৮০০ কোটি মানুষের অক্সিজেন আছে চাঁদে!
jugantor
৮০০ কোটি মানুষের অক্সিজেন আছে চাঁদে!

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৪ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

৮০০ কোটি মানুষের অক্সিজেন আছে চাঁদে!

চাঁদেও অক্সিজেন আছে এবং এর পরিমাণটাও ব্যাপক। এমনটাই দাবি করেছেন অস্ট্রেলিয়ার এক বিজ্ঞানী। জন গ্রান্ট নামের ওই বিজ্ঞানী বলছেন, উপগ্রহের পাথুরে স্তরের নিচেই এত বিপুল পরিমাণ অক্সিজেন মজুদ রয়েছে যা এক লাখ বছর ধরে ৮০০ কোটি মানুষের জীবন টিকিয়ে রাখার জন্য যথেষ্ট। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ‘দ্য কনভারসেশনে’ প্রকাশিত এক প্রবন্ধে চাঁদে অক্সিজেন থাকার বিষয়টি তুলে ধরেন তিনি।

পৃথিবীর একমাত্র উপগ্রহ চাঁদ নিয়ে মানুষের আগ্রহের শেষ নেই। ১৯৬৯ সালের চন্দ্রজয়েও তা শেষ হয়নি। বরং আরও বেড়েছে। এখন দুই লাখ ৩৯ হাজার কিলোমিটার দূরের এই উপগ্রহে বসতি গড়ার চিন্তা করছে সে। কিন্তু মানুষ যদি চাঁদে গিয়ে দীর্ঘ সময় থাকতে চায়, তাহলে প্রথমেই তাদের শ্বাসপ্রশ্বাসের জন্য অক্সিজেন এবং রকেট চালনার জন্য পর্যাপ্ত জ্বালানি সরবরাহের প্রয়োজন হবে। এ দুটি ছাড়া চাঁদে দীর্ঘমেয়াদি উপস্থিতি কল্পনা করা যায় না।

মহাকাশ অভিযানের পাশাপাশি সম্প্রতি এমন সব প্রযুক্তির উদ্ভাবনে সময় ও অর্থ বিনিয়োগ করা হচ্ছে যা মহাকাশের বিভিন্ন সম্পদ কাজে লাগানো সম্ভব হয়। এ ক্ষেত্রে বিজ্ঞানীদের প্রধান লক্ষ্য চাঁদে অক্সিজেন তৈরির প্রতি। বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে কাজও শুরু করেছেন বিজ্ঞানীরা। গত মাসেই অস্ট্রেলিয়ান স্পেস এজেন্সি ও মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার মধ্যে একটি চুক্তি সই হয়েছে। ‘আর্টেমিস প্রোগ্রাম’ প্রকল্পের অধীনে অস্ট্রেলিয়ায় তৈরি একটি মহাকাশযান চাঁদে পাঠানো হবে। আগামী বছর ফেব্রুয়ারি মাসেই শুরু হবে আর্টেমিস প্রকল্পের প্রথম চন্দ্রাভিযান।

বিজ্ঞানীদের মতে, পৃথিবীর মতো চাঁদেও বায়ুমণ্ডল রয়েছে। তবে এটা খুবই পাতলা এবং বেশির ভাগই হাইড্রোজেন, নিওন ও আর্গনের মতো গ্যাস দিয়ে গঠিত। এই বায়ুমণ্ডলে অক্সিজেননির্ভর মানুষের টিকে থাকা সম্ভব নয় বলে মনে করেন অনেক বিজ্ঞানীই। তবে অস্ট্রেলিয়ার সাউদার্ন ক্রস ইউনিভার্সিটির শিক্ষক ও খ্যাতনামা বিজ্ঞানী জন গ্রান্ট বলছেন, চাঁদে পর্যাপ্ত পরিমাণে অক্সিজেন সঞ্চিত রয়েছে। যার ওপর নির্ভর করে পৃথিবীর সব মানুষ প্রায় এক লাখ বছর টিকে থাকতে পারবে।

তবে এটা গ্যাসীয় আকারে নয়, বরং রেগোলিথের ভেতরে আবদ্ধ রূপে। রেগোলিথ হলো মৃত্তিকাময় এক ধরনের মিহি শিলাচূর্ণ। মাটি সৃষ্টির প্রাথমিক অবস্থাকে রেগোলিথক বলা হয়। একজন মানুষের বেঁচে থাকতে দিনে ৮০০ গ্রাম অক্সিজেন দরকার হয়। সেই সঙ্গে রেগোলিথ প্রয়োজন হয় ১০ মিটার গভীর। বৈজ্ঞানিক এই তথ্যের ওপর ভিত্তি করেই চাঁদে অক্সিজেনের পরিমাণের হিসাবটি বের করেছেন বিজ্ঞানী গ্রান্ট। তার দাবি, চাঁদের রেগোলিথ ৪৫ শতাংশ অক্সিজেন দিয়ে গঠিত যার সবটুকুই সিলিকা, অ্যালুমিনিয়াম, লৌহ ও ম্যাগনেশিয়ামের মতো খনিজ সমৃদ্ধ।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, এই রেগোলিথ থেকে কি অক্সিজেন উৎপাদন করা সম্ভব কিংবা যদি অক্সিজেন উৎপাদন করা যায়, তাহলে সেটা দিয়ে কি চাঁদে মানুষের বেঁচে থাকা সম্ভব হবে? বিশ্লেষকরা বলছেন, এই অক্সিজেন উৎপাদন প্রক্রিয়া সহজ হবে না।

৮০০ কোটি মানুষের অক্সিজেন আছে চাঁদে!

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৪ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
৮০০ কোটি মানুষের অক্সিজেন আছে চাঁদে!
ছবি: সংগৃহীত

চাঁদেও অক্সিজেন আছে এবং এর পরিমাণটাও ব্যাপক। এমনটাই দাবি করেছেন অস্ট্রেলিয়ার এক বিজ্ঞানী। জন গ্রান্ট নামের ওই বিজ্ঞানী বলছেন, উপগ্রহের পাথুরে স্তরের নিচেই এত বিপুল পরিমাণ অক্সিজেন মজুদ রয়েছে যা এক লাখ বছর ধরে ৮০০ কোটি মানুষের জীবন টিকিয়ে রাখার জন্য যথেষ্ট। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ‘দ্য কনভারসেশনে’ প্রকাশিত এক প্রবন্ধে চাঁদে অক্সিজেন থাকার বিষয়টি তুলে ধরেন তিনি।

পৃথিবীর একমাত্র উপগ্রহ চাঁদ নিয়ে মানুষের আগ্রহের শেষ নেই। ১৯৬৯ সালের চন্দ্রজয়েও তা শেষ হয়নি। বরং আরও বেড়েছে। এখন দুই লাখ ৩৯ হাজার কিলোমিটার দূরের এই উপগ্রহে বসতি গড়ার চিন্তা করছে সে। কিন্তু মানুষ যদি চাঁদে গিয়ে দীর্ঘ সময় থাকতে চায়, তাহলে প্রথমেই তাদের শ্বাসপ্রশ্বাসের জন্য অক্সিজেন এবং রকেট চালনার জন্য পর্যাপ্ত জ্বালানি সরবরাহের প্রয়োজন হবে। এ দুটি ছাড়া চাঁদে দীর্ঘমেয়াদি উপস্থিতি কল্পনা করা যায় না।

মহাকাশ অভিযানের পাশাপাশি সম্প্রতি এমন সব প্রযুক্তির উদ্ভাবনে সময় ও অর্থ বিনিয়োগ করা হচ্ছে যা মহাকাশের বিভিন্ন সম্পদ কাজে লাগানো সম্ভব হয়। এ ক্ষেত্রে বিজ্ঞানীদের প্রধান লক্ষ্য চাঁদে অক্সিজেন তৈরির প্রতি। বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে কাজও শুরু করেছেন বিজ্ঞানীরা। গত মাসেই অস্ট্রেলিয়ান স্পেস এজেন্সি ও মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার মধ্যে একটি চুক্তি সই হয়েছে। ‘আর্টেমিস প্রোগ্রাম’ প্রকল্পের অধীনে অস্ট্রেলিয়ায় তৈরি একটি মহাকাশযান চাঁদে পাঠানো হবে। আগামী বছর ফেব্রুয়ারি মাসেই শুরু হবে আর্টেমিস প্রকল্পের প্রথম চন্দ্রাভিযান।

বিজ্ঞানীদের মতে, পৃথিবীর মতো চাঁদেও বায়ুমণ্ডল রয়েছে। তবে এটা খুবই পাতলা এবং বেশির ভাগই হাইড্রোজেন, নিওন ও আর্গনের মতো গ্যাস দিয়ে গঠিত। এই বায়ুমণ্ডলে অক্সিজেননির্ভর মানুষের টিকে থাকা সম্ভব নয় বলে মনে করেন অনেক বিজ্ঞানীই। তবে অস্ট্রেলিয়ার সাউদার্ন ক্রস ইউনিভার্সিটির শিক্ষক ও খ্যাতনামা বিজ্ঞানী জন গ্রান্ট বলছেন, চাঁদে পর্যাপ্ত পরিমাণে অক্সিজেন সঞ্চিত রয়েছে। যার ওপর নির্ভর করে পৃথিবীর সব মানুষ প্রায় এক লাখ বছর টিকে থাকতে পারবে।

তবে এটা গ্যাসীয় আকারে নয়, বরং রেগোলিথের ভেতরে আবদ্ধ রূপে। রেগোলিথ হলো মৃত্তিকাময় এক ধরনের মিহি শিলাচূর্ণ। মাটি সৃষ্টির প্রাথমিক অবস্থাকে রেগোলিথক বলা হয়। একজন মানুষের বেঁচে থাকতে দিনে ৮০০ গ্রাম অক্সিজেন দরকার হয়। সেই সঙ্গে রেগোলিথ প্রয়োজন হয় ১০ মিটার গভীর। বৈজ্ঞানিক এই তথ্যের ওপর ভিত্তি করেই চাঁদে অক্সিজেনের পরিমাণের হিসাবটি বের করেছেন বিজ্ঞানী গ্রান্ট। তার দাবি, চাঁদের রেগোলিথ ৪৫ শতাংশ অক্সিজেন দিয়ে গঠিত যার সবটুকুই সিলিকা, অ্যালুমিনিয়াম, লৌহ ও ম্যাগনেশিয়ামের মতো খনিজ সমৃদ্ধ।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, এই রেগোলিথ থেকে কি অক্সিজেন উৎপাদন করা সম্ভব কিংবা যদি অক্সিজেন উৎপাদন করা যায়, তাহলে সেটা দিয়ে কি চাঁদে মানুষের বেঁচে থাকা সম্ভব হবে? বিশ্লেষকরা বলছেন, এই অক্সিজেন উৎপাদন প্রক্রিয়া সহজ হবে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন