শতাধিক আর্টিলারি নিক্ষেপ উত্তর কোরিয়ার
jugantor
ছোট খবর
শতাধিক আর্টিলারি নিক্ষেপ উত্তর কোরিয়ার

   

০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক সূত্র জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়া সাগরের পূর্ব ও পশ্চিম দিকে সোমবার ১৩০টি আর্টিলারি নিক্ষেপ করেছে উত্তর কোরিয়া। এসব আর্টিলারির কিছু সমদ্র-উপকূলবর্তী শিল্পাঞ্চল এলাকায় পড়েছে। সিউল বলেছে, ২০১৮ সালে কোরিয়া অঞ্চলে উত্তেজনা কমাতে সম্পাদিত আন্তঃকোরিয়া চুক্তির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। সিউলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, আর্টিলারি নিক্ষেপ নিয়ে উত্তর কোরিয়াকে কয়েকবার সতর্ক বার্তা পাঠিয়েছে। তবে উত্তর কোরিয়া এ ব্যাপারে এখনো কিছু বলেনি। গত কয়েক সপ্তাহ থেকে আইসিবিএমসহ বেশ কয়েকটি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে। দেশটি যুদ্ধবিমান ও আর্টিলারি ইউনিটসহ বিভিন্ন সামরিক কলা-কৌশল নিয়ে চর্চা করছে। দক্ষিণ কোরিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রও যৌথ সামরিক মহড়া চালিয়েছে। উত্তর কোরিয়া এই মহড়ার নিন্দা জানিয়েছে। উত্তর কোরিয়ার পরমাণু অস্ত্রের বিপরীতে এই মহড়ার দরকার ছিল বলে বলেছে সিউল ও ওয়াশিংটন। ২০১৮ সালে কিম জন উন এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট মুন জাই-ইনের মধ্যে বেশ কয়েকবার বৈঠকের পর কম্প্রেহেনসিভ মিলিটারি এগ্রিমেন্ট (সিএমএ) চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক ক্ষেপণাস্ত্র চর্চা এবং সামরিক মহড়া সেই প্রচেষ্টার বিপরীত। এতে চুক্তির ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। চলতি বছর বেশ কয়েকবার উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে চুক্তি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছে দক্ষিণ কোরিয়া। ২০১৭ সালের পর এ বছরই উত্তর কোরিয়া দীর্ঘপাল্লার আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, উত্তর কোরিয়া এবার পরমাণু পরীক্ষা চালানোর উদ্যোগ নিচ্ছে।

ছোট খবর

শতাধিক আর্টিলারি নিক্ষেপ উত্তর কোরিয়ার

  
০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক সূত্র জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়া সাগরের পূর্ব ও পশ্চিম দিকে সোমবার ১৩০টি আর্টিলারি নিক্ষেপ করেছে উত্তর কোরিয়া। এসব আর্টিলারির কিছু সমদ্র-উপকূলবর্তী শিল্পাঞ্চল এলাকায় পড়েছে। সিউল বলেছে, ২০১৮ সালে কোরিয়া অঞ্চলে উত্তেজনা কমাতে সম্পাদিত আন্তঃকোরিয়া চুক্তির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। সিউলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, আর্টিলারি নিক্ষেপ নিয়ে উত্তর কোরিয়াকে কয়েকবার সতর্ক বার্তা পাঠিয়েছে। তবে উত্তর কোরিয়া এ ব্যাপারে এখনো কিছু বলেনি। গত কয়েক সপ্তাহ থেকে আইসিবিএমসহ বেশ কয়েকটি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে। দেশটি যুদ্ধবিমান ও আর্টিলারি ইউনিটসহ বিভিন্ন সামরিক কলা-কৌশল নিয়ে চর্চা করছে। দক্ষিণ কোরিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রও যৌথ সামরিক মহড়া চালিয়েছে। উত্তর কোরিয়া এই মহড়ার নিন্দা জানিয়েছে। উত্তর কোরিয়ার পরমাণু অস্ত্রের বিপরীতে এই মহড়ার দরকার ছিল বলে বলেছে সিউল ও ওয়াশিংটন। ২০১৮ সালে কিম জন উন এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট মুন জাই-ইনের মধ্যে বেশ কয়েকবার বৈঠকের পর কম্প্রেহেনসিভ মিলিটারি এগ্রিমেন্ট (সিএমএ) চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক ক্ষেপণাস্ত্র চর্চা এবং সামরিক মহড়া সেই প্রচেষ্টার বিপরীত। এতে চুক্তির ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। চলতি বছর বেশ কয়েকবার উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে চুক্তি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছে দক্ষিণ কোরিয়া। ২০১৭ সালের পর এ বছরই উত্তর কোরিয়া দীর্ঘপাল্লার আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, উত্তর কোরিয়া এবার পরমাণু পরীক্ষা চালানোর উদ্যোগ নিচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন