ফেসবুক শিশুদের ক্ষতি করছে, দুর্বল করছে গণতন্ত্র
jugantor
ফেসবুক শিশুদের ক্ষতি করছে, দুর্বল করছে গণতন্ত্র
কংগ্রেস শুনানিতে ফেসবুকের সাবেক প্রোডাক্ট ম্যানেজার ফ্রান্সেস হাউগেন

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৭ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

‘ফেসবুক শিশুদের ক্ষতি করছে। যুক্তরাষ্ট্রে অভ্যন্তরীণ বিভাজন আরও উসকে দিচ্ছে। গণতন্ত্রকে দুর্বল করছে।’ মার্কিন কংগ্রেসের শুনানিতে এমন অভিযোগ করেছেন প্রতিষ্ঠানটির সাবেক প্রোডাক্ট ম্যানেজার ছিলেন (পণ্য ব্যবস্থাপক) ফ্রান্সেস হাউগেন। এর আগেও তিনি ফেসবুকের ‘হুইসেলব্লোয়ার’র ভূমিকা নিয়ে অভ্যন্তরীণ অনেক নথি গণমাধ্যমকে দিয়েছেন। বিবিসি, গার্ডিয়ান, সিএনএন।

মঙ্গলবার ক্যাপিটল হিলের ৫ ঘণ্টার শুনানিতে ফেসবুককে আরও একবার তুলাধুনা করলেন হাউগেন। বলেন, ‘ফেসবুকের সিইও মার্ক জাকারবার্গ শুধু মুনাফার দিকেই নজর দিচ্ছেন। ফলে প্ল্যাটফরমটি শিশুদের ভয়ানক ক্ষতি করার পাশাপাশি বিভাজনকেও উসকে দিচ্ছে। ফেসবুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকার পরও মার্ক জাকারবার্গকে জবাবদিহির আওতায় আনার মতো কেউ নেই।’ সোমবার হঠাৎ করেই কয়েক ঘণ্টা ফেসবুক বন্ধ রাকার ইস্যুতে তিনি বলেন, ‘গতকাল আমরা দেখেছি ফেসবুক ইন্টারনেট থেকে গায়েব হয়ে গিয়েছিল। আমি জানি না কেন এমনটা হয়েছে, কিন্তু আমি জানি ৫ ঘণ্টারও বেশি সময় ফেসবুক বিভেদ তীব্রতর করা, গণতন্ত্রকে অস্থিতিশীল করা, নিজের শরীর নিয়ে কমবয়সি মেয়ে ও নারীদের হীনমন্যতায় ভোগার কাজে ব্যবহৃত হয়নি।’ শুনানিতে থাকা ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান সিনেটরদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমাদের এখনই পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।’ ফেসবুক ইস্যুতে এদিন দুপক্ষের আইনপ্রণেতাদেরই ঐকমত্য দেখা গেছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স। উপস্থিত ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের প্রত্যেকেই এ সময় ফেসবুকের বিভিন্ন বিষয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। ডেমোক্র্যাট সিনেটর রিচার্ড ব্লুমেন্টাল বলেন, ‘ফেসবুক জানে তাদের পণ্যগুলো সিগারেটের মতো আসক্তি। বিষয়টি ভয়ানক সত্যের মুখোমুখি। আমাদের শিশুরাই এর শিকার হচ্ছে। মার্ক জাকারবার্গের উচিত আয়নায় নিজের চেহারা দেখা।’ রোববার সিবিএস নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে হাউগেন জানান, তিনি ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে (ডব্লিউএসজে) ফেসবুকের বেশকিছু অভ্যন্তরীণ নথি দিয়েছেন। সেসব নথির ওপর ভিত্তি করে ডব্লিউএসজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইনস্টাগ্রামের করা গবেষণায় দেখা গেছে অ্যাপটি ব্যবহারে কমবয়সি মেয়েদের মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে। হাউগেনের অবিযোগে প্রতিক্রিয়ায় মার্ক জাকারবার্গ বলেছেন, বিভিন্ন গণমাধ্যম এখন যেভাবে ফেসবুককে দেখাচ্ছে, তা ‘ভুল চিত্র’। কর্মীদের কাছে লেখা এক চিঠিতে তিনি বলেন, ফেসবুকের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হচ্ছে, তার বেশির ভাগই ‘ভিত্তিহীন’। ফেসবুক ক্ষতিকর কন্টেন্টের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে, স্বচ্ছতা বজায় রেখেছে, বলেছেন প্রতিষ্ঠানটির সহপ্রতিষ্ঠাতা। বলেন, ‘আমাদের কাজ ও উদ্দেশ্যকে ভুলভাবে উপস্থাপন করে করা কভারেজ দেখা কষ্টকর।’ ইনস্টাগ্রামের গবেষণাকে ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। কমবয়সি অনেকের প্ল্যাটফরমটি ব্যবহারের কারণে অনেক ইতিবাচক অভিজ্ঞতাও হয়েছে।

আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, যা-ই আমরা বানাই না কেন, তা যেন শিশুদের জন্য ভালো ও নিরাপদ হয়। বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের বর্তমানে সক্রিয় ব্যবহারকারী ২৭০ কোটি।

ফেসবুক শিশুদের ক্ষতি করছে, দুর্বল করছে গণতন্ত্র

কংগ্রেস শুনানিতে ফেসবুকের সাবেক প্রোডাক্ট ম্যানেজার ফ্রান্সেস হাউগেন
 যুগান্তর ডেস্ক 
০৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

‘ফেসবুক শিশুদের ক্ষতি করছে। যুক্তরাষ্ট্রে অভ্যন্তরীণ বিভাজন আরও উসকে দিচ্ছে। গণতন্ত্রকে দুর্বল করছে।’ মার্কিন কংগ্রেসের শুনানিতে এমন অভিযোগ করেছেন প্রতিষ্ঠানটির সাবেক প্রোডাক্ট ম্যানেজার ছিলেন (পণ্য ব্যবস্থাপক) ফ্রান্সেস হাউগেন। এর আগেও তিনি ফেসবুকের ‘হুইসেলব্লোয়ার’র ভূমিকা নিয়ে অভ্যন্তরীণ অনেক নথি গণমাধ্যমকে দিয়েছেন। বিবিসি, গার্ডিয়ান, সিএনএন।

মঙ্গলবার ক্যাপিটল হিলের ৫ ঘণ্টার শুনানিতে ফেসবুককে আরও একবার তুলাধুনা করলেন হাউগেন। বলেন, ‘ফেসবুকের সিইও মার্ক জাকারবার্গ শুধু মুনাফার দিকেই নজর দিচ্ছেন। ফলে প্ল্যাটফরমটি শিশুদের ভয়ানক ক্ষতি করার পাশাপাশি বিভাজনকেও উসকে দিচ্ছে। ফেসবুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকার পরও মার্ক জাকারবার্গকে জবাবদিহির আওতায় আনার মতো কেউ নেই।’ সোমবার হঠাৎ করেই কয়েক ঘণ্টা ফেসবুক বন্ধ রাকার ইস্যুতে তিনি বলেন, ‘গতকাল আমরা দেখেছি ফেসবুক ইন্টারনেট থেকে গায়েব হয়ে গিয়েছিল। আমি জানি না কেন এমনটা হয়েছে, কিন্তু আমি জানি ৫ ঘণ্টারও বেশি সময় ফেসবুক বিভেদ তীব্রতর করা, গণতন্ত্রকে অস্থিতিশীল করা, নিজের শরীর নিয়ে কমবয়সি মেয়ে ও নারীদের হীনমন্যতায় ভোগার কাজে ব্যবহৃত হয়নি।’ শুনানিতে থাকা ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান সিনেটরদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমাদের এখনই পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।’ ফেসবুক ইস্যুতে এদিন দুপক্ষের আইনপ্রণেতাদেরই ঐকমত্য দেখা গেছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স। উপস্থিত ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের প্রত্যেকেই এ সময় ফেসবুকের বিভিন্ন বিষয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। ডেমোক্র্যাট সিনেটর রিচার্ড ব্লুমেন্টাল বলেন, ‘ফেসবুক জানে তাদের পণ্যগুলো সিগারেটের মতো আসক্তি। বিষয়টি ভয়ানক সত্যের মুখোমুখি। আমাদের শিশুরাই এর শিকার হচ্ছে। মার্ক জাকারবার্গের উচিত আয়নায় নিজের চেহারা দেখা।’ রোববার সিবিএস নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে হাউগেন জানান, তিনি ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে (ডব্লিউএসজে) ফেসবুকের বেশকিছু অভ্যন্তরীণ নথি দিয়েছেন। সেসব নথির ওপর ভিত্তি করে ডব্লিউএসজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইনস্টাগ্রামের করা গবেষণায় দেখা গেছে অ্যাপটি ব্যবহারে কমবয়সি মেয়েদের মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে। হাউগেনের অবিযোগে প্রতিক্রিয়ায় মার্ক জাকারবার্গ বলেছেন, বিভিন্ন গণমাধ্যম এখন যেভাবে ফেসবুককে দেখাচ্ছে, তা ‘ভুল চিত্র’। কর্মীদের কাছে লেখা এক চিঠিতে তিনি বলেন, ফেসবুকের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হচ্ছে, তার বেশির ভাগই ‘ভিত্তিহীন’। ফেসবুক ক্ষতিকর কন্টেন্টের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে, স্বচ্ছতা বজায় রেখেছে, বলেছেন প্রতিষ্ঠানটির সহপ্রতিষ্ঠাতা। বলেন, ‘আমাদের কাজ ও উদ্দেশ্যকে ভুলভাবে উপস্থাপন করে করা কভারেজ দেখা কষ্টকর।’ ইনস্টাগ্রামের গবেষণাকে ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। কমবয়সি অনেকের প্ল্যাটফরমটি ব্যবহারের কারণে অনেক ইতিবাচক অভিজ্ঞতাও হয়েছে।

আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, যা-ই আমরা বানাই না কেন, তা যেন শিশুদের জন্য ভালো ও নিরাপদ হয়। বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের বর্তমানে সক্রিয় ব্যবহারকারী ২৭০ কোটি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন