জাপানে দেবীর মুখে মাস্ক
jugantor
জাপানে দেবীর মুখে মাস্ক

   

১৯ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অতিকায় দেবী মূর্তি। মন্দির প্রাঙ্গণে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে। মায়াময় দৃষ্টি নিবদ্ধ দুহাতে ধরা শিশুর প্রতি। করোনাভাইরাস মহামারি থেকে বাঁচতে জাপানের ফুকুশিমা প্রদেশের হোকোকুজি আইজু বেতসুইন বৌদ্ধ মন্দিরে অবস্থিত এই মাতৃমূর্তির কাছেই প্রার্থনা করছে দেশটির কিছু ধর্মপ্রাণ মানুষ। প্রার্থনার অংশ হিসাবে মূর্তির মুখে একটি মাস্কও পরানো হয়েছে। বিশাল মূর্তির জন্য বিশেষভাবে তৈরি বৃহদাকৃতির এই মাস্ক পরাতে চারজন শ্রমিকের সময় লেগেছে তিন ঘণ্টা। ১৮৭ ফুট তথা ৫৭ মিটার উঁচু মূর্তিটিকে করুণার দেবী ক্যানন হিসাবে জানে জাপানিরা। গোলাপি নেটের কাপড় দিয়ে বানানো হয়েছে এই মাস্ক। প্রায় ১৬ ফুট প্রস্থের ও ১৩ ফুট দৈর্ঘ্যরে মাস্কটির ওজন হয়েছে প্রায় ৩৫ কেজি। মূর্তিটি বানানো হয়েছে প্রায় ৩৩ বছর আগে। মূর্তির মাঝখানে আছে একটি পেঁচানো সিঁড়িঘর, যা বেয়ে সেটির নিচ থেকে কাঁধ পর্যন্ত ওঠা যায়। মূর্তিটির কোলে রয়েছে একটি শিশু। অনুসারীরা নবজাতকের জন্য প্রার্থনা চাইতে ফুকুশিমার এই দেবী মূর্তির কাছে যান।

জাপানে দেবীর মুখে মাস্ক

  
১৯ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অতিকায় দেবী মূর্তি। মন্দির প্রাঙ্গণে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে। মায়াময় দৃষ্টি নিবদ্ধ দুহাতে ধরা শিশুর প্রতি। করোনাভাইরাস মহামারি থেকে বাঁচতে জাপানের ফুকুশিমা প্রদেশের হোকোকুজি আইজু বেতসুইন বৌদ্ধ মন্দিরে অবস্থিত এই মাতৃমূর্তির কাছেই প্রার্থনা করছে দেশটির কিছু ধর্মপ্রাণ মানুষ। প্রার্থনার অংশ হিসাবে মূর্তির মুখে একটি মাস্কও পরানো হয়েছে। বিশাল মূর্তির জন্য বিশেষভাবে তৈরি বৃহদাকৃতির এই মাস্ক পরাতে চারজন শ্রমিকের সময় লেগেছে তিন ঘণ্টা। ১৮৭ ফুট তথা ৫৭ মিটার উঁচু মূর্তিটিকে করুণার দেবী ক্যানন হিসাবে জানে জাপানিরা। গোলাপি নেটের কাপড় দিয়ে বানানো হয়েছে এই মাস্ক। প্রায় ১৬ ফুট প্রস্থের ও ১৩ ফুট দৈর্ঘ্যরে মাস্কটির ওজন হয়েছে প্রায় ৩৫ কেজি। মূর্তিটি বানানো হয়েছে প্রায় ৩৩ বছর আগে। মূর্তির মাঝখানে আছে একটি পেঁচানো সিঁড়িঘর, যা বেয়ে সেটির নিচ থেকে কাঁধ পর্যন্ত ওঠা যায়। মূর্তিটির কোলে রয়েছে একটি শিশু। অনুসারীরা নবজাতকের জন্য প্রার্থনা চাইতে ফুকুশিমার এই দেবী মূর্তির কাছে যান।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন