সুন্দরী মডেলের চুল কেটে নাপিতের মাথায় হাত!
jugantor
সুন্দরী মডেলের চুল কেটে নাপিতের মাথায় হাত!

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মডেলের চুল কাটায় ভুল করেছিলেন নাপিত। এ নিয়ে ভোক্তা অধিকারে মামলা ঠুকে দিয়েছিলেন মডেল। তারই ফল দেখে নাপিতের মাথায় হাত! ভোক্তা অধিকার কর্তৃপক্ষের রায়ে দুই কোটি ৩১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে নয়া দিল্লির ওই সেলুনকে। শুক্রবার এ খবর জানিয়েছে এএফপি।

আশনা রায় ভারতের হেয়ারব্র্যান্ডের মডেল। নয়াদিল্লির একটি শীর্ষ হোটেলের সেলুনে গিয়ে চুল কেটেছিলেন ২০১৮ সালের ১২ এপ্রিল। সেদিন সংশ্লিষ্ট হেয়ারড্রেসারকে বলেছিলেন মাত্র ৪ ইঞ্চি চুল কাটতে। কিন্তু তার চুল কাটা হয় নির্ধারিত পরিমাপের চেয়েও বেশি। এ ঘটনায় মুষড়ে পড়েন আশনা রায়। এ নিয়ে ভোক্তা অধিকার আদালতে তিন কোটি রুপি ক্ষতিপূরণ দাবি করে মামলা ঠুকে দেন তিনি। সেই মামলারই রায় হয় গত মঙ্গলবার। আদালতের রায়ে চুলের পণ্যের বিজ্ঞাপনের এই মডেলের ক্যারিয়ারে ক্ষতি ও মানসিক যন্ত্রণার কথা বিবেচনায় এই জরিমানা নির্ধারণ করেছে। রায় ঘোষণার ৮ সপ্তাহের মধ্যে জরিমানার অর্থ শোধ করার আদেশ দেওয়া হয়।

জাতীয় ভোক্তা বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের এ বেঞ্চের চেয়ারম্যান আরকে আগারওয়াল এবং সদস্য ড. এসএম কান্তিকার রায়ে বলেন, ‘এতে কোনো সন্দেহ নেই যে মহিলারা তাদের চুলের ব্যাপারে খুব সতর্ক। তারা চুল ভালো অবস্থায় রাখার জন্য বিপুল অর্থ ব্যয় করেন। তাদের চুলের সঙ্গে আবেগ জড়িয়ে থাকে।’ রায়ে আরও বলা হয়, ‘তিনি (মডেল) তার প্রত্যাশিত কাজ হারিয়ে বিশাল ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন-যা তার জীবনধারাকে পুরোপুরি বদলে দিয়েছে। তার শীর্ষ মডেল হওয়ার স্বপ্ন ভেঙে দিয়েছে।’

এ ছাড়া হোটেলটি ‘চুলের চিকিৎসায়’ অবহেলার জন্যও দোষী বলে কমিশন জানিয়েছে। তারা বলেছেন, তার (আশনা রায়) মাথার ত্বক পুড়ে গেছে এবং কর্মীদের ভুলের কারণে তিনি এখনো অ্যালার্জি এবং চুলকানিতে ভুগছেন। কমিশন বলেছে যে, অভিযোগকারীর জমা দেওয়া হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট প্রমাণ করে, হোটেল কর্তৃপক্ষ তাদের ভুল স্বীকার করেছে। এমনকি বিনিময়ে বিনা খরচে ‘হেয়ার ট্রিটমেন্ট’ দেওয়ারও প্রস্তাব দিয়েছিল। ক্ষতিপূরণের অর্থদণ্ডের পাশাপাশি রায়ে জানানো হয়েছে, রায়ের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট সেলুন আপিল করতে পারবে।

সুন্দরী মডেলের চুল কেটে নাপিতের মাথায় হাত!

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মডেলের চুল কাটায় ভুল করেছিলেন নাপিত। এ নিয়ে ভোক্তা অধিকারে মামলা ঠুকে দিয়েছিলেন মডেল। তারই ফল দেখে নাপিতের মাথায় হাত! ভোক্তা অধিকার কর্তৃপক্ষের রায়ে দুই কোটি ৩১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে নয়া দিল্লির ওই সেলুনকে। শুক্রবার এ খবর জানিয়েছে এএফপি।

আশনা রায় ভারতের হেয়ারব্র্যান্ডের মডেল। নয়াদিল্লির একটি শীর্ষ হোটেলের সেলুনে গিয়ে চুল কেটেছিলেন ২০১৮ সালের ১২ এপ্রিল। সেদিন সংশ্লিষ্ট হেয়ারড্রেসারকে বলেছিলেন মাত্র ৪ ইঞ্চি চুল কাটতে। কিন্তু তার চুল কাটা হয় নির্ধারিত পরিমাপের চেয়েও বেশি। এ ঘটনায় মুষড়ে পড়েন আশনা রায়। এ নিয়ে ভোক্তা অধিকার আদালতে তিন কোটি রুপি ক্ষতিপূরণ দাবি করে মামলা ঠুকে দেন তিনি। সেই মামলারই রায় হয় গত মঙ্গলবার। আদালতের রায়ে চুলের পণ্যের বিজ্ঞাপনের এই মডেলের ক্যারিয়ারে ক্ষতি ও মানসিক যন্ত্রণার কথা বিবেচনায় এই জরিমানা নির্ধারণ করেছে। রায় ঘোষণার ৮ সপ্তাহের মধ্যে জরিমানার অর্থ শোধ করার আদেশ দেওয়া হয়।

জাতীয় ভোক্তা বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের এ বেঞ্চের চেয়ারম্যান আরকে আগারওয়াল এবং সদস্য ড. এসএম কান্তিকার রায়ে বলেন, ‘এতে কোনো সন্দেহ নেই যে মহিলারা তাদের চুলের ব্যাপারে খুব সতর্ক। তারা চুল ভালো অবস্থায় রাখার জন্য বিপুল অর্থ ব্যয় করেন। তাদের চুলের সঙ্গে আবেগ জড়িয়ে থাকে।’ রায়ে আরও বলা হয়, ‘তিনি (মডেল) তার প্রত্যাশিত কাজ হারিয়ে বিশাল ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন-যা তার জীবনধারাকে পুরোপুরি বদলে দিয়েছে। তার শীর্ষ মডেল হওয়ার স্বপ্ন ভেঙে দিয়েছে।’

এ ছাড়া হোটেলটি ‘চুলের চিকিৎসায়’ অবহেলার জন্যও দোষী বলে কমিশন জানিয়েছে। তারা বলেছেন, তার (আশনা রায়) মাথার ত্বক পুড়ে গেছে এবং কর্মীদের ভুলের কারণে তিনি এখনো অ্যালার্জি এবং চুলকানিতে ভুগছেন। কমিশন বলেছে যে, অভিযোগকারীর জমা দেওয়া হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট প্রমাণ করে, হোটেল কর্তৃপক্ষ তাদের ভুল স্বীকার করেছে। এমনকি বিনিময়ে বিনা খরচে ‘হেয়ার ট্রিটমেন্ট’ দেওয়ারও প্রস্তাব দিয়েছিল। ক্ষতিপূরণের অর্থদণ্ডের পাশাপাশি রায়ে জানানো হয়েছে, রায়ের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট সেলুন আপিল করতে পারবে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন