লেবাননে হিজবুল্লাহর বিক্ষোভে ভয়াবহ হামলা
jugantor
লেবাননে হিজবুল্লাহর বিক্ষোভে ভয়াবহ হামলা

   

১৫ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বন্দুকধারীদের সঙ্গে সংঘর্ষকালে রাজধানী বৈরুতের তায়োনেহ এলাকায় রাস্তার মাঝে গাড়ির পেছনে অবস্থান নিয়েছেন হিজবুল্লাহ ও আমাল মুভমেন্টের কয়েকজন সদস্য। সংঘর্ষের মধ্যে ভয়ে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালাচ্ছেন তায়োনেহ এলাকার বাসিন্দারা। গত বছর বৈরুত বন্দরে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনার তদন্ত থেকে বিচারক অপসারণের দাবিতে বৃহস্পতিবার বিক্ষোভে নামে দেশটির হাজারো মানুষ। সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ ও আমাল মুভমেন্টের ডাকা এই বিক্ষোভ হঠাৎই সহিংস হয়ে ওঠে। বিক্ষোভকারীদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালায় অজ্ঞাত বন্দুকধারীরা। এতে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অন্তত ছয়জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও অন্তত ৩০ জন। বৈরুত বন্দরে বিস্ফোরণের তদন্ত কার্যক্রম থেকে বিতর্কিত বিচারপতি তারেক বিতারকে অপসারণের দাবিতে বেশ কয়েক দিন ধরেই বিক্ষোভ চলছে। বিক্ষোভকারীদের দাবি, ওই বিচারপতি পক্ষপাতিত্ব করছেন এবং তিনি ‘যুক্তরাষ্ট্রের চাকর’। এরই ধারাবাহিকতায় এদিন হিজবুল্লাহ ও আমাল মুভমেন্টের শত শত সমর্থক বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বৈরুতের প্যালেস অব জাস্টিসের দিকে যাচ্ছিল। শহরের তায়োনেহ এলাকায় পৌঁছতেই হঠাৎ গুলিবর্ষণ শুরু হয়। এতে বিক্ষোভকারীরা দিগি¦দিক পালিয়ে যায়। সঙ্গে সঙ্গে বন্দুকধারীদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে হিজবুল্লাহ ও আমাল মুভমেন্ট। এরপর চার ঘণ্টা ধরে চলে সংঘর্ষ। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত পাঁচজন নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে লেবানন রেডক্রস। এ ছাড়া ৩০ জনের বেশি আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাটি। গত ফেব্রুয়ারিতে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকেই লেবাননের শীর্ষ রাজনৈতিক ব্যক্তি এবং গোয়েন্দা বাহিনীর কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করছিলেন তারেক বিতার। এ ছাড়া সাবেক অর্থমন্ত্রী ও আমাল পার্টির শীর্ষ নেতা আলি হাসান খলিলির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন তিনি। লেবাননের সাবেক প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নোহাদ মাচনুকের বিরুদ্ধেও তিনি গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন এএফপি

লেবাননে হিজবুল্লাহর বিক্ষোভে ভয়াবহ হামলা

  
১৫ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বন্দুকধারীদের সঙ্গে সংঘর্ষকালে রাজধানী বৈরুতের তায়োনেহ এলাকায় রাস্তার মাঝে গাড়ির পেছনে অবস্থান নিয়েছেন হিজবুল্লাহ ও আমাল মুভমেন্টের কয়েকজন সদস্য। সংঘর্ষের মধ্যে ভয়ে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালাচ্ছেন তায়োনেহ এলাকার বাসিন্দারা। গত বছর বৈরুত বন্দরে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনার তদন্ত থেকে বিচারক অপসারণের দাবিতে বৃহস্পতিবার বিক্ষোভে নামে দেশটির হাজারো মানুষ। সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ ও আমাল মুভমেন্টের ডাকা এই বিক্ষোভ হঠাৎই সহিংস হয়ে ওঠে। বিক্ষোভকারীদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালায় অজ্ঞাত বন্দুকধারীরা। এতে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অন্তত ছয়জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও অন্তত ৩০ জন। বৈরুত বন্দরে বিস্ফোরণের তদন্ত কার্যক্রম থেকে বিতর্কিত বিচারপতি তারেক বিতারকে অপসারণের দাবিতে বেশ কয়েক দিন ধরেই বিক্ষোভ চলছে। বিক্ষোভকারীদের দাবি, ওই বিচারপতি পক্ষপাতিত্ব করছেন এবং তিনি ‘যুক্তরাষ্ট্রের চাকর’। এরই ধারাবাহিকতায় এদিন হিজবুল্লাহ ও আমাল মুভমেন্টের শত শত সমর্থক বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বৈরুতের প্যালেস অব জাস্টিসের দিকে যাচ্ছিল। শহরের তায়োনেহ এলাকায় পৌঁছতেই হঠাৎ গুলিবর্ষণ শুরু হয়। এতে বিক্ষোভকারীরা দিগি¦দিক পালিয়ে যায়। সঙ্গে সঙ্গে বন্দুকধারীদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে হিজবুল্লাহ ও আমাল মুভমেন্ট। এরপর চার ঘণ্টা ধরে চলে সংঘর্ষ। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত পাঁচজন নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে লেবানন রেডক্রস। এ ছাড়া ৩০ জনের বেশি আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাটি। গত ফেব্রুয়ারিতে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকেই লেবাননের শীর্ষ রাজনৈতিক ব্যক্তি এবং গোয়েন্দা বাহিনীর কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করছিলেন তারেক বিতার। এ ছাড়া সাবেক অর্থমন্ত্রী ও আমাল পার্টির শীর্ষ নেতা আলি হাসান খলিলির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন তিনি। লেবাননের সাবেক প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নোহাদ মাচনুকের বিরুদ্ধেও তিনি গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন এএফপি

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন