মিয়ানমারে বিক্ষোভে সেনাগাড়ির ধাক্কা
jugantor
মিয়ানমারে বিক্ষোভে সেনাগাড়ির ধাক্কা

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভকারীদের গাড়ি দিয়ে চাপা দিয়েছে সেনাবাহিনী। রোববার রাজধানী ইয়াঙ্গুনের একটি শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে এ ঘটনা ঘটেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, সেনাসদস্য বহনকারী গাড়ির চাপায় ঘটনাস্থলেই পাঁচজনের মৃত্যু হয়। আহত অর্ধশতাধিক। প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সেনাবাহিনীর কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। এএফপি, মিয়ানমার নাউ।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবি ও ভিডিওতে দেখা গেছে, একটি গাড়ি বিক্ষোভকারীদের ওপর উঠিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং সড়কের ওপর হতাহতদের দেহ পড়ে আছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিক্ষোভকারী বলেছেন, ‘আমি একটি ট্রাকের ধাক্কা খেয়ে পড়ে যাই। এক সেনা আমাকে তার রাইফেল দিয়ে পেটাচ্ছিল কিন্তু আমি তাকে ঠেকাই এবং তাকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেই। আমি আঁকাবাঁকা হয়ে দৌড় শুরু করলে সে আমাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। সৌভাগ্যবশত আমি পালাতে সক্ষম হয়েছি।’ প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, একটি বেসরকারি গাড়িতে সেনারা ছিল এবং সেটি তারা মিছিলের পেছনের অংশে উঠিয়ে দেয়। বিক্ষোভকারীরা ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়লে তাদের গ্রেপ্তার ও লাঠিপেটা করা হয়। বিক্ষোভকারীদের কয়েকজন মাথায় আঘাত পেয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছিল।

১ ফেব্রুয়ারির অভ্যুত্থানের পর থেকে ১৩০০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হওয়া সত্ত্বেও মিয়ানমারজুড়ে জান্তাবিরোধী প্রতিবাদ অব্যাহত আছে। বিক্ষিপ্ত ছোট ছোট দলের এসব প্রতিবাদগুলো থেকে সামরিক অভ্যুত্থানবিরোধী স্লোগান দেওয়া হয়। গণতন্ত্রপন্থি নেত্রী অং সান সু চির নির্বাচিত সরকারকে ক্ষমতা ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিও জানায় তারা। রোববার ইয়াঙ্গুনে এ ধরনের একটি বিক্ষোভ শুরু হওয়ার কয়েক মিনিট পর একটি গাড়ি মিছিলটির ওপর দিয়ে চালিয়ে দেওয়া হয়, এরপর পুলিশ বেশ কয়েকজন গ্রেফতার করে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা রয়টার্সকে জানিয়েছেন। গত বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সু চির দল কারচুপি করে জয়ী হয়েছিল, তাই তারা অভ্যুত্থান করেছেন বলে দাবি মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর। দেশটির নির্বাচন কমিশন ভোটে কারচুপির অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

মিয়ানমারে বিক্ষোভে সেনাগাড়ির ধাক্কা

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভকারীদের গাড়ি দিয়ে চাপা দিয়েছে সেনাবাহিনী। রোববার রাজধানী ইয়াঙ্গুনের একটি শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে এ ঘটনা ঘটেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, সেনাসদস্য বহনকারী গাড়ির চাপায় ঘটনাস্থলেই পাঁচজনের মৃত্যু হয়। আহত অর্ধশতাধিক। প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সেনাবাহিনীর কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। এএফপি, মিয়ানমার নাউ।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবি ও ভিডিওতে দেখা গেছে, একটি গাড়ি বিক্ষোভকারীদের ওপর উঠিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং সড়কের ওপর হতাহতদের দেহ পড়ে আছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিক্ষোভকারী বলেছেন, ‘আমি একটি ট্রাকের ধাক্কা খেয়ে পড়ে যাই। এক সেনা আমাকে তার রাইফেল দিয়ে পেটাচ্ছিল কিন্তু আমি তাকে ঠেকাই এবং তাকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেই। আমি আঁকাবাঁকা হয়ে দৌড় শুরু করলে সে আমাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। সৌভাগ্যবশত আমি পালাতে সক্ষম হয়েছি।’ প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, একটি বেসরকারি গাড়িতে সেনারা ছিল এবং সেটি তারা মিছিলের পেছনের অংশে উঠিয়ে দেয়। বিক্ষোভকারীরা ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়লে তাদের গ্রেপ্তার ও লাঠিপেটা করা হয়। বিক্ষোভকারীদের কয়েকজন মাথায় আঘাত পেয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছিল।

১ ফেব্রুয়ারির অভ্যুত্থানের পর থেকে ১৩০০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হওয়া সত্ত্বেও মিয়ানমারজুড়ে জান্তাবিরোধী প্রতিবাদ অব্যাহত আছে। বিক্ষিপ্ত ছোট ছোট দলের এসব প্রতিবাদগুলো থেকে সামরিক অভ্যুত্থানবিরোধী স্লোগান দেওয়া হয়। গণতন্ত্রপন্থি নেত্রী অং সান সু চির নির্বাচিত সরকারকে ক্ষমতা ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিও জানায় তারা। রোববার ইয়াঙ্গুনে এ ধরনের একটি বিক্ষোভ শুরু হওয়ার কয়েক মিনিট পর একটি গাড়ি মিছিলটির ওপর দিয়ে চালিয়ে দেওয়া হয়, এরপর পুলিশ বেশ কয়েকজন গ্রেফতার করে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা রয়টার্সকে জানিয়েছেন। গত বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সু চির দল কারচুপি করে জয়ী হয়েছিল, তাই তারা অভ্যুত্থান করেছেন বলে দাবি মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর। দেশটির নির্বাচন কমিশন ভোটে কারচুপির অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন