। পুতিনকে নিয়মিত বহনকারী বিমানটির মূল্য বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় চার হাজার ৬০০ কোটি টাকা। নাম ফ্লাইং ক্রেমলিন। বিমানটি তৈরি করেছে ভোরোনেজ এয়ারক্রাফট প্রোডাকশন অ্যাসোসিয়েশন। এর সর্বোচ্চ গতি ঘণ্টায় ৫৬০ কিলোমিটার। বিলাসবহুল এ বিমানের টয়লেটটিও সোনায় মোড়ানো। ভেতরে থাকা কনফারেন্স টেবিলটিও নকশা করা সোনার পাত দিয়ে ঘেরা। আরও রয়েছে বিলাসী বেডরুম, স্বয়ংসম্পূর্ণ ব্যায়ামাগার এবং পানশালা। ক্রিম রঙের আরামদায়ক মূল্যবান চামড়া দিয়ে মোড়ানো এর আসনগুলো।

বিমানটি পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছে রাশিয়া এয়ারলাইন্স। ফ্লাইং ক্রেমলিন নামে ডাকলেও বিমানটির দাপ্তরিক নাম ইলিউশন-২-৯৬-৩০০ পিইউ। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে বিমানটিতে এন্টি মিসাইল প্রটেকশন রয়েছে। এতে রয়েছেন দু’জন ক্রু সদস্য। বিমানের প্রতি কোনায় রয়েছে রাষ্ট্রীয় আভিজাত্যের নমুনা। রয়েছে প্রয়োজনীয় কমান্ড সেন্টারও। যেখান থেকে সেনাবাহিনীকে পরিচালনা করা যায়। ফলে বিমান ভ্রমণে থাকলেও যুদ্ধ পরিচালনায় কোনো সমস্যা হওয়ার কথা নয় তার। শুধু বিমানের ক্ষেত্রেই নয়, তার বাসস্থানের ক্ষেত্রেও বিলাসবহুল জীবন কাটাচ্ছেন পুতিন। তিনি এখন যে বাড়িতে থাকছেন তার মূল্য ১০০ কোটি পাউন্ড। এ ‘রাজপ্রাসাদে’ রয়েছে স্ট্রিপক্লাব, ক্যাসিনো এবং একটি থিয়েটার। এ কারণে রাশিয়ার আলোচিত বিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনি বলেছেন, বাড়িটি ‘রহস্যঘেরা’। নাভালনির দাবি অনুযায়ী, অনেক ঝামেলা রয়েছে বাড়িটির মালিকানা নিয়ে। দ্য সান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন