চীনা চাপে নত হবে না তাইওয়ান
jugantor
চীনা চাপে নত হবে না তাইওয়ান

  যুগান্তর ডেস্ক  

১১ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চীনের চাপের কাছে কখনও মাথা নত করবে তাইওয়ান। এভাবেই হুঙ্কার দিয়েছেন এশিয়ার দ্বীপ দেশটির প্রেসিডেন্ট সাই ইং-ওয়েন। তিনি বলেছেন, আমাদের অর্জন যতই বাড়বে, চীনের দিক থেকে ততই চাপ আসবে। শনিবার এক বক্তব্যে তাইওয়ানকে চীনের সঙ্গে ‘একীভূত করা’র অঙ্গীকার করেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। পরদিন রোববারই তাইওয়ানের জাতীয় দিবসে দেওয়া ভাষণে হুঙ্কার ছাড়েন সাই। বলেন, গণতান্ত্রিক জীবন ব্যবস্থার সুরক্ষায় দেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা জোরদার অব্যাহত রাখা হবে। খবর আলজাজিরার।

বেইজিংয়ের শাসন মেনে নিতে তাইওয়ানের ওপর সামরিক ও রাজনৈতিক চাপ অব্যাহত রয়েছে। দ্বীপ অঞ্চলটিকে নিজেদের ভূখণ্ড হিসাবে বিবেচনা করে থাকে চীন। সম্প্রতি দেশটিকে স্বায়ত্তশাসনের আদলে ‘এক দেশ, দুই নীতি’ ব্যবস্থার প্রস্তাব দিয়েছে। কিন্তু তাইওয়ানের অধিকাংশ রাজনৈতিক দল তা প্রত্যাখ্যান করেছে।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে দেশ দুটির মধ্যে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। তাইওয়ানের আকাশ প্রতিরক্ষা শনাক্তকরণ অঞ্চলে নিয়মিতভাবেই চীনা যুদ্ধবিমানের অনুপ্রবেশ ঘটছে। কেবল অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে দ্বীপটির কাছ দিয়ে ১৪৯টি চীনা সামরিক বিমান উড়াল দিয়েছে। এতে তাইওয়ানও নিজের যুদ্ধবিমান উড়িয়ে সতর্ক করেছে। এতে চীনের সঙ্গে তাইওয়ানের সম্পর্ক ৪০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ পর্যায়ে পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন তাইওয়ানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

রাজধানী তাইপের মধ্যাঞ্চলে তাইওয়ানের জাতীয় দিবস উদ্যাপনে একটি সমাবেশে বক্তব্য দেওয়ার সময় সাই ইং-ওয়েন বলেন, পুরো তাইওয়ান প্রণালীতে পরিস্থিতি শান্ত হবে বলে আমরা প্রত্যাশা করছি। তবে সরকার হঠকারী কোনো সিদ্ধান্ত নেবে না। কোনো চাপের কাছে তাইওয়ান সরকার মাথা নত করবে, এমন ভ্রমও লালন করা উচিত না। প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের বাইরে দেওয়া এই বক্তৃতায় তিনি বলেন, তাইওয়ান তার জাতীয় প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার জোরদার অব্যাহত রাখবে। চীনের তৈরি করা পথে যাতে আমাদের পা দিতে না হয়, তা নিশ্চিত করতে আমরা নিজেদের সক্ষমতা বৃদ্ধি অব্যাহত রাখব।

চীনা চাপে নত হবে না তাইওয়ান

 যুগান্তর ডেস্ক 
১১ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চীনের চাপের কাছে কখনও মাথা নত করবে তাইওয়ান। এভাবেই হুঙ্কার দিয়েছেন এশিয়ার দ্বীপ দেশটির প্রেসিডেন্ট সাই ইং-ওয়েন। তিনি বলেছেন, আমাদের অর্জন যতই বাড়বে, চীনের দিক থেকে ততই চাপ আসবে। শনিবার এক বক্তব্যে তাইওয়ানকে চীনের সঙ্গে ‘একীভূত করা’র অঙ্গীকার করেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। পরদিন রোববারই তাইওয়ানের জাতীয় দিবসে দেওয়া ভাষণে হুঙ্কার ছাড়েন সাই। বলেন, গণতান্ত্রিক জীবন ব্যবস্থার সুরক্ষায় দেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা জোরদার অব্যাহত রাখা হবে। খবর আলজাজিরার।

বেইজিংয়ের শাসন মেনে নিতে তাইওয়ানের ওপর সামরিক ও রাজনৈতিক চাপ অব্যাহত রয়েছে। দ্বীপ অঞ্চলটিকে নিজেদের ভূখণ্ড হিসাবে বিবেচনা করে থাকে চীন। সম্প্রতি দেশটিকে স্বায়ত্তশাসনের আদলে ‘এক দেশ, দুই নীতি’ ব্যবস্থার প্রস্তাব দিয়েছে। কিন্তু তাইওয়ানের অধিকাংশ রাজনৈতিক দল তা প্রত্যাখ্যান করেছে।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে দেশ দুটির মধ্যে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। তাইওয়ানের আকাশ প্রতিরক্ষা শনাক্তকরণ অঞ্চলে নিয়মিতভাবেই চীনা যুদ্ধবিমানের অনুপ্রবেশ ঘটছে। কেবল অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে দ্বীপটির কাছ দিয়ে ১৪৯টি চীনা সামরিক বিমান উড়াল দিয়েছে। এতে তাইওয়ানও নিজের যুদ্ধবিমান উড়িয়ে সতর্ক করেছে। এতে চীনের সঙ্গে তাইওয়ানের সম্পর্ক ৪০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ পর্যায়ে পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন তাইওয়ানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

রাজধানী তাইপের মধ্যাঞ্চলে তাইওয়ানের জাতীয় দিবস উদ্যাপনে একটি সমাবেশে বক্তব্য দেওয়ার সময় সাই ইং-ওয়েন বলেন, পুরো তাইওয়ান প্রণালীতে পরিস্থিতি শান্ত হবে বলে আমরা প্রত্যাশা করছি। তবে সরকার হঠকারী কোনো সিদ্ধান্ত নেবে না। কোনো চাপের কাছে তাইওয়ান সরকার মাথা নত করবে, এমন ভ্রমও লালন করা উচিত না। প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের বাইরে দেওয়া এই বক্তৃতায় তিনি বলেন, তাইওয়ান তার জাতীয় প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার জোরদার অব্যাহত রাখবে। চীনের তৈরি করা পথে যাতে আমাদের পা দিতে না হয়, তা নিশ্চিত করতে আমরা নিজেদের সক্ষমতা বৃদ্ধি অব্যাহত রাখব।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন