কীভাবে কাটবে মার্কেলের অবসর
jugantor
৮ ডিসেম্বর ক্ষমতা ছাড়ছেন
কীভাবে কাটবে মার্কেলের অবসর

  অনলাইন ডেস্ক  

০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ষোলো বছর ইউরোপের বৃহত্তম অর্থনীতির দায়িত্বে থাকার পর, অ্যাঞ্জেলা মার্কেল রাজনীতি থেকে অবসর নেওয়ার পর প্রথম যে কাজটি করতে চান তা হলো-নিজের ভাষায়, ‘একটু ঘুমানো’। কিন্তু তারপর কী করবেন তিনি? প্রবীণ এ বিরল নেতা বুধবার তার উত্তরসূরি ওলাফ শোলজের হাতে ‘চ্যান্সেলর’ দায়িত্বের লাগাম হস্তান্তর করার পর তিনি কী করবেন সে সম্পর্কে বলেছেন আঁটোসাঁটো কথা। এএফপি।

চার মেয়াদে দায়িত্বে থাকা ৬৭ বছর বয়সি মার্কেলকে প্রায়শই বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী মহিলা হিসেবে বর্ণনা করার কথা শোনা গিয়েছিল। প্রবাদ আছে, তিনি একাই নাকি ষাট লাখ পুরুষের সমান। তিনি সম্প্রতি ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, তিনি দায়িত্বকে মিস করবেন না। তিনি বলেন, ‘আমি খুব দ্রুত বুঝতে পারব, এসব এখন অন্য কারোর দায়িত্ব। আমি মনে করি সেই পরিস্থিতিকেও অনেক এনজয় করব।’ জার্মান ট্যাক্সপেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের হিসাব অনুযায়ী মার্কেল তার অবসরে প্রায় ১৫ হাজার ইউরো করে মাসিক পেনশন পেতে চলেছেন। সারা রাত মিটিংয়ের পর স্থিতিশীল এবং সতেজ থাকার ক্ষমতার জন্য বিখ্যাত মার্কেল একবার বলেছিলেন, তিনি ঘুম সঞ্চয় করতে পারেন, উটের পানি সঞ্চয়ের মতো। কিন্তু ওয়াশিংটনে তার অবসর সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে, তিনি উত্তর দিয়েছিলেন-‘হয়তো আমি কিছু পড়ার চেষ্টা করব। তখন আমার চোখ বন্ধ হতে শুরু করবে কারণ আমি ক্লান্ত, তাই আমি একটু ঘুমিয়ে নেবো।’

মার্কেল তার স্বামী জোয়াকিউম সৌরের সঙ্গে আরো বেশি সময় কাটাতে চান পূর্ব জার্মানির টেম্পলিনের কাছে হোহেনওয়াল্ডে। সেখানে তিনি ছোটবেলা কাটিয়েছেন, বড় হয়েছেন। সেখানে ছুটি কাটানোর জন্য তার একটি বাড়ি আছে। ক্লান্ত হয়ে গেলেই বিশ্রামের জন্য তিনি সেখানে ফিরে যেতেন। অবসর সময়ে তিনি যে কাজগুলো করতে পারেন তার মধ্যে রয়েছে-সবজি এবং বিশেষ করে আলু রোপণ। ২০১৩ সালে একবার বান্টে ম্যাগাজিনকে বলেছিলেন এই কাজটি তিনি উপভোগ করেছিলেন। এ ছাড়া তিনি আগ্নেয়গিরির দ্বীপ ডিইচিয়া, বিশেষ করে সান্তঅ্যাঞ্জেলোর প্রত্যন্ত সমুদ্রতীরবর্তী একটি গ্রামের ভক্ত তিনি। সেখানে গিয়ে বেড়াবেন আর তার অতি পছন্দের আলুর স্যুপের বাটিতে চুমক দিয়ে তুলবেন তৃপ্তির ঢেঁকুর।

৮ ডিসেম্বর ক্ষমতা ছাড়ছেন

কীভাবে কাটবে মার্কেলের অবসর

 অনলাইন ডেস্ক 
০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ষোলো বছর ইউরোপের বৃহত্তম অর্থনীতির দায়িত্বে থাকার পর, অ্যাঞ্জেলা মার্কেল রাজনীতি থেকে অবসর নেওয়ার পর প্রথম যে কাজটি করতে চান তা হলো-নিজের ভাষায়, ‘একটু ঘুমানো’। কিন্তু তারপর কী করবেন তিনি? প্রবীণ এ বিরল নেতা বুধবার তার উত্তরসূরি ওলাফ শোলজের হাতে ‘চ্যান্সেলর’ দায়িত্বের লাগাম হস্তান্তর করার পর তিনি কী করবেন সে সম্পর্কে বলেছেন আঁটোসাঁটো কথা। এএফপি।

চার মেয়াদে দায়িত্বে থাকা ৬৭ বছর বয়সি মার্কেলকে প্রায়শই বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী মহিলা হিসেবে বর্ণনা করার কথা শোনা গিয়েছিল। প্রবাদ আছে, তিনি একাই নাকি ষাট লাখ পুরুষের সমান। তিনি সম্প্রতি ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, তিনি দায়িত্বকে মিস করবেন না। তিনি বলেন, ‘আমি খুব দ্রুত বুঝতে পারব, এসব এখন অন্য কারোর দায়িত্ব। আমি মনে করি সেই পরিস্থিতিকেও অনেক এনজয় করব।’ জার্মান ট্যাক্সপেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের হিসাব অনুযায়ী মার্কেল তার অবসরে প্রায় ১৫ হাজার ইউরো করে মাসিক পেনশন পেতে চলেছেন। সারা রাত মিটিংয়ের পর স্থিতিশীল এবং সতেজ থাকার ক্ষমতার জন্য বিখ্যাত মার্কেল একবার বলেছিলেন, তিনি ঘুম সঞ্চয় করতে পারেন, উটের পানি সঞ্চয়ের মতো। কিন্তু ওয়াশিংটনে তার অবসর সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে, তিনি উত্তর দিয়েছিলেন-‘হয়তো আমি কিছু পড়ার চেষ্টা করব। তখন আমার চোখ বন্ধ হতে শুরু করবে কারণ আমি ক্লান্ত, তাই আমি একটু ঘুমিয়ে নেবো।’

মার্কেল তার স্বামী জোয়াকিউম সৌরের সঙ্গে আরো বেশি সময় কাটাতে চান পূর্ব জার্মানির টেম্পলিনের কাছে হোহেনওয়াল্ডে। সেখানে তিনি ছোটবেলা কাটিয়েছেন, বড় হয়েছেন। সেখানে ছুটি কাটানোর জন্য তার একটি বাড়ি আছে। ক্লান্ত হয়ে গেলেই বিশ্রামের জন্য তিনি সেখানে ফিরে যেতেন। অবসর সময়ে তিনি যে কাজগুলো করতে পারেন তার মধ্যে রয়েছে-সবজি এবং বিশেষ করে আলু রোপণ। ২০১৩ সালে একবার বান্টে ম্যাগাজিনকে বলেছিলেন এই কাজটি তিনি উপভোগ করেছিলেন। এ ছাড়া তিনি আগ্নেয়গিরির দ্বীপ ডিইচিয়া, বিশেষ করে সান্তঅ্যাঞ্জেলোর প্রত্যন্ত সমুদ্রতীরবর্তী একটি গ্রামের ভক্ত তিনি। সেখানে গিয়ে বেড়াবেন আর তার অতি পছন্দের আলুর স্যুপের বাটিতে চুমক দিয়ে তুলবেন তৃপ্তির ঢেঁকুর।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন