করোনার দুর্দিনে গণমাধ্যমের ওপর বিশ্বাস বেড়েছে
jugantor
করোনার দুর্দিনে গণমাধ্যমের ওপর বিশ্বাস বেড়েছে

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৪ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনা মহামারির দুর্দিনে নানা দিক থেকে বিশ্ব ক্ষতিগ্রস্ত হলেও আগের তুলনায় গণমাধ্যমের ওপর জনগণের বিশ্বাস বেড়েছে। বুধবার প্রকাশিত রয়টার্স ইনস্টিটিউটের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মহামারিটি গণমাধ্যমের প্রতি হারিয়ে যাওয়া বিশ্বাস ফিরে পেতে সহায়তা করেছে। পাশাপাশি সংবাদ মাধ্যমগুলোকে আরও বেশি ডিজিটালাইজ্ড হতে উৎসাহ জুগিয়েছে। সম্প্রতি পরিচালিত একটি জরিপ কার্যক্রমের ফলাফলের ভিত্তিতে রয়টার্স ইনস্টিটিউটের প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। এএফপি।

মোট ৪৬টি দেশের ৯২ হাজার লোকের অংশগ্রহণে দশম বারের জরিপটি পরিচালনা করে ইউগভ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এর আগে আরও নয় বার এমন জরিপ চালিয়েছিল।

সর্বশেষ জরিপে দেখা যায় সংকট শুরুর পর থেকে সংবাদ প্রতিবেদনের ওপর আস্থা ছয় পয়েন্ট বেড়ে ৪৪ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। এ আস্থার ক্ষেত্রে শীর্ষস্থান দখল করেছে ফিনল্যান্ড (৬৫ শতাংশ)। আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আওতাভুক্ত দেশগুলোর এ মাত্রা নেমেছে ২৯ শতাংশে। ফ্রান্সের অবস্থান কিছুটা ভালো (৩০ শতাংশ)।

জরিপের তথ্য অনুযায়ী, মহামারির কারণে বিক্রি ও বিজ্ঞাপনের আয়ের ওপর প্রভাব পড়ায় মুদ্রিত গণমাধ্যমগুলো মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ভাইরাসটির ভয়ে পাঠকরা ডিজিটাল সাবস্ক্রিপশনের দিকে ধাবিত হয়েছেন।

প্রায় ২০টি দেশে সংবাদপত্রগুলো ডিজিটাল বিক্রয় পদ্ধতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছে। তবে, মাত্র ১৭ শতাংশ উত্তরদাতা বলেছেন তারা সংবাদ পাঠের জন্য অনলাইনে অর্থ খরচ করছেন-যা ২০১৬ সালের জরিপের তুলনায় দুই পয়েন্ট বেশি। নরওয়েতে ৪৫ শতাংশ এবং সুইডেনে ৩০ শতাংশ উত্তরদাতা বলেছেন, তারা কাগজের সংবাদপত্র এখনো কিনছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, জার্মানি এবং ব্রিটেনের ক্ষেত্রে এ সংখ্যা যথাক্রমে ২১, ১১, ৯ ও ৮ শতাংশ। জরিপ বলছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা খবরের ওপর আস্থা কমে ২৪ শতাংশে নেমে এসেছে।

করোনার দুর্দিনে গণমাধ্যমের ওপর বিশ্বাস বেড়েছে

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৪ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনা মহামারির দুর্দিনে নানা দিক থেকে বিশ্ব ক্ষতিগ্রস্ত হলেও আগের তুলনায় গণমাধ্যমের ওপর জনগণের বিশ্বাস বেড়েছে। বুধবার প্রকাশিত রয়টার্স ইনস্টিটিউটের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মহামারিটি গণমাধ্যমের প্রতি হারিয়ে যাওয়া বিশ্বাস ফিরে পেতে সহায়তা করেছে। পাশাপাশি সংবাদ মাধ্যমগুলোকে আরও বেশি ডিজিটালাইজ্ড হতে উৎসাহ জুগিয়েছে। সম্প্রতি পরিচালিত একটি জরিপ কার্যক্রমের ফলাফলের ভিত্তিতে রয়টার্স ইনস্টিটিউটের প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। এএফপি।

মোট ৪৬টি দেশের ৯২ হাজার লোকের অংশগ্রহণে দশম বারের জরিপটি পরিচালনা করে ইউগভ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এর আগে আরও নয় বার এমন জরিপ চালিয়েছিল।

সর্বশেষ জরিপে দেখা যায় সংকট শুরুর পর থেকে সংবাদ প্রতিবেদনের ওপর আস্থা ছয় পয়েন্ট বেড়ে ৪৪ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। এ আস্থার ক্ষেত্রে শীর্ষস্থান দখল করেছে ফিনল্যান্ড (৬৫ শতাংশ)। আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আওতাভুক্ত দেশগুলোর এ মাত্রা নেমেছে ২৯ শতাংশে। ফ্রান্সের অবস্থান কিছুটা ভালো (৩০ শতাংশ)।

জরিপের তথ্য অনুযায়ী, মহামারির কারণে বিক্রি ও বিজ্ঞাপনের আয়ের ওপর প্রভাব পড়ায় মুদ্রিত গণমাধ্যমগুলো মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ভাইরাসটির ভয়ে পাঠকরা ডিজিটাল সাবস্ক্রিপশনের দিকে ধাবিত হয়েছেন।

প্রায় ২০টি দেশে সংবাদপত্রগুলো ডিজিটাল বিক্রয় পদ্ধতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছে। তবে, মাত্র ১৭ শতাংশ উত্তরদাতা বলেছেন তারা সংবাদ পাঠের জন্য অনলাইনে অর্থ খরচ করছেন-যা ২০১৬ সালের জরিপের তুলনায় দুই পয়েন্ট বেশি। নরওয়েতে ৪৫ শতাংশ এবং সুইডেনে ৩০ শতাংশ উত্তরদাতা বলেছেন, তারা কাগজের সংবাদপত্র এখনো কিনছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, জার্মানি এবং ব্রিটেনের ক্ষেত্রে এ সংখ্যা যথাক্রমে ২১, ১১, ৯ ও ৮ শতাংশ। জরিপ বলছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা খবরের ওপর আস্থা কমে ২৪ শতাংশে নেমে এসেছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন