ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে ধাক্কা খেয়ে ৩০০ পাখির মৃত্যু
jugantor
ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে ধাক্কা খেয়ে ৩০০ পাখির মৃত্যু

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের কাচের টাওয়ারে ধাক্কা খেয়ে ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছে ৩০০ অভিবাসী পাখি। আহত হয়েছে আরও ৩০টির বেশি।

মঙ্গলবার দুর্ঘটনায় পতিত হওয়ার পর ভবনটির নিচে পড়ে থাকা পাখিগুলোর মৃতদেহের ছবি টুইটার ওয়ালে পোস্ট করেছেন নিউইয়র্ক সিটি অদুবন নামের এক সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবক। দি গার্ডিয়ান।

নিউইয়র্কের বহুতল ভবনগুলোর সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে বছরের পর বছর বহু পাখি মারা যাচ্ছে বলে অভিযোগ করে আসছে প্রাণিরক্ষা সংগঠন নিউইয়র্ক সিটি অদুবন।

তবে চলতি সপ্তাহে পাখি মারা যাওয়ার সংখ্যা অনেক বেড়েছে। অদুবন মুখপাত্র মনে করছেন, প্রতিবিম্ব সৃষ্টিকারী আলোকোজ্জ্বল কাচের দেওয়ালগুলোই এ মৃত্যুর জন্য দায়ী।

সংগঠনটির সহযোগী পরিচালক কাইটলিকন পারকিনস জানান, সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত ঝড়ো আবহাওয়ার কারণে পাখিদের মারা যাওয়ার সংখ্যা বেড়েছে।

তিনি বলেন, ‘অনেক বড় ঝড় ও বাজে আবহাওয়া ছিল এবং অনেক পাখি ছিল। দুর্ঘটনার সময় কাচের ওপর মরীচিকার মতো আবহ তৈরির কারণে এ ঘটনা ঘটতে পারে।

পাখিগুলো দিগভ্রান্ত হওয়ায় জানালার কাচের সঙ্গে পাখিগুলোর সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আবার ঝড়ের কারণে পাখিরা নিচু দিয়ে উড়তে বাধ্য হয়েছে বলেই তারা দিগভ্রান্ত হতে পারে।

এছাড়া মেঘাচ্ছন রাতের আলোর প্রভাবেও পাখিরা এ ধরনের দুর্ঘটনায় পড়তে পারে।’ মেলিসা ব্রিয়ার নামের এক স্বেচ্ছাসেবক জানিয়েছেন, তিনি নতুন ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের ভবনগুলোর আশপাশের এলাকা থেকে ২৯১টি পাখির মৃতদেহ পেয়েছেন।

ভবনগুলোর উত্তর, দক্ষিণ ও পশ্চিম প্রান্ত এবং ফুটপাতগুলোতে পাখির মৃতদেহগুলো পড়েছিল। তিনি টুইটারে বলেছেন, পাখিদের অভিবাসনের সময়টাতে অন্তত আলোকসম্পাত সীমিত করা গেলে তারা এ দুর্ঘটনা এড়াতে পারবে।

তিনি বলেন, ‘আমি বাকরুদ্ধ। পাখিদের এ মৃত্যুদৃশ্য যেন আমার কাছে দুঃস্বপ্নের মতো।’ এক গবেষণায় দেখা গেছে শুধু নিউইয়র্ক শহরের ভবনগুলোতে ধাক্কা খেয়ে প্রতিবছর ২ লাখ পাখির মৃত্যু হয়।

ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে ধাক্কা খেয়ে ৩০০ পাখির মৃত্যু

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের কাচের টাওয়ারে ধাক্কা খেয়ে ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছে ৩০০ অভিবাসী পাখি। আহত হয়েছে আরও ৩০টির বেশি।

মঙ্গলবার দুর্ঘটনায় পতিত হওয়ার পর ভবনটির নিচে পড়ে থাকা পাখিগুলোর মৃতদেহের ছবি টুইটার ওয়ালে পোস্ট করেছেন নিউইয়র্ক সিটি অদুবন নামের এক সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবক। দি গার্ডিয়ান।

নিউইয়র্কের বহুতল ভবনগুলোর সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে বছরের পর বছর বহু পাখি মারা যাচ্ছে বলে অভিযোগ করে আসছে প্রাণিরক্ষা সংগঠন নিউইয়র্ক সিটি অদুবন।

তবে চলতি সপ্তাহে পাখি মারা যাওয়ার সংখ্যা অনেক বেড়েছে। অদুবন মুখপাত্র মনে করছেন, প্রতিবিম্ব সৃষ্টিকারী আলোকোজ্জ্বল কাচের দেওয়ালগুলোই এ মৃত্যুর জন্য দায়ী।

সংগঠনটির সহযোগী পরিচালক কাইটলিকন পারকিনস জানান, সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত ঝড়ো আবহাওয়ার কারণে পাখিদের মারা যাওয়ার সংখ্যা বেড়েছে।

তিনি বলেন, ‘অনেক বড় ঝড় ও বাজে আবহাওয়া ছিল এবং অনেক পাখি ছিল। দুর্ঘটনার সময় কাচের ওপর মরীচিকার মতো আবহ তৈরির কারণে এ ঘটনা ঘটতে পারে।

পাখিগুলো দিগভ্রান্ত হওয়ায় জানালার কাচের সঙ্গে পাখিগুলোর সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আবার ঝড়ের কারণে পাখিরা নিচু দিয়ে উড়তে বাধ্য হয়েছে বলেই তারা দিগভ্রান্ত হতে পারে।

এছাড়া মেঘাচ্ছন রাতের আলোর প্রভাবেও পাখিরা এ ধরনের দুর্ঘটনায় পড়তে পারে।’ মেলিসা ব্রিয়ার নামের এক স্বেচ্ছাসেবক জানিয়েছেন, তিনি নতুন ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের ভবনগুলোর আশপাশের এলাকা থেকে ২৯১টি পাখির মৃতদেহ পেয়েছেন।

ভবনগুলোর উত্তর, দক্ষিণ ও পশ্চিম প্রান্ত এবং ফুটপাতগুলোতে পাখির মৃতদেহগুলো পড়েছিল। তিনি টুইটারে বলেছেন, পাখিদের অভিবাসনের সময়টাতে অন্তত আলোকসম্পাত সীমিত করা গেলে তারা এ দুর্ঘটনা এড়াতে পারবে।

তিনি বলেন, ‘আমি বাকরুদ্ধ। পাখিদের এ মৃত্যুদৃশ্য যেন আমার কাছে দুঃস্বপ্নের মতো।’ এক গবেষণায় দেখা গেছে শুধু নিউইয়র্ক শহরের ভবনগুলোতে ধাক্কা খেয়ে প্রতিবছর ২ লাখ পাখির মৃত্যু হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন