কাতারে এবার ইইউ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক তালেবানের
jugantor
কাতারে এবার ইইউ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক তালেবানের

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৩ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে বসল তালেবান। বৈঠকের আগমুহূর্তে তালেবানের অন্তর্র্বর্তী সরকারের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোল্লা আমির খান মুত্তাকি জানিয়েছেন, মঙ্গলবার তিনি দোহায় ইইউর প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এএফপি।

মোল্লা আমির খান মুত্তাকি জানান, বিশ্বের সব দেশের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক গড়ে তুলতে চায় তালেবান। ইতোমধ্যে কিছু বৈঠক হয়েছে। আমরা একটি ভারসাম্যের নীতি নিয়ে চলতে চাই। একমাত্র এই নীতিই আফগানিস্তানকে স্থিরতা দিতে সক্ষম। তালেবানের সঙ্গে ইইউর মুখপাত্র নবিলা মাসরালি বলেন, আলোচনার মানে এটা নয় যে, ইইউ আফগানিস্তানকে কূটনৈতিক স্বীকৃতি দিচ্ছে। তাদের সঙ্গে বৈঠকে নারীদের অধিকার নিয়ে কথা হবে, আফগানিস্তানকে সাহায্য দেওয়া নিয়েও কথা হবে। চলতি সপ্তাহের শুরুতেই (শনিবার) দোহায় ক্ষমতা দখলের পর প্রথমবারের মতো বৈঠকে বসে তালেবান ও মার্কিন সিনিয়র কর্মকর্তারা।

জি-২০ ভার্চুয়াল বৈঠক : তালেবানরা আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর এই প্রথম দেশটি নিয়ে আলোচনায় বসলেন জি-২০ নেতারা। মঙ্গলবার ভার্চুয়াল এ আলোচনায় আফগানিস্তানকে ১ বিলিয়ন ইইউরো সহায়তা ঘোষনা করেছে ইইউ।

মঙ্গলবার ইতালিতে আয়োজিত একটি ভার্চুয়াল জি ২০ শীর্ষ সম্মেলনে ‘একটি বড় মানবিক ও আর্থ-সামাজিক পতন এড়াতে’ এ প্যাকেজ ঘোষণা করেন ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লিয়েন ।তিনি জোর দিয়ে তহবিলগুলো আফগানদের জন্য ‘সরাসরি সহায়তা’ এবং এটি তালেবানের অন্তর্র্বতীকালীন সরকারকে নয়। তিনি বলেন, ‘আমরা মানবাধিকারের সম্মান সহ আফগান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যেকোনো প্রয়োজনে আমাদের শর্ত সম্পর্কে স্পষ্ট ছিলাম।’

আফগানিস্তান ছাড়লেন বাইডেনকে উদ্ধারে সহায়তাকারী অনুবাদক : আফগানিস্তানের দুর্গম একটি এলাকা থেকে তৎকালীন মার্কিন সিনেটর জো বাইডেনকে উদ্ধারে সহায়তাকারী আফগান অনুবাদক অবশেষে সপরিবারে দেশ ছাড়তে সক্ষম হয়েছেন। ২০০৮ সালে এক তুষার ঝড়ে বাইডেন এবং অন্য মার্কিন আইন প্রণেতাদের বহনকারী সামরিক হেলিকপ্টার আফগানিস্তানের তুষারাবৃত উপত্যকায় অবতরণে বাধ্য হয়। সেখানে অ্যাম্বুশের শিকার হওয়ার আশঙ্কা ছিল। ওই সময় আমান খলিলিসহ মার্কিন সরকারের হয়ে কর্মরত আফগান কর্মীরা ওই দলটিকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায়। সোমবার মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের এক প্রতিনিধি বিবিসিকে জানিয়েছেন, খলিলি এবং তার পরিবার নিরাপদে আফগানিস্তান ত্যাগ করেছেন, আর পরবর্তী যাত্রা পাকিস্তান থেকে শুরু করেছেন।

স্বীকৃতি না দিলে আগের রূপে ফিরবে তালেবান : ইমরান খান

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বকে অবশ্যই আফগানিস্তানের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে হবে। তা না হলে তালেবানের ভেতরে থাকা উগ্রপন্থিরা ২০ বছর আগের শাসনে ফিরে যেতে পারে। আর এটি হলে এ অঞ্চলে বিপর্যয় নেমে আসবে।’ সোমবার লন্ডনভিত্তিক সংবাদমাধ্যম মিডল ইস্ট আইকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ সতর্কবার্তা দেন বলে ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। সাক্ষাৎকারে আফগানিস্তানের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্ক, অধিকৃত কাশ্মীরে ভারতের পদক্ষেপ, উইঘুরদের নিয়ে চীনের তৎপরতার বিরুদ্ধে অভিযোগসহ অন্যান্য বিষয়ে কথা বলেন ইমরান। বলেন, তালিবানের সদস্যরা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেতে চাইছেন। তারা এখন অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠনের পাশাপাশি মানবাধিকার সমুন্নত রাখার কথাও বলছেন। ইমরান আরও বলেন, ‘আফগানিস্তানের একটি স্থিতিশীল সরকারই পারে আইএসকে ঠেকাতে। এ ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই।’

বহির্বিশ্বের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন চাইছে তালেবান : কাতারের রাজধানী দোহার ইনস্টিটিউট ফর গ্র্যাজুয়েট স্টাডিজে ‘সেন্টার ফর কনফ্লিক্ট অ্যান্ড হিউম্যানিটারিয়ান স্টাডিজ’ আয়োজিত অনুষ্ঠানে বহির্বিশ্বের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন চাইল তালেবান। সোমবারের ওই অনুষ্ঠানে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত আমাদের সহায়তা করা। তারা আমাদের পাশে থাকলেই আমরা নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারব। বহির্বিশ্বের সঙ্গে ইতিবাচক সম্পর্ক গড়তে পারব।’ এ সময় নারী শিক্ষার বিষয়টি এড়িয়ে যান মুত্তাকি। তিনি আরও বলেন, আমরা সতর্কতার সঙ্গে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। অর্থনৈতিক সংকটের বিষয়ে তিনি বলেন, পশ্চিমা সমর্থিত সাবেক আফগান সরকারের সঙ্গে বহির্বিশ্বে সমর্থন ছিল যা আমরা এখনো পাইনি। তারা যা ২০ বছরে বাস্তবায়ন করতে পারেনি, আমরা ২ মাসের মধ্যে সেটি কীভাবে করব।‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে আমাদের সঙ্গে পারস্পরিক সহযোগিতাপূর্ণ সম্পর্কের সূচনা করা উচিত। এর মধ্য দিয়ে আমরা নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতি কাটাতে পারব এবং একই সময়ে বিশ্ব সম্প্রদায়ের সঙ্গে ইতিবাচকভাবে যুক্ত হতে পারব।’ আমির খান মুত্তাকি আরও বলেন, তালেবান সরকার সতর্কভাবে এগোচ্ছে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যে সংস্কারগুলো ২০ বছরে বাস্তবায়ন করতে পারেনি, সেগুলো কয়েক সপ্তাহ বয়সি তালেবান সরকারের কাছ থেকে আশা করা ঠিক হবে না।

কাতারে এবার ইইউ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক তালেবানের

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৩ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে বসল তালেবান। বৈঠকের আগমুহূর্তে তালেবানের অন্তর্র্বর্তী সরকারের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোল্লা আমির খান মুত্তাকি জানিয়েছেন, মঙ্গলবার তিনি দোহায় ইইউর প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এএফপি।

মোল্লা আমির খান মুত্তাকি জানান, বিশ্বের সব দেশের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক গড়ে তুলতে চায় তালেবান। ইতোমধ্যে কিছু বৈঠক হয়েছে। আমরা একটি ভারসাম্যের নীতি নিয়ে চলতে চাই। একমাত্র এই নীতিই আফগানিস্তানকে স্থিরতা দিতে সক্ষম। তালেবানের সঙ্গে ইইউর মুখপাত্র নবিলা মাসরালি বলেন, আলোচনার মানে এটা নয় যে, ইইউ আফগানিস্তানকে কূটনৈতিক স্বীকৃতি দিচ্ছে। তাদের সঙ্গে বৈঠকে নারীদের অধিকার নিয়ে কথা হবে, আফগানিস্তানকে সাহায্য দেওয়া নিয়েও কথা হবে। চলতি সপ্তাহের শুরুতেই (শনিবার) দোহায় ক্ষমতা দখলের পর প্রথমবারের মতো বৈঠকে বসে তালেবান ও মার্কিন সিনিয়র কর্মকর্তারা।

জি-২০ ভার্চুয়াল বৈঠক : তালেবানরা আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর এই প্রথম দেশটি নিয়ে আলোচনায় বসলেন জি-২০ নেতারা। মঙ্গলবার ভার্চুয়াল এ আলোচনায় আফগানিস্তানকে ১ বিলিয়ন ইইউরো সহায়তা ঘোষনা করেছে ইইউ।

মঙ্গলবার ইতালিতে আয়োজিত একটি ভার্চুয়াল জি ২০ শীর্ষ সম্মেলনে ‘একটি বড় মানবিক ও আর্থ-সামাজিক পতন এড়াতে’ এ প্যাকেজ ঘোষণা করেন ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লিয়েন ।তিনি জোর দিয়ে তহবিলগুলো আফগানদের জন্য ‘সরাসরি সহায়তা’ এবং এটি তালেবানের অন্তর্র্বতীকালীন সরকারকে নয়। তিনি বলেন, ‘আমরা মানবাধিকারের সম্মান সহ আফগান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যেকোনো প্রয়োজনে আমাদের শর্ত সম্পর্কে স্পষ্ট ছিলাম।’

আফগানিস্তান ছাড়লেন বাইডেনকে উদ্ধারে সহায়তাকারী অনুবাদক : আফগানিস্তানের দুর্গম একটি এলাকা থেকে তৎকালীন মার্কিন সিনেটর জো বাইডেনকে উদ্ধারে সহায়তাকারী আফগান অনুবাদক অবশেষে সপরিবারে দেশ ছাড়তে সক্ষম হয়েছেন। ২০০৮ সালে এক তুষার ঝড়ে বাইডেন এবং অন্য মার্কিন আইন প্রণেতাদের বহনকারী সামরিক হেলিকপ্টার আফগানিস্তানের তুষারাবৃত উপত্যকায় অবতরণে বাধ্য হয়। সেখানে অ্যাম্বুশের শিকার হওয়ার আশঙ্কা ছিল। ওই সময় আমান খলিলিসহ মার্কিন সরকারের হয়ে কর্মরত আফগান কর্মীরা ওই দলটিকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায়। সোমবার মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের এক প্রতিনিধি বিবিসিকে জানিয়েছেন, খলিলি এবং তার পরিবার নিরাপদে আফগানিস্তান ত্যাগ করেছেন, আর পরবর্তী যাত্রা পাকিস্তান থেকে শুরু করেছেন।

স্বীকৃতি না দিলে আগের রূপে ফিরবে তালেবান : ইমরান খান

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বকে অবশ্যই আফগানিস্তানের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে হবে। তা না হলে তালেবানের ভেতরে থাকা উগ্রপন্থিরা ২০ বছর আগের শাসনে ফিরে যেতে পারে। আর এটি হলে এ অঞ্চলে বিপর্যয় নেমে আসবে।’ সোমবার লন্ডনভিত্তিক সংবাদমাধ্যম মিডল ইস্ট আইকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ সতর্কবার্তা দেন বলে ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। সাক্ষাৎকারে আফগানিস্তানের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্ক, অধিকৃত কাশ্মীরে ভারতের পদক্ষেপ, উইঘুরদের নিয়ে চীনের তৎপরতার বিরুদ্ধে অভিযোগসহ অন্যান্য বিষয়ে কথা বলেন ইমরান। বলেন, তালিবানের সদস্যরা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেতে চাইছেন। তারা এখন অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠনের পাশাপাশি মানবাধিকার সমুন্নত রাখার কথাও বলছেন। ইমরান আরও বলেন, ‘আফগানিস্তানের একটি স্থিতিশীল সরকারই পারে আইএসকে ঠেকাতে। এ ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই।’

বহির্বিশ্বের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন চাইছে তালেবান : কাতারের রাজধানী দোহার ইনস্টিটিউট ফর গ্র্যাজুয়েট স্টাডিজে ‘সেন্টার ফর কনফ্লিক্ট অ্যান্ড হিউম্যানিটারিয়ান স্টাডিজ’ আয়োজিত অনুষ্ঠানে বহির্বিশ্বের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন চাইল তালেবান। সোমবারের ওই অনুষ্ঠানে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত আমাদের সহায়তা করা। তারা আমাদের পাশে থাকলেই আমরা নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারব। বহির্বিশ্বের সঙ্গে ইতিবাচক সম্পর্ক গড়তে পারব।’ এ সময় নারী শিক্ষার বিষয়টি এড়িয়ে যান মুত্তাকি। তিনি আরও বলেন, আমরা সতর্কতার সঙ্গে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। অর্থনৈতিক সংকটের বিষয়ে তিনি বলেন, পশ্চিমা সমর্থিত সাবেক আফগান সরকারের সঙ্গে বহির্বিশ্বে সমর্থন ছিল যা আমরা এখনো পাইনি। তারা যা ২০ বছরে বাস্তবায়ন করতে পারেনি, আমরা ২ মাসের মধ্যে সেটি কীভাবে করব।‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে আমাদের সঙ্গে পারস্পরিক সহযোগিতাপূর্ণ সম্পর্কের সূচনা করা উচিত। এর মধ্য দিয়ে আমরা নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতি কাটাতে পারব এবং একই সময়ে বিশ্ব সম্প্রদায়ের সঙ্গে ইতিবাচকভাবে যুক্ত হতে পারব।’ আমির খান মুত্তাকি আরও বলেন, তালেবান সরকার সতর্কভাবে এগোচ্ছে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যে সংস্কারগুলো ২০ বছরে বাস্তবায়ন করতে পারেনি, সেগুলো কয়েক সপ্তাহ বয়সি তালেবান সরকারের কাছ থেকে আশা করা ঠিক হবে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আফগানিস্তানে তালেবানের পুনরুত্থান